ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   ভোলা চরফ্যাশনে চিকিৎসার আগেই দালালরা হাজির

ভোলা চরফ্যাশনে চিকিৎসার আগেই দালালরা হাজির

সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০ - ১১:৪৮ অপরাহ্ণ

মোঃ আলাউদ্দিন ঘরামীঃ  ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারের কাছে রোগী আসার আগেই হাসপাতাল সংলগ্ন ঔষধের দোকানের দালালরা হাজির! তাদের খপ্পরে পড়ে অতিরিক্ত মূল্যে ঔষধ কিনে সর্বশান্ত রোগী৷ এমন প্রতারণার শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত চরফ্যাশন হাসপাতালে আসা অসংখ্য ভূক্তভোগী মানুষ

মংগলবার দিনব্যাপী অনুসন্ধানকালে দেখা গেছে এি চিত্র। উপজেলার পত্যন্ত এলাকা অঞ্চল থেকে আসারোগীরা যানবাহনযোগে হাসপাতালে আসা মাত্র ডায়াগনস্টিক ও ঔষদের দোকানের দালালরা এসে হাজির৷ তারা যানবাহনের গতিরোধ করে সামনে দাড়ািয়ে রোগীকে ডাক্তার কিংবা বেসরকারি হাসপাতাল/ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। এসময় লোকলজ্জার ভয়ে রোগী ও তার সাথের স্বজনরা কিছুই বলতে পারেনা। এরপর দালালরা রোগীর সাথে গিয় দৌড়ঝাপ ডাক্তার দেখানো, এমনকি ভর্তি সিট পাইয়ে দেয়া,নির্ধারিত ঔষধের দোকান থেকে ঔষধ কেনা রোগীর খাবার দাবার নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরে। স্বাভাবিক এমন আচরণে গ্রাম থেকে আসা রোগীদের সহানুভূতি জন্মায়। হাসপাতাল থেকে ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র নিয়ে কম মূল্যে ঔষধ কিনে দিতে দেয়ার আশ্বাসে বাকিতে ঔষধ কিনে আনে।টাকা পরিশোধের সময় দালালের রুদ্রমূর্তি।একের শুরু হয় একের পর ভাউচার। গলাকাটা মূল্যে ঔষধের মুল্য। রোগী সাধ্যমত টাকা দিতে না পরলে খড়ক সঙ্গীয় মান্তানদের আনাগোনা।অনেক ক্ষেত্রে রোগীর সাথে আসা স্বজনরা ভর্তি হতে হয় হাসপাতালে।

অনুসন্ধানকালে জানা যায় দেখা যায়, সরকারি হাসপাতাল থেকে যে সব ঔষধ বা প্রাথমিক চিকিৎসা সামগ্রী সুই সুতা, হেক্সিসল, সিরিজ, ঔষধ স্যালাইন, ব্যান্ডেজ ফ্রী দেয়ার কথা থাকলেও রোগীর ব্যবস্থাপত্র দেখিয়ে এসব আনতে বলা হয়৷ জরুরি বিভাগে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মচারিরা দালাদের সাথে যোগসাজসের অভিযোগ রয়েছে।

ভুক্তভোগী পৌর১নং ওয়ার্ডের মোঃ ইউসুফ আলীবলেন, আমার স্ত্রী অসুস্থ হওয়ার পর চরফ্যাসন হাসপাতলে ভর্তি করি৷ প্রথম থেকেই এক দালালের প্ররোচনায় হাসপাতালের পূর্ব পাশের এক দোকান থেকে ঔষধ ক্রয় করি৷ তিন দিন থাকার পর সকল হিসাব-নিকাশ করে দোকানের টাকা পরিশোধ করি৷ প্রয়োজনে একই ঔষধ চরফ্যাসন সদর রোড একটি মেডিকেল থেকে ক্রয় করলে দেখা যায়, প্রতি পিস ৮ টাকার ঔষধ ১৮ টাকা, ১৪টাকার ঔষধ ৩৫ টাকা করে মুল্য রেখেছে। হাসপাতাল সংলগ্ন অসংখ্য দালালের যোগসূত্রে ঔষধের দোকান গড়ে উঠেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চরফ্যাসন সরকারি হাসপাতালের একজন ডাক্তার বলেন, এ দালাল চক্রকে সরকারি হাসপাতাল ও প্রাইভেট হাসপাতালে কিছু কর্মচারীরা তাদের নেপথ্যে সহযোগিতা করছে। হাসপাতালের অনেক কর্মচারিরা স্হানীয় হওয়ায় তাদের বন্ধ বান্ধব ক্যাডারদের পদচারণা প্রতিনিয়ত। ১ মাস আগে দালাল চক্রের দুই সদস্য হাসপাতালে গ্রাম থেকে আসা ১২ বছরের এক কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টায় থানায় মামলা হয়।

চরফ্যাসন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দ্বায়িত্বে আছেন ইউএইচও (স্বাস্হ্য কর্মকর্তা)ডাঃশোভন বসাক। তিনি একজন ভাল ডাক্তার হিসেবে এলাকায় তার সুখ্যাতি অনেক।এর আগে তিনি দালাল ও হাসপাতালের কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নেয়ায় তাকে অন্যত্র বদলী হতে হয়েছে।এলাকার মানুষের চাহিদার প্রেক্ষিতে স্হানীয় এমপি মহোদয়ের সাড়ায় তিনি দ্বিতীয়বারের মত আবার এই হাসপাতালে যোগদান করেছেন। তিনি হাসপাতাল সরকারিবাবে দায়িত্বপালনকালে কোন তার ব্যক্তিগতরোগী দেখেননা। এ ছাড়া চুক্তিতে কোন প্রাইভেট হাসপাতাল বা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বসেননা।বিকাল থেকে তিনি বাসায় ডক্টরস কোয়ার্টারে তিনি রোগী দেখেন। ডাঃ শোভন বসাক বলেন,হাসপাতালকে দালালমুক্ত করতে আমি সাধ্যমত আমার চেস্টা অব্যাহত রেখেছি। দালারচক্র কখনোই হাসপাতাল অভ্যন্তরে দালালী করেনা, তারা হাসপাতালের বহির্বিভাগে থাকে।পর্যাপ্ত হাসপাতালে জনবল সংকট রয়েছে। পরিকল্পনা আছে হাসপাতালে গেটপাস, ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো। চরফ্যাসন ডায়াগনস্টিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আবুল কাশেম মেলিটারী বলেন,কোন প্রাইভেট হাসপাতাল কিংবা ডায়াগনস্টিক সেন্টার/ক্লিনিকে দালালমুক্তের ঘোষণা। স্হানীয় এমপি আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব মহোদয়ের নির্দেশ,চরফ্যাসনে চিকিৎসা সেবা প্রতিস্ঠানে দালালমুক্ত থাকবেনা। রোগিদের সাথে আমাদের কোন প্রতিস্ঠানের মালিক- কর্মচারী দালালচক্রের সাথে সম্পৃত্ততার অভিযোগ পেলে আমরা প্রাতিস্ঠানিকভাবে ব্যবস্হা নিবো।

আপনার মতামত জানানঃ