ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   ভোলার বৃহত্তম মায়া ব্রীজ নির্মাণের ১ বছরের মাথায় ধ্বস, যানবাহন চলাচলে বিঘ্নিত, ক্ষোভে এলাকাবাসী

ভোলার বৃহত্তম মায়া ব্রীজ নির্মাণের ১ বছরের মাথায় ধ্বস, যানবাহন চলাচলে বিঘ্নিত, ক্ষোভে এলাকাবাসী

September 23, 2016 - 8:00 AM

এম এ হান্নান বরিশাল
ভোলা জেলার বৃহত্তম সাড়ে ৩৩ কোটি টাকা ব্যয় নিমির্ত চরফ্যাশনের মায়ারদোন ব্রীজ নির্মাণের ১ বছরের মাথায় ব্রীজে উঠা নামার প্রধান সংযোগ সড়ক সহ কয়েকটি অংশ ধ্বসে পড়েছে। এতে ব্রীজের উপর দিয়ে প্রায় ৪ মাস ধরে ভারি যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। স্থানীয়দের উদ্যোগে ব্রীজের উপর উঠতে সড়কের কিছু অংশ কাঠ দিয়ে বিকল্প পাটাতন বসিয়ে কোনরকম রিক্সা ও মোটরসাইকেল ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। এঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভ ও ব্রীজের স্থায়ীত্বমান নিয়ে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। সরেজমিনে জানা যায়, জেলার চরফ্যাশন উপজেলার বিচ্ছিন্ন চরকলমী ও নজরুলনগর ইউনিয়নকে জেলার মূল ভূ-খন্ডের পাশাপাশি সারাদেশের সড়ক যোগাযোগের সাথে সংযুক্ত করতে মায়ারদোন নদীর উপর নির্মিত জেলার বৃহত্তম সড়ক সেতু ‘মায়া নদীর ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে।bhola-maya-beriz-pic-3 এ ব্রীজটির দৈর্ঘ্য ৩৭৮ দশমিক ৪০ মিটার ও উচ্চতা ১২ মিটার । এটি জেলার সবচেয়ে উঁচু ও দীর্ঘ সেতু। ব্রীজের সংযোগ সড়ক সহ আরো ২টি ছোট ব্রীজসহ মায়া নদীর ব্রীজের মোট নির্মাণ ব্যয় হয়েছে প্রায় ৩৩ কোটি ৩৫ লক্ষ টাক। ব্রীজটি ২০১০-২০১১ অর্থ বছরে শুরু করে গত ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়। ব্রীজটি নির্মাণ করেছেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের তত্ত্বাবধানে নবারুণ ট্রেডার্স নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। মায়ানদীর উপর নির্মিত জেলার দীর্ঘতম সেতু মায়ানদীর ব্রীজ’টি একই বছরের (২০১৫) ৮ মে শুক্রবার সকাল ১০ টায় বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ও বন ও পরিবেশ উপ-মন্ত্রী আব্দুলাহ আল ইসলাম জ্যাকব আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে জনসাধারণের জন্য খুলে দেয়া হয়।bhola-mya-birej-pic3 উদ্বোধনের ২ মাসের মাথায় প্রথমে এ বৃহত্তম ব্রীজে উঠা নামার সংযোগ সিড়িটি ধ্বসে পড়েছে। একই বছর জোয়ারের পানিনের চাপে সড়কের কিছু অংশ ভেঙ্গে যায়। চলতি বছরের (২০১৬) বর্ষা মৌসমের শুরুতে ব্রীজে উঠা নামার প্রধান সংযোগ সড়ক সহ কয়েকটি অংশের ব্লক ধ্বসে পড়ে। এতে করে ব্রীজের উপর দিয়ে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে স্থানীয়দের উদ্যোগে ব্রীজের উপর উঠতে সড়কের কিছু অংশ কাঠ দিয়ে বিকল্প পাটাতন বসিয়ে কোন রকম রিক্সা ও মোটরসাইকেল ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। স্থানীয়দের সাথে আলাপ কালে চরকলমী ইউনিয়নের, রফিজল, আবুল কাসেম, সুমন ও খোরশেদ আলম ভোলার সংবাদ ডট কমকে জানান, এখানে প্রায় ৩৪ কোটি টাকা ব্যয় করে এ ব্রীজটি নির্মাণ করা হয়েছে। ব্রীজ নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম হওয়ায় ২ মাসের মাথায় ব্রীজে উঠা নামার সিড়িটি ধ্বসে পড়েছে। বর্তমান চলতি বর্ষা মৌসমের শুরুতে ব্রীজে উঠা নামার প্রদান সংযোগ সড়ক সহ কয়েকটি স্থানের ব্লক ধ্বসে পড়েছে। এতে করে ব্রীজের উপর দিয়ে সকল ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। নজরুল নগর ও নুরাবাদ ইউনিয়নের বিল্লাল ও ফারুক জানান, আমাদের এলাকায় আগে কোন বিনোদন কেন্দ্র ছিলনা। এখন ব্রীজটি নির্মাণ হওয়ায় জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে মানুষ ঘুরতে আসা শুরু করেছে। ব্রীজ হিসেবে আরো বড় প্রস্থ্য সড়ক নিমার্ণ করার দারকার ছিল। ব্রীজটি জমজমাট হওয়ার আগে ধ্বসে পরে কয়েক মাস ধরে তার উপর দিয়ে ভারি যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন মাথা ব্যথা নেই বলে অভিযোগ করেন তারা। ভোলা সদর থেকে ঘুরতে আসা রিয়াজ, সোহেল জানান, এখানে দুটি ইউনিয়নের মানুষের যোগাযোগের জন্য এতো কোটি টাকা ব্যয় করে যে ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে তা তুলনা মূল্যক অনেক বেশি। এইরকম আরো দুটি ব্রীজ ভোলা টু লাহারহাট রুটে নির্মাণ করা হলে ভোলা সদর থেকে বরিশাল গাড়িতে বসে অনায়াশে জেলার মানুষ যেতে পারতো।bhola-maya-beriz-pic-4-2 যে লক্ষ নিয়ে এই ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে তা বর্তমানে এখানর মানুষের কাজে আসছে না বলেও জানান তারা। সচেতন মহল মনে করছে, এখানে নদী হিসেবে তার চেয়ে অনেক বড় ও ব্যয় বহুল ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে। ফলে একসময় মায়া নদীটি জেলার ম্যাপ থেকে হারিয়ে যাওয়ার সম্ভবনাও রয়েছে বলে মনে করছেন। তাছাড়া ব্রীজের স্থায়ীত্বমান নিয়েও হতশা প্রকাশ করেছেন তারা। এব্যাপারে চরফ্যাশন উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী মোঃসোলায়মান বলেন, ব্রীজ নির্মাণের বিষয়ে এলাকাবাসী যে অনিমের অভিযোগ তুলেছেন তা সত্য নয়। সব ব্রীজের ড্রেনেজ ব্যবস্থা রয়েছে, আমাদের এই ব্রীজের ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকা এফরোজের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়ে ধ্বসের ঘটনা ঘটে।bhola-maya-beriz-pic2 তখন ড্রেন নির্মাণ করা হয়নি কেন ? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, টাকা কম ছিল। তাই ড্রেনেজ ব্যবস্থা করা সম্ভব হয়নি। তাছাড়া ব্রীজ নির্মাণের সময় আমাদের কোন ডিজাইনার ছিল না? তার কারণে এফরোজ ছুটে যাচ্ছে। ডিজাইনার ছাড়া কি ভাবে ব্রীজ নির্মাণ করা হয় ? এমন প্রশ্নর জবাবে তিনি বলেন, আমি বর্তমানে ঢাকায় ডাক্তারের কাছে অবস্থান করছি। আগ (মঙ্গলবার) হজ্বে যাচ্ছি বলে এড়িয়ে যান।bhola-maya-beriz-pic-4-2 তিনি আরো বলেন, ব্রীজটির ব্যাপারে আমারা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জানালে প্রজেক্ট ডাইরেক্টর সরজমিনে এসেছেন। আমরা দক্ষ ডিজাইনার দিয়ে ডিজাইন করে পাঠিয়ে দিয়েছি। আসা করে চলতি বছরের ডিসেম্বরের আগেই টেন্টার হলে ব্রীজের সংস্কার কাজ করা হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। জেলার সর্ব বৃহত্তম এ মায়া ব্রীজটি নির্মাণের মধ্যদিয়ে ২টি ইউনিয়নের মানুষের যোগাযোগের সেতু বন্ধন হলেও বর্তমানে ব্রীজের উঠা নামার সংযোগ সড়ক ধ্বসে পড়ায় ব্রীজের স্থায়ীত্ব মান নিয়ে ও নানন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে এলাকাবাসীর মনে। যে লক্ষ্য নিয়ে ব্রীজটি নির্মাণ করা হয়েছে তা কতদিনে মূল ভূ-খন্ডের পাশাপাশি সারাদেশের সড়ক যোগাযোগের সাথে সংযুক্ত হবে দেখার উপেক্ষায়

আপনার মতামত জানানঃ