ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে ডিউটি ফাঁকি দিয়ে ডাঃ হুমায়নের প্রাইভেট প্র্যাকটিস

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল

মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে ডিউটি ফাঁকি দিয়ে ডাঃ হুমায়নের প্রাইভেট প্র্যাকটিস

অক্টোবর ২৪, ২০২০ - ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ
মানিকগঞ্জঃ ডিউটি সদও হাসপাতালের ইমারজেন্সী বিভাগে অথচ রোগী দেখছেন সেন্ট্রাল হাসপাতালে------ছবি আমিনুল ইসলাম

আমিনুল ইসলাম, জেলা প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জঃ মানিগঞ্জর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষঞ্জ ডাঃ হুমায়ন কবীরের ডিউটি ফাঁকি দিয়ে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করার ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলেও এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

ভুক্তভোগীরা জানায়, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে অবস্থিত ২৫০ শয্যার জেলা হাসপাতালে চলছে চরম দুর্নীতি ও সীমাহীন অনিয়ম। চিকিৎসকগন মন্ত্রনালয়ের নির্দেশ অমান্য করে কর্তব্যরত অবস্থায় প্রাইভেট প্র্যাকটিসে ব্যস্ত থাকেন। ফলে সরকারী ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা সেবা নিতে আসা শত’শত রোগী সাধারন অবর্ননীয় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

গত বুধবার দিনভর অসংখ্য মা ও শিশু রোগীকে হাসপাতালে অপেক্ষমান রেখে শিশু বিশেষঞ্জ ডাঃ হুমায়ন কবীর বেসরকারী প্রতিষ্টান সেন্ট্রাল স্পেশালাইস্ট হাসপাতালে প্রাইভেট রোগী দেখায় ব্যস্ত থাকে। বিকেল সাড়ে ৫টা বেজে গেলেও ঐ চিৎিসক হাসপাতালে না ফিরলে বিক্ষুব্ধ রোগীরা বিষয়টি মানিকগঞ্জে কর্তব্য সাংবাদিকদের জানায়। তারা রোগী সেজে তাৎক্ষনিক ভাবে ছুটে যান মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালের উল্টো দিকে অবস্থিত সেন্ট্রাল হাসপাতালে। দেখতে পান রোগীদের উপচে পড়া ভীর। চেম্বারে বসে চুটিয়ে রোগী দেখছেন ডাঃ হুমায়ন কবীর। এহেন দৃশ্য সাংবাদিকরা ক্যামেরা বন্দী করেন।

সাংবাদিকরা হুমায়নকে প্রশ্ন করেন আপনার উিউটি কোথায়? জবাবে তিনি বলেন, সদর হাসপাতালের ইমাজেন্সী বিভাগে। তাহলে আপনি এখানে রোগী দেখছেন কিভাবে? এমন প্রশ্নের জবাব না দিয়ে অনেকটা চোরের মত পালিয়ে যায় হুমায়ন। একই সময়ে সাংবাদিকদের আরেকটি টিম তথ্যানুসন্ধানে যান সদর হাসপাতালের ইমাজেন্সি বিভাগে। সেখানে অবস্থানরত নার্স ও ঝাড়–দারদের কাছে হুমায়নের অবস্থান জানতে চাওয়া হলে তারা গনমাধ্যম কর্মীদের জানান, স্যার ওয়াশ রুমে। অথচ তিনি ব্যস্ত প্রাইভেট প্র্যাকটিসে।
বিষয়টি তাৎক্ষনিক ভাবে আবাসিক চিকিৎসক ও তত্বাবধায়কে জানালে তারা ছুটে আসেন ইমাজেন্সীতে। এসে ডাঃ হুমায়নকে না পেয়ে তারা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েন। ইতোম্েয হুমায়ন সেন্ট্রাল হাসপাতাল থেকে চলে কর্মস্থলে। কিন্তু বিধিবাম! বিক্ষুব্ধ রোগীদের রোষানলে পড়ে হুমায়ন। হৈচৈ পড়ে যায় গোটা হাসপাতালে।

ভুক্তভোগীরা জানায়, বাড়তি আয়ের প্রত্যাশায় মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালের বেশীর ভাগ চিকিৎসক হাসপাতালে রোগী দেখতে চায় না। হাসপাতালে সেবা পেলে প্রাইভেট প্র্যাকটিসের বারোট বেজে যাবে। তাই অসংখ্য রোগী বিশেষ করে শিশু রোগীরা ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করেও সরকারী ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা থেকে বনি ত হচ্ছে। ডাঃ হুমায়ন সরকারী চিকিৎসক হলেও তিনি বেশী সময় ব্যয় করেন সেন্ট্রাল হাসপাতালে। সরকারী হাসপাতাল থেকে ফুসলিয়ে রোগী নিয়ে সেন্ট্রাল হাসপাতালে যেতে বাধ্য করতে তার রয়েছে শক্তিশালী দালাল চক্র। এই চক্রে বিশেষ পেশার কতিপয় অসাধু ব্যাক্তি রয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। রোগীরা জানান, সদর হাসপাতালে যোগদানের পর থেকেই হুমায়ন সেন্ট্রাল হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করে আসছে।

দিপালী সাহা নামের এক গৃহবধু জানান, প্রায় দেড় ঘন্টা আগে এসেছি আমার ৯ মাস বয়সী কোলের শিশুর চিকিৎসার জন্য। কিন্তু ডাঃ সাহেব নাই। মধ্য বয়সী এক লোক বললেন বেশী জরুরী হলে সেন্ট্রল হাসপাতালে যান। সেখানে হুমায়ন স্যার ৬শ টাকার বিনিময়ে রোগী দেখেন। দিপালী বললেন, আমার কাছে ২ শ টাকা আছে। তখন ঐ দালাল বলে টাকা ম্যানেজ করে নিয়ে আসনে। স্যারকে সারারাত পাবেন। চিকিৎসার জন্য আসা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দিশারী ফাউন্ডেশনের সভাপতি হাসান শিকদার জানান, আজ সকালে আমি একজন মুমুর্ষ শিশুকে রক্ত দেওয়ার জন্য রক্তদাতাকে নিয়ে হাসপাতালে আসি। সারা দিন চেষ্ঠা করেও একজন ডাক্তার পাইনি। এক পর্যায়ে ডাঃ হুমায়নের কাছে গেলে তিনি বলেন, সেন্ট্রল হাসপালে যান। সরকারী ব্যবস্থাপনায় সেবা পেতে চাইলে তিনি ও তার সহযোগী দালাল চক্র ক্ষেপে যায়। তাদের অসদাচরনে ফিরে আসি। শিশু রোগীর অভিবাবক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রীর নিজ জেলায় অবস্থিত ২৫০ শয্যা বিশিষ্ঠ হাসপাতালটি দুর্নীতি-অনিয়মে ভরা। চিকিৎসা সেবা নিতে আসা সাধারন রোগীরা প্রতিনিয়ত হয়রানরি শিকার হচ্ছে। অথচ কর্তৃপক্ষ চোখ-কান নাড়ছে না। এই পরিস্থিতির অবসান হওয়া জরুরী। সদর উপজেলার বৈতরা গ্রামের শহিদুল ইসলাম জানান,এই বেহাল চিত্র সত্যি অবাক করার মত। রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বি ত হলেও হাতে গুনা কয়েকজন ছাড়া সকল ডাক্তারগন আছেন প্রাইভেট প্র্যাকটিসে ব্যস্ত। সেবা নয় টাকা রোজগারই যেন তাদের ব্রতী।

অনাকাংখিত এই ঘটনার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোদ মাধ্যমে পাবলিস্ট হলে তা ভাইরাল রুপ ধারন করে। এই অনিয়মের খবরে নানা জন নানা ভাবে প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানায়। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মোহাম্মদএরফান বলেন, কর্তব্যরত অবস্থায় প্রাইভেট প্র্যাকটিস আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। সঠিক তদন্তপুর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে অচিরেই শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ আরশাদ উল্লাহ্ জানান, বিষয়টি হাসপাতালের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করেছে। অপরাধ প্রমানিক হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত জানানঃ