ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   ভারত থেকে জ্বালানি তেল আমদানি করার কথা ভাবছে সরকার

ভারত থেকে জ্বালানি তেল আমদানি করার কথা ভাবছে সরকার

October 9, 2016 - 10:55 AM

সচিবালয় প্রতিবেদক : দেশের বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সংকট কাটাতে উত্তরাঞ্চল দিয়ে ভারত থেকে জ্বালানি তেল আমদানি করার কথা ভাবছে সরকার।

এ লক্ষ্যে ভারতের সঙ্গে মৌখিক আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ (বিপু)।

তিনি রোববার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এই কথা জানান।

প্রতিমন্ত্রী তার সাম্প্রতিক ভারত সফরকে ফলপ্রসু দাবি করে বলেন, ‘উত্তরাঞ্চল দিয়ে ভারত থেকে পাইপ লাইনের মাধ্যমে জ্বালানি তেল আমদানি করা হবে। এ জন্য ভারত সরকারই সেই পাইপ লাইন তৈরি করে দেবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ভারতের নুমালিগড়ে একটি তেল শোধনাগার রয়েছে। সেখান থেকে তেল শোধন করে বাংলাদেশের উত্তরবঙ্গ ও খুলনায় সরবরাহ করা হবে। ভারত থেকে এই তেল কিনে আনা হবে। এই পাইপলাইন নির্মাণের জন্য দুই দেশের মধ্যে একটি ঋণচুক্তি হয়েছে। এই চুক্তির মধ্যে থেকেই পাইপলাইনের খরচ বহন করা হতে পারে অথবা তেল আমদানির প্রিমিয়াম থেকে খরচ মেটানো হতে পারে। তবে আপাতত খরচ ভারতই দেবে।’ এই পাইপলাইনের মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূল্যে তেল কেনা সম্ভব হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘বর্তমানে চট্টগ্রাম থেকে রংপুর ও দেশের উত্তরাঞ্চলে তেল পরিবহনে ব্যারেল প্রতি আট ডলার খরচ পড়ে। ভারত থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে তেল আনতে পারলে এই আট ডলার বেঁচে যাবে।

এ ছাড়া ভুটান থেকে বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়টিও চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। ভারতের সঞ্চালন লাইন ব্যবহার করে এই বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানান তিনি।

ভারতের পূর্বাঞ্চল থেকে বাংলাদেশের জাতীয় সঞ্চালন লাইন ব্যবহার করে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পরিবহন করা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

এই বিদ্যুৎ করিডর ব্যবহার করতে দিলে বাংলাদেশের লাভ কী- জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ ভারতের কাছে এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ চেয়েছে। এ বিষয়টি নিয়ে পরবর্তী সময়ে আলোচনা হবে।

ভারতে বিদ্যুৎ সরবরাহ ও বিতরণের কাজ বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে উল্লেখ করে নসরুল হামিদ বলেন, ‘বাংলাদেশেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসব কাজ বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে বেসরকারি খাতে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, একইভাবে বিতরণের কাজটিও ধীরে ধীরে কিছু কিছু ক্ষেত্রে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হবে।

আপনার মতামত জানানঃ