ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   মণিরামপুর উপজেলার চেয়ারম্যানকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

মণিরামপুর উপজেলার চেয়ারম্যানকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

জুলাই ২৭, ২০২০ - ৫:৪৬ অপরাহ্ণ
যশোরের মণিরামপুর

যশোরের মণিরামপুর উপজেলার চেয়ারম্যান নাজমা খানমের শ্লীলতাহানির অভিযোগে ৫ জনের নামে আদালতে মামলা হয়েছে। মামলায় আসামি করা হয়েছে তার পরিষদের দুই ভাইস চেয়ারম্যান, দুই ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারীর বিরুদ্ধে।

সোমবার সকালে (২৭ জুলাই) মণিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান বাদী হয়ে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলামের আদালতে এ মামলা করেন। বিচারক মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন- পিবিআই যশোরকে নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযুক্তরা হলো- মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু, জলি আক্তার, ঝাপা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামছুল হক মন্টু, ভোজগাতি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক ও স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী কবীর খান।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, আসামি উত্তম চক্রবর্তী স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীর আপন ভাগ্নে। করোনাকালীন সরকারের ত্রাণের ৫৫৫ বস্তা চাল চুরির সাথে তার সম্পৃক্ততা রয়েছে। যা ওই ঘটনায় আটক ব্যক্তিরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছেন। ওই অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন মামলার বাদী উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানম। যা নিয়ে আসামিদের ক্ষোভ ছিল।

গত ২২ জুলাই দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা ছিল। ওই সভায় স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীসহ উপজেলার জনপ্রতিনিধিগণ সকলে উপস্থিত ছিলেন। নির্ধারিত আলোচনা চলাকালে আকস্মিকভাবে আসামি ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল হক মন্টু হট্টগোল এবং বাদীকে গালিগালাজ শুরু করে। একপর্যায়ে তিনি সভা ছেড়ে বাইরে চলে আসলে আসামিরা তার পিছু নিয়ে লোকজনের সামনে কাপড় ধরে টানা হেঁচড়া করে শ্লীলতাহানি ঘটায়। এবং তার কাছে থাকা কাগজপত্র ও একটি মোবাইল সেট ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এসময় তার সহকারী নয়নকেও মারপিট করা হয়। পরে তিনি গাড়ি নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

মামলা দায়েরকারী আইনজীবী আব্দুল লতিফ জানান, ন্যায় বিচার চেয়ে তারা আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন। বিচারক তাদের অভিযোগটি আমলে নিয়েছেন এবং পিবিআইকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

আপনার মতামত জানানঃ