ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   মানিকগঞ্জে মুখে বিষ ঢেলে স্কুল ছাত্রী হত্যা, তদন্তে সিআইডি

মানিকগঞ্জে মুখে বিষ ঢেলে স্কুল ছাত্রী হত্যা, তদন্তে সিআইডি

সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০ - ৪:০০ অপরাহ্ণ

আমিনুল ইসলাম, জেলা প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জঃ শারীরিক সম্পর্কের কথা পরিবারকে জানানোর অপরাধে জোরপুর্বক মুখে বিষ ঢেলে হত্যা করেছে পাষন্ড প্রেমিক। নবম শ্রেনির ছাত্রীকে নির্মম ভাবে হত্যা করার রহস্য উদঘাটনে ক্রিমিনিাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি) কে খতিয়ে দেখে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশে দিয়েছে আদালত।

পারিবারিক সুত্র জানায়, ঘিওর উপজেলার শ্রীধরনগর গ্রামের জাহিনুর শেখের মেয়ে শান্তি (১৪) তেরশ্রী কালিনারায়ন ইনস্টিটিউটের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী। স্কুলে যাতায়াতের পথে একই গ্রামের গেদু মিয়ার পুত্র বখাটে জসিম বিয়ের প্রলোভনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। অবুঝ শিশুটিকে ফুসলিয়ে অঞ্জাত স্থানে নিয়ে যায় জসিম এবং তার সহযোগী সাইফুল ও আজাদ।

সেখানে জসিম জোরপুর্বক শান্তির দেহভোগ করে। এই ঘটনাকে পুজি করে লম্পট জসিম প্রায়শঃই শান্তির সাথে শারীরিক সর্ম্পকে লিপ্ত হত। প্রেম-লীলার এই ঘটনাটি দাদী হামিদা বেগমকে জানায় শান্তি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে জসিম টেলিফোনে ডেকে তার বাড়ীর সামনে নিয়ে আসে। সেখানে জসিম ও তার সহযোগীরা শান্তির মুখে বিষ ঢেলে দেয়।

কিন্তু পালিয়ে যাবার আগ মহুর্তে দাদী হামিদা জসিম, আঃ ছালামের পুত্র সাইফুল (২২) ও মিনাজ উদ্দিনের পুত্র আজাদ (২৩) কে দেখতে পায়। জসিমের পরনের গেঞ্জি জাপটে ধরে। কিন্তু হামিদাকে লাথি মেওে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। তবে ফেলে যায় মোবাইল ফোন ও বিষের বোতল। হামিদার আত্ম-চিৎকাওে এগিয়ে এসে শান্তিকে মুমুর্ষ অবস্থায় ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত ১টার দিকে সে চিৎিসাধীন অবস্থায় মারা যায়। মৃত্যুর আগে অর্থ্যাৎ ঞ্জ্যান হারানোর আগে শান্তি জোর পুর্বক মুখে বিষ ঢেলে দেওয়ার কথা হামিদা ও উপস্থিত লোকদের জানায়।

এই ব্যাপারে শান্তির পিতা মামলা করতে ঘিওর থানায় হাজির হলে পুলিশ মামলা নিতে অপারগতা জানায়। বাধ্য হয়ে ১০ সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জের বিঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জসিম, সাইফুল ও আজাদকে আসামী করে হত্যা মামাল (সি, আর মামলা নং ১১৬) রুজু করেন। বিঞ্জ আদালত মামলাটি তদন্ত পুর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা জানতে সরেজমিনে গিয়ে এলাকাবাসী ও মামলার বাদী শান্তি পিতার সাথে কথা বলে জানা যায়, ঘিওর থানা পুলিশ উদ্ধারকৃত জসিমের ব্যবহৃত মোবাইল, গেঞ্জি ও বিষের বোতল নিয়ে গেলেও তারা মামলা নিতে রাজি হননি।

মামলার বাদী জাহিনুর শেখ বলেন, মামলা তুলে নিতে আসামী ও তার আত্মীয়স্বজনরা আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদের জীবননাশের হুমকি দিচ্ছে। আমাদেরকেও খুন করে লাশ গুম করবে বলে হুমকি দিয়ে বেড়াচ্ছে। তাই সরকারের কাছে আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই। অবিলম্বে খুনীদের গ্রেফতার করে তাদের ফাঁসি চাই।

আপনার মতামত জানানঃ