ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   মেহেরপুর গাংনী পৌর এলাকার চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ

মেহেরপুর গাংনী পৌর এলাকার চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ

September 27, 2016 - 3:43 PM

মেহেরপুর প্রতিনিধি ঃ মেহেরপুরের গাংনী পৌর এলাকার ১৬০ জন চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে।
আজ মঙ্গলবার বেলা ১১ টার সময় উপজেলা কৃষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে গাংনী পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সার বিতরণ কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন।
উপজেলা কৃষি অফিসার রইচ উদ্দীনের সভাপতিত্বে বীজ ও সার বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পৌর সভার প্যানেল মেয়র নবীর উদ্দীন, ৮ নং ওয়াডের কাউন্সিলর সাইদুল ইসলাম, ৯ নং ওয়াডের কাউন্সিলর এনামুল হক, পৌর এলাকার উপসহকারী কৃষি অফিসার শফিউল ইসলাম।
এছাড়া গাংনী পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মানিক আহমেদ, শ্রমীকলীগ নেতা আক্তারুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।
পৌর এলাকার ৪০ সরিষা, ৬০ জন ভূট্টা ও ৬০ জন মুগ চাষীদের মাঝে এক কেজি সরিষা বীজ, ২০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি পটাশ সার বিনা মূল্যে বিতরণ করা হয়।
গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে অবৈধভাবে শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগ
অনিশ্চিত ভবিষ্যতের পথে ১৩ শিক্ষক- কর্মচারীর চাকরী
আল-আমীন,মেহেরপুরঃ মেহেরপুরের গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে ভুয়া শাখা খুলে ও জাতীয় করণের অজুহাতে নিয়োগ দেয়া ১৩ শিক্ষক কর্মচারীর নামের তালিকা প্রদান করা হয়নি বিদ্যালয় পরিদর্শক দলের কাছে। এদের ভবিষ্যত কি এবং চাকরী এমপিও ভূক্ত হবে কি না সেটি নিয়ে বেশ সন্দিহান অনেকেই। অপরদিকে বিদ্যালয় জাতীয় করনে সরকার প্রদত্ব পরিপত্রের ৫ নির্দেশনার চারটিতে অসম্পূর্ণ তথ্য দেয়া ও সুপারিশ করেছেন গাংনী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার। এনিয়েও উপর মহলে চলছে বেশ আলোচনা সমালোচনা।
প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ি, প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাকালীণ সময় হতে সরকারী নীতিমালা অনুযায়ি ১১জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়ে যাত্রা শুরু করে। ২০০২ সালের স্মারক বিহীন ত্রুটিযুক্ত এক পত্রাবলে ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম শ্রেনীর ক, খ ও গ এবং ৯ম ও ১০ম শ্রেনীর ক ও খ শাখা অনুমোদন দেখিয়ে নিয়োগ দেয়া ৮জন শিক্ষক কর্মচারী সরকারী অনুদান ভোগ করছেন। এদিকে সরকার ঘোষিত প্রতিটি উপজেলায় একটি স্কুল ও একটি কলেজ জাতীয় করণের প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু হলে বর্তমান প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান লালু গোপনে একটি নাম সর্বস্ব পত্রিকায় পুরানো তারিখে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখিয়ে ১৩ জন শিক্ষক কর্মচারীকে নিয়োগ দেন।
এদের মধ্যে ব্যবসায়ি শিক্ষায় ইমরান হোসেন ও সাহিদা খাতুন, বাংলা শাখায় ফজিলা খাতুন ও সালমা খাতুন, সামাজিক বিজ্ঞানে সায়লা শারমীন, এলিনা ইয়াসমীন, জান্নাতুল ফেরদৌস, রজনী খাতুন ও আহসান হাবিব, গণিতে কামরুজ্জামান, নিম্নমান সহকারী মাহমুদা নাজমীন, এমএলএসএস আল মামুন ও হাসানুজ্জামান।
সরকার ঘোষিত নীতিমালা অনুযায়ি ২০১৫ সালের ২২ আগস্টের পর থেকে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সকল নিয়োগ স্থগিত রাখেন সরকার। অথচ প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান লালু জাতীয় করণের অজুহাতে শিক্ষক কর্মচারী এ নিয়োগ দেন। সম্প্রতি জাতীয় করণের বিষয়ে খুলনা বিভাগীয় শিক্ষা অফিস কর্তৃক প্রেরিত প্রতিনিধি দল বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে আসলে প্রধান শিক্ষক সদ্য নিয়োগকৃতদের নামের তালিকা বাদ দিয়েই তথ্য প্রদান করেন।
সরকারী প্রজ্ঞাপন অনুযায়ি প্রতি বছর পাশের হার সন্তোসজনক হতে হবে। অথচ বিদ্যালয়টিতে ২০১৬ সালে ২১ জন, ২০১৫ সালে ২২ জন, ২০১৪ সালে ২৮জন এবং ২০১৩ সালে ৩৫ জন পরীক্ষার্থী পাশ করে। সিনিয়র বিদ্যালয়টির নাম অন্তর্ভূক্ত করণ করতে হবে। বালিকা বিদ্যালয়টির পূর্বেও অনেক নামি দামী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। শিক্ষার্থীর সংখ্যা নেই সন্তোস জনক। অথচ উপজেলা শিক্ষা অফিসার অজ্ঞাত কারণে এ বিদ্যালয়টির নামের তালিকা প্রেরণ করেছেন জাতিয়করণের জন্য।
এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান জানান, জাতীয়করণের একটা আভাস পাওয়ায় ৫২ জন কর্মকর্তা কর্মচারীর পদ সৃষ্টির লক্ষ্যে আরো ১৩ জনকে নিয়োগ দান করা হয়। তাদের বেতন ভাতা হবে কি হবেনা এটা নিয়োগ প্রাপ্তরাও জানেন। কৌশলগত কারণেই তাদের নামের তালিকা প্রদান করা হয়নি।
এব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিসার সুভাষ চন্দ্র গোলদার জানান, শাখা খোলা ও শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে ১২ এপ্রিল ২০১৫ একটি তদন্তের লক্ষ্যে বিদ্যালয় পরিদর্শক মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডকে অবহিত করা হয়েছে। তা এখনও আমাদের হাতে আসেনি। যদি কেউ দোষি হয়ে থাকেন তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও গত ৩ তারিখে জাতীয় করণের লক্ষে একটি তদন্ত হয়েছে। এসময় প্রতিষ্ঠানটির নানা অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। তাছাড়া যাদের নামের তালিকা প্রদান করা হয়নি তাদের ভবিষ্যত অনিশ্চিত।
বিদ্যালয় পরিদর্শনে আসা টীমের সদস্য নিভারানী পাঠক জানান, জাতিয়করণের লক্ষ্যে প্রধান শিক্ষক যে নিয়োগ দিয়েছেন সেটি অবৈধ। পরিদর্শনকালে নিয়োগের বিষয়টি দৃষ্টি গোচর হলে প্রধান শিক্ষক বেসামাল হয়ে পড়েন। এমনকি সে তার নিজের তথ্যটিও দিতে ব্যর্থ হন। পরিদর্শনের দু’দিন পর কুষ্টিয়া এসে সদ্য নিয়োগকৃত ১৩ জন শিক্ষক কর্মচারীদের নামের তালিকা বাদ দিয়ে বিদ্যালয়ের ৩৫ জন শিক্ষক কর্মচারীদের নামের তালিকা জমা দেন। তথ্য তালিকায় বাদ পড়া সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত ১৩ জনের ভবিষ্যত অনিশ্চিত বলে তিনি জানান

আপনার মতামত জানানঃ