ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   মাগুরায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

মাগুরায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

September 9, 2016 - 6:55 AM

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট। প্রতিটি হাটে উঠছে ছোট-বড় মাঝারি সাইজের হাজার হাজার গরু।

স্থানীয় ক্রেতাদের পাশাপাশি বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বেপারিদের কাছে বেশি চাহিদা হচ্ছে গৃহস্থের পালা স্বাস্থ্যসম্মত দেশি ছোট-মাঝারি আকৃতির গরু, যা এখানে ‘টাইট গরু’ নামে পরিচিতি পেয়েছে। অনেকের আবার পছন্দ ছাগল-ভেড়া।

তবে দাম নিয়ে কোনো পক্ষই খুশি নয়। ক্রেতারা বলছেন দাম বেশি, আর বিক্রেতা ও খামারিরা বলছেন, ভারত থেকে গরু আসায় তারা উপযুক্ত দাম পাচ্ছেন না।

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে মাগুরার বিভিন্ন এলাকায় বসেছে পশুর হাট। তবে সদরের রামনগর, কাটাখালী, ইটখোলা বাজার, আলমখালী, শত্রুজিৎপুর, মহম্মদপুরের বেথুলিয়া, বেথুলিয়া, নহাটা, শালিখার আড়পাড়া, সীমাখালী, বুনাগাতী ও শ্রীপুর উপজেলার লাঙ্গলবাধ, সারঙ্গদিয়ায় বসেছে জেলার পশুর হাট। এসব হাটে উঠেছে ছোট-বড় সাইজের বিভিন্ন জাতের হাজার হাজার গরু। এসব হাটে সাধারণ ক্রেতাদের পাশাপাশি বেপারিদের নজর কেড়েছে গৃহস্থদের পালা ছোট ও মাঝারি সাইজের দেশি গরু। মাগুরার পশুহাটগুলো যা পরিচিতি পেয়েছে ‘টাইট গরু’ হিসেবে।

রামনগর, কাটাখালী, ইটখোলা বাজার পশুহাট ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের চাহিদার শীর্ষে থাকা এ ধরনের টাইট গরু ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কোরবানির জন্য কিনতে আসা অধিকাংশ ক্রেতাকেই দেখা গেছে এ ধরনের গরু কিনে বাড়ি ফিরতে।

মাগুরা হাসপাতাল পাড়া এলাকার আশরাফুল ইসলাম জানান, তিনি কাটাখালী হাট থেকে ৬৫ হাজার টাকায় গৃহস্থের পালা একটি টাইট গরু কিনেছেন। দাম একটু বেশি মনে হলেও কেমিক্যালমুক্ত স্বাস্থ্যসম্মত গরু কিনতে পেরে তিনি খুশি।

জগদল এলাকা সাইফুল ইসলাম জানান, তার পালা মাঝারি সাইজের দুটি টাইট গরু কাটাখালী হাটে এনে প্রথম দিনেই বিক্রি করতে পেরেছেন। তবে গরুর খাবারের দাম বেশি হওয়ায় তিনি বেশি লাভ করতে পারেননি বলে জানান।

সাইদুর রহমান নামে এক বেপারি বলেন, বাইরের জেলাগুলোতে মাগুরার ক্যামিকেলমুক্ত মাঝারি সাইজের গরু ব্যাপক চাহিদা। তিনি কাটাখালী রামনগর হাট থেকে এ ধরনের ২০টি গরু কিনেছেন। যা সিলেট নিয়ে বিক্রি করে লাভবান হবেন বলে জানান।

তবে হাটগুলোতে বড় সাইজের গরু নিয়ে আসা খামারিরা পড়েছেন বিপাকে। বেশি দামের অজুহাতে ক্রেতারা এ ধরনের বড় গরুর কাছে ভিড়ছেন না। খামারিরা বলছেন, ভারত থেকে গরু আসায় তারা বিপাকে পড়েছেন। কারণ খাবারের উচ্চ মূল্যের কারণে গরু প্রস্তুত করতে তাদের যে খরচ হয়েছে সে দামে গরু বিক্রি হচ্ছে না।

শৈলকুপা থেকে আসা খামারি আবুল হোসেন জানান, তিনি হাটে বড় সাইজের চারটি গরু এনেছেন। প্রতিটি গরু দুই লাখের উপরে দাম চেয়েছেন। ক্রেতারা একটির দাম ৯৬ হাজার ও অপরটির দাম বলেছে এক লাখ ১০ হাজার টাকা। খারারসহ উপকরণের উচচ মূল্যের কারণে দেড় লাখের নিচে বেচলে তার খরচের টাকা উঠবে না।

মহম্মদপুর সদরের কলেজ অধ্যাপক বিপ্লব রেজা বিকো বলেন, বেথুলিয়া হাট থেকে তিনি সাত হাজার টাকায় একটি ভেড়া কিনেছেন কোরবানি দেওয়ার জন্য।’

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘দেশি জাতের কালো রঙের ছাগল তার পছন্দ। ১২ হাজার টাকায় মাঝারি আকৃতির ছাগল কিনেছেন তিনি।’

আবুল কালাম নামে অপর খামারি জানান, কোরবানি সামনে রেখে বড় সাইজের ২০টি গরু প্রস্তুত করেছেন। ছোট গরুর চাহিদা থাকলেও কোনো হাটেই ক্রেতারা তার বড় গরুর উপযুক্ত দাম বলছে না। সব ক্রেতা-বিক্রেতাই মাঝারি সাইজের টাইট গরুর দিকে ছুটছেন। যে কারণে তাকে ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়তে হয়েছে।

তিনি অভিযোগ করেন, ভারতীয় গরু আমদানির ফলে দেশি খামরিরা ব্যাপকভাবে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে।

রামনগর, কাটাখালী হাট ইজারাদার আয়ুব হোসেন জানান, ৪০ থেকে ৬০-৭০ হাজার টাকা দামে মাঝারি সাইজের দেশিী গরু বেশি বিক্রি হচ্ছে। বড় সাইজের গরুর চাহিদা কম। তবে দু-একদিনের মধ্যে সব ধরনের গরুর চাহিদা বাড়বে। বিক্রিও আরো জমজমাট হবে বলে তিনি আশা করছেন।

আপনার মতামত জানানঃ