ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুতের ওয়্যারিং পরিদর্শককে স্যার না বলায় মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত

মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুতের ওয়্যারিং পরিদর্শককে স্যার না বলায় মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত

September 7, 2016 - 3:17 PM

মেহেরপুর প্রতিনিধি:জাতীয় বীরের উপাধী ও দেশের শ্রেষ্ট সন্তান যাদের বলা হয় তারা আজ পদে পদে লাঞ্ছিত।এদের মূল্য কোন দিন টাকার বিনিময়ে হবে না।১৯৭১ সালে নিজের জীবনের বিনিময়ে ৯ মাস যুদ্ধো করে দেশ স্বাধীন করে।পরিবারের মায়া ত্যাগ করে দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে আজ লাল সবুজের পতাকা উপহার দিয়েছে ১৮ কেটি মানুষ কে।পাকিস্থানের গুলি অপেক্ষা করে স্বাধীনতার জনক শেখ মুজিবর রহমানের ডাকে যারা মাতৃভাষা ভালবাসার জন্য লাঠি,বৈঠা নিয়ে যুদ্ধ করে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছে তারা আজ সামান্য মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতির গাংনী জোনাল অফিসের ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান আলীকে স্যার না বলার অপরাধে লাঞ্ছিত হয়েছে।কিন্তু কেন?এই শাজাহান কি ভুলে গেছে স্বাধীনতার কথা।একে অফিসার বানায়েছে কে?গাংনী জোনাল অফিসের ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান আলী ভ’লে গেছে মুক্তিযুদ্ধের জন্য আজ সে অফিসার।তবে বীর মুক্তিযুদ্ধাকে লাি ত করায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এই ঘটনাটি ঘটে গত ৩১শে আগষ্ট ১০টার সময় মেহেরপুর গাংনী জোনাল অফিসের ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান আলী অফিস কক্ষে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের চিৎলা গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা ওমর ফকিরে ঘনিষ্ঠ জন মহি উদ্দীন পল্লী বিদ্যুৎ কাজের জন্য তার সাথে গাংনী জোনাল অফিসে যায়।কথা বলার সময় ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান কে বীরমুক্তিযোদ্ধা ওমর ফকির বাবাজি বলেন সে তেলে বেগুনে জ্বলে উঠেন। আমাকে স্যার বলতে হবে। বীরমুক্তিযোদ্ধা ওমর ফকির বলেন ডিসি সাহেব ও বলেন আমাকে স্যার বলবেন না।শুধু ডিসি সাহেব না হয় আমার নাম ধরে ডাকবেন।কিন্তু গাংনী জোনাল অফিসের ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান আলী আমাকে স্যার বলতে বলেন।আমি স্যার না বললে আমাকে গালাগালি করে।মুক্তিযুদ্ধার নাম শুনে বলে শাজাহান আমি মুক্তিযুদ্ধা মানি না। আপনি আমার অফিস থেকে বাহির হয়ে যান। শাজাহান আর ও বলেন মুক্তিযুদ্ধা বলে হেসে উঠে।এতে বীর মুক্তিযুদ্ধা মানুষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন।
মহি উদ্দীন জানান, গত ৩১শে আগষ্ট ১০টার সময় আমার বাড়ীর নতুন সংযোগের জন্য পল্লী বিদ্যুৎ যায়।আমাকে ৮ মাস ধরে ঘুরাছে গাংনী জোনাল অফিসের ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান আলী ।আমার সাথে টাকা চাই,আমি টাকা দিতে না চাইলে সে আমার উপর রাগানিত হলে এক পর্যায়ে দুই জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।এমন সময় বীর মুক্তিযুদ্ধা ওমর ফকির আমাদের থামাতে এলে শাজাহান আলীকে বাবাজি বললে শাজাহান আলী রেগে যায়।্আপনাকে কে ডেকেছে,অফিস থেকে বাহির হোন।

মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ গাংনী জোনাল অফিসের ডিজিএম এর সাথে যোগাযোগ করলে বলেন,বিষয়টি আমি দেখছি।সংবাদ লেখার দরকার নেই।মুক্তিযুদ্ধাকে আমার কাছে পাঠায়ে দেন।তবে এক সপ্তাহ পার হলে ও কোন ব্যবস্থা নেননি।

মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানাজার আব্দুল মতিন বলেন,মুক্তিযুদ্ধার সাথে এমন আচরন করা ঠিক হয়নি এবং চরম অন্যায় বলে স্বীকার করেন।আমি আমাদের সমিতির আইন মেনে ব্যবস্থা নিবো।
জেলা মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডার বশির আহমেদ জানায়,মুক্তিযুদ্ধাকে লাি ত করা সাহস পেলো কোথায় থেকে।এর আইনগত ব্যবস্থা নিবো।এবং আমি গাংনী জোনাল অফিসের ওয়্যারিং পরিদর্শক শাজাহান আলী চাকুরীর অপসারনের দাবী জানায়।

আপনার মতামত জানানঃ