ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  বিনোদন   »   মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিলেন কঙ্গনা

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিলেন কঙ্গনা

সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০ - ৮:৫৪ অপরাহ্ণ
মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিলেন কঙ্গনা

মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিলেন কঙ্গনা। বিএমসি থেকে কঙ্গনার অফিস ভেঙে চুরমার করে দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করলেন এই অভিনেত্রী। মহারাষ্ট্র সরকারের সঙ্গে গত কয়েকদিন ধরেই প্রকাশ্যে বাকযুদ্ধে জড়িয়েছেন কঙ্গনা রানাউয়াত।

এর মাঝেই বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) বিএমসির পক্ষ থেকে ভেঙে চুরমার করে দেওয়া হয়েছে কঙ্গনার অফিস। কঙ্গনার দাবি বিএমসির এই কাজ বেআইনি কারণ তার অফিসে কোন অবৈধ কাঠামো ছিল না।

মুম্বাইতে পা রাখার একঘণ্টার মধ্যেই টুইটারে বিস্ফোরক ভিডিও বার্তা পোস্ট করলেন কঙ্গনা। ‘গণতন্ত্রের মৃত্যু’ এই কথা উল্লেখ করে নিজের ভাঙা অফিসের একাধিক ভিডিও পোস্ট করেন অভিনেত্রী। যেখানে দেখা যায় পালি হিলসে অবস্থিত কঙ্গনার প্রযোজনা সংস্থা মণিকর্ণিকা ফিল্মসের অফিস কীভাবে ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

এরপর, ক্ষুদ্ধ কঙ্গনা প্রকাশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন উদ্ধব ঠাকরের উদ্দেশে। তিনি টুইটারে পোস্ট করা ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘উদ্ধব ঠাকরে তোর কী মনে হয়.. তুই ফিল্ম মাফিয়ার সঙ্গে হাত মিলিয়ে আমার ঘর ভেঙে আমার থেকে প্রতিশোধ নিলি? সময়ের চাকা ঘুরবে। তুই আজ আমার ঘর ভেঙেছিস, কাল তোর অহংকার ভাঙবে। তবে একটা কথা বলে রাখি তুই আমাকে একটা উপহার করলি।’

অভিনেত্রী আরও বলেন, ‘আমি আজ উপলব্ধি করতে পারলাম যে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের সঙ্গে কী ঘটেছিল। আমি আজ আমার দেশবাসীকে কথা দিচ্ছি আমি শুধু অযোধ্যা নয় কাশ্মীর নিয়েও ছবি তৈরি করব। এবং দেশবাসীকে সচেতন করব। উদ্ধব ঠাকরে, এটা ভালো হল যে এই নৃশংস কাজ, এই সন্ত্রাস আমার সঙ্গে ঘটল। এর নিশ্চয় কোনও কারণ আছে। জয় হিন্দ, জয় মহারাষ্ট্র।’

তার অফিসে নাকি বেশ কিছু কাঠামোগত নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে। গতকাল একটি নোটিশ জারি করেছিল বৃহন্মুম্বই। চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে জবাব চাওয়া হয়েছিল কঙ্গনার কাছে। সেই নোটিশের জবাবও পাঠিয়েছিলেন কঙ্গনা। কিন্তু অভিনেত্রীর জবাবে সন্তুষ্ট নয় বিএমসি।

তাই বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) কঙ্গনার মুম্বাই ফেরার কয়েক ঘণ্টা আগেই কঙ্গনার অফিসে বিএমসির কর্মকর্তারা হাজির হয়। সেখানে পৌঁছায় মুম্বাই পুলিশের বিশাল বাহিনী। শুরু হয় অফিস ভাঙার কাজ। দুপুর ১ টা পর্যন্ত সেই কাজ শেষ করে বেরিয়ে যায় বিএমসির দল।

কঙ্গনার আইনজীবীর অভিযোগ, বিএমসি নোটিশের জবাবে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করার পরই মুম্বাই হাইকোর্টে পিটিশন দাখিল করেন কঙ্গনা। হাইকোর্ট বেলা ১২.৩০টায় এই মামলার শুনানির সময় দিয়েছিল। সেই তথ্যও বিএমসিকে দেওয়া হয়েছিল। তবুও কোন কথায় কান না দিয়েই কঙ্গনার অফিস ভেঙে দেওয়া হল।

হিমাচলপ্রদেশের বাড়ি থেকে মুম্বাইয়ে রওনা হওয়ার আগে অফিস ভাঙার জন্য প্রতিবাদ জানিয়ে টুইটারে সরব হন কঙ্গনা। তিনি লেখেন, মণিকর্ণিকা ফিল্মজের অধীনে প্রথমে অযোধ্যা নামের একটি ছবির ঘোষণা হয়। আমার জন্য সেটি শুধুমাত্র ইট-পাথরের কোনো ইমারত নয়, বরং রামমন্দিরের সমান। আজ সেখানে বাবর এসেছে। ফের ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। ফের ভাঙা হবে রামমন্দির। কিন্তু একটা কথা মনে রেখো বাবর, মন্দির ফের গড়ে উঠবেই। জয় শ্রী রাম, জয় শ্রী রাম।

প্রসঙ্গত, করোনার কারণে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মুম্বাইতে নির্মাণ সংক্রান্ত যে কোন কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় বম্বে হাইকোর্ট। আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বিএমসি কীভাবে ওই কাজ করল, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন কঙ্গনা।

আপনার মতামত জানানঃ