ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   ভুলে ভরা বক্তব্যে হতবাক গণশিক্ষামন্ত্রী

ভুলে ভরা বক্তব্যে হতবাক গণশিক্ষামন্ত্রী

September 7, 2016 - 3:51 PM

সচিবালয় প্রতিবেদক : আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপনের কর্মসূচি নিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোম্তাফিজুর রহমান ফিজারের লিখিত বক্তব্যে ভুলের ছড়াছড়ি। ভুলে ভরা এই বক্তব্য পড়তে গিয়ে মন্ত্রী নিজেই হতবাক। এক পর্যায়ে তিনি বলে উঠেন, ‘কে লিখেছেন এটি! ছি ছি ছি!’

বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষ্যে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। তার ৩১৩ শব্দের লিখিত বক্তব্য ছিল ভুলে ভরা। সাংবাদিকদের কাছে ভুলে ভরা এবং সাক্ষরতার হার নিয়ে কোনো তথ্য-উপাত্ত ছাড়াই মন্ত্রীকে এই লিখিত বক্তব্যের কপি সরবরাহ করা হয়।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে গণশিক্ষামন্ত্রী তার লিখিত বক্তব্য শুরু করেন, ‘আসসালামুআলাইকুম! ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।’ এ সময় একসঙ্গে কয়েকজন সাংবাদিক বলে ওঠেন, ভুল হচ্ছে। সঙ্গে সঙ্গে থেমে যান মন্ত্রী। কাগজে ফের চোখ বুলিয়ে মাথা খানিকটা নিচু করে বলেন, ‘কে লিখেছেন এটি! ছি ছি ছি!’

মিনিট দুয়েক চুপচাপ বসে থাকেন মন্ত্রী। মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব নজরুল ইসলাম চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে থাকেন বেশ কিছুক্ষণ। মন্ত্রীর একান্ত সচিব শেখ আতাহার হোসেনকে দেখা যায় একটি ফাইল হাতে নিয়ে মন্ত্রীর ঘাড়ের ডানপাশে দাঁড়িয়ে থাকতে।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা শুরুতে আগে সরবরাহ করা বক্তব্যের অনুলিপি ফেরত নিয়ে নেন।
‘প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ, স্যতরি,’ নতুন করে শুরু করেন গণশিক্ষামন্ত্রী।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এ পর্যন্ত (২০১৬ সাল) অনেক এলাকাই শতভাগ সাক্ষরতার আওতায় এসেছে। এখন সাক্ষরতার হার ৭১ শতাংশ। তবে স্বাক্ষরতার ‘লেটেস্ট’ কোনো ‘সার্ভে’ নেই।’ এখন যারা জন্ম নিচ্ছে তারা নিরক্ষর থাকছে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ভুলে ভরা লিখিত বক্তব্যের জন্য সংবাদ সম্মেলন শেষে মন্ত্রী-সচিবের সামনেই মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. নজরুল ইসলাম খান কয়েক কর্মকর্তাকে শাসান।তিনি বলেন, ‘কেন এই বক্তব্যের কপি আগে মন্ত্রীকে দেখাননি?’

এক ঘণ্টা ৪৭ মিনিট পর সংবাদ সম্মেলন শুরু হলেও মন্ত্রীর বক্তব্য শুরুর আট মিনিট পর যোগ দেন এই মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে আসা মোহাম্মদ আসিফ-উজ-জামান।

আপনার মতামত জানানঃ