ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টসহ মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টসহ মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

September 7, 2016 - 2:40 PM

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এই দুর্নীতির সঙ্গে সরকারের মন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জড়িত বলেও অভিযোগ করা হয়েছে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এ অভিযোগ করেছে।

আল-জাজিরা জানিয়েছে, ঘুষ হিসেবে প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনের বিরুদ্ধে নগদ ১০ লাখ মার্কিন ডলার তুলে দেওয়া হয়েছিল। আর এ তথ্যাটি জানিয়েছেন ইয়ামিনের হাতে ব্যাগভর্তি নগদ অর্থ যে তুলে দিয়েছিলেন সেই ব্যক্তি।

‘স্টিলিং প্যারাডাইজ’ নামের তথ্যচিত্রে আল-জাজিরা জানিয়েছে, ইয়ামিন সরকারের এই দুর্নীতির বেশ কিছু চিত্র দেশটির প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট আহমেদ আদিবের তিনটি স্মার্টফোনে রেকর্ড রয়েছে। এ ছাড়া এ সংশ্লিষ্ট আরো অনেক বিশ্বাসযোগ্য নথি পাওয়া গেছে। ভয়াবহ দুর্নীতির এই চিত্র গোপনে ধারণ করা হয়েছে স্মার্টফোনে। এতে অন্তত তিন কর্মকর্তার কোটি ডলার আত্মসাতের তথ্য রয়েছে। এসব অর্থ প্রেসিডেন্ট ও তার উপপ্রধানদের নির্দেশে হস্তান্তর করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইয়ামিনের মন্ত্রী ও সহযোগীরা সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ার তিন ব্যবসায়ীর সহযোগিতায় দক্ষিণ এশিয়ার একটি দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মাধ্যমে ১৫০ কোটি মার্কিন ডলার পাচারের পরিকল্পনা হাতে নেয়। তারা মালদ্বীপের অর্থ কর্তৃপক্ষকে (এমএমএ) ব্যবহার করে একসঙ্গে ১০ কোটি ডলার পাচারের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

পরিকল্পনায় জড়িত ফাইদজান হাসান নামে মালয়েশিয়ার এক ব্যবসায়ীর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আল-জাজিরার অনুসন্ধানী ইউনিটের এক প্রতিবেদক। ওই প্রতিবেদক হাসানকে বলেন, তার বেশ কয়েকজন ধনী গ্রাহক রয়েছেন, যাদের সঙ্গে রাজনীতিবিদদের সম্পর্ক রয়েছে। তারা নগদ লেনদেন করতে চান এবং পুরোপুরি নিরাপত্তা চান। ওই প্রতিবেদককে হাসান বলেন, ‘আপনার কতো টাকা আছে?’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি অস্ত্র ও মাদক নিয়ে কাজ করি না।’

পরে অবশ্য হাসান মালদ্বীপের অর্থ পাচার পরিকল্পনার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেছেন, আলজাজিরার সাংবাদিক তার কাছে থেকে নেয়া তথ্য ভুলভাবে উপস্থাপন করেছেন।

আল-জাজিরা তথ্যচিত্রে গোপনে ধারণ করা ভিডিও সংযুক্ত করা হয়েছে। এতে দেখা গেছে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট, ফাস্টলেডি, জ্যেষ্ঠ বিচারক ও অসংখ্য রাজনীতিবিদ ও কর্মকর্তাদের কাছে কিভাবে অর্থ সরবরাহ করা হয়েছিল সে ব্যাপারে তিন ব্যক্তি আলোচনা করছিল।

এদের একজন বলছিলেন,‘পুরো ব্যবস্থাটাই দুর্নীতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে।’

জবাবে প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্টের গাড়িচালক হেসে জবাব দেয়, ‘ প্রেসিডেন্টের জন্য যে অর্থ নিয়ে গিয়েছিলাম তা বহন করা কষ্টকর হয়ে পড়েছিল।’ পরে সে জানায়, প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের হাতে সে এক লাখ ডলার তুলে দিয়েছিল। পরে তাকে বলা হয়েছিল প্রেসিডেন্ট ১০ লাখ ডলার চেয়েছেন। এরপর সে বাকী অর্থ প্রেসিডেন্টের কাছে পৌঁছে দিয়েছিল।

আপনার মতামত জানানঃ