ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রধান সংবাদ   »   বিশ্বে প্রতি সাত সেকেন্ডে ১৫ বছরের কম বয়সের একটি কন্যাশিশুর বিয়ে হচ্ছে

বিশ্বে প্রতি সাত সেকেন্ডে ১৫ বছরের কম বয়সের একটি কন্যাশিশুর বিয়ে হচ্ছে

October 11, 2016 - 2:06 PM

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বে প্রতি সাত সেকেন্ডে ১৫ বছরের কম বয়সের একটি কন্যাশিশুর বিয়ে হচ্ছে।

মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস উপলক্ষে প্রকাশিত সেভ দ্য চিলড্রেনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবছর ১১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক কন্যাশিশু দিবস পালন করা হলেও বাংলাদেশে প্রতিবছর ৩০ সেপ্টেম্বর এ দিবস পালন করা হয়।

মেয়েদের বেড়ে ওঠার, বিকশিত হওয়ার সুযোগ বিচার করে সেভ দ্য চিলড্রেন বিশ্বের ১৪৪ দেশের যে সারণী প্রকাশ করেছে, তাতে বাংলাদেশের অবস্থান ১১১ নম্বরে।

সেভ দ্য চিলড্রেনের তথ্য অনুযায়ী, ১০ বছরের কন্যাশিশুদের অনেক বেশি বয়সি পুরুষদের সঙ্গে জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়। আফগানিস্তান, ইয়েমেন, ভারত, সোমালিয়াসহ বিভিন্ন দেশে এ ধরনের বিয়ে হচ্ছে। এর মধ্যে ভারতে সবচেয়ে বেশি বাল্যবিবাহ হচ্ছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, অল্প বয়সে বিয়ের মধ্য দিয়েই মেয়েদের জীবনের নানান সমস্যার সূত্রপাত হয়। এই সংকটের চক্র মেয়েদের জীবনজুড়ে চলতে থাকে। প্রতিবেদনে কন্যাশিশুদের বিয়ের ক্ষেত্রে মূল অনুঘটক হিসেবে দায়ী করা হয়েছে- সংঘাত, দারিদ্র্য ও মানবিক বিপর্যয়কে ।

সেভ দ্য চিলড্রেন ইন্টারন্যাশনালের প্রধান নির্বাহী হেলি থর্নিং-শিমিট বলেন, বাল্যবিবাহের মাধ্যমে মেয়েদের এক ধরনের ক্ষতির চক্র শুরু হয়। এটা মেয়েদের শিক্ষা, উন্নয়ন ও শিশু হিসেবে বড় হওয়ার মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করে। যে মেয়েদের শিশু বয়সে বিয়ে হয়, তারা স্কুলে যেতে পারে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তারা পারিবারিক সহিংসতা, যৌন হয়রানি ও ধর্ষণের শিকার হয়। তারা কম বয়সে গর্ভধারণ করে এবং যৌনবিষয়ক সংক্রমণ, এমনকি এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়।

সেভ দ্য চিলড্রেনের প্রকাশিত ‘গার্লস অপরচুনিটি ইনডেক্স’ অনুযায়ী, কন্যাশিশুদের জন্য বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে কঠিন দেশ নাইজার। আর মেয়েদের জন্য সবচেয়ে বেশি সুযোগ তৈরি করতে পেরেছে সুইডেন।%e0%a6%ac%e0%a6%bf%e0%a6%b6%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a7%87-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a4%e0%a6%bf-%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%a4-%e0%a6%b8%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a1

index

সেভ দ্য চিলড্রেন জানিয়েছে, জাতিসংঘ ও বিশ্বব্যাংকের সংগ্রহ করা গত এক বছরের তথ্য উপাত্ত ব্যবহার করে তারা এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে। কোন দেশের কী ও কেমন অবস্থান, তা বোঝাতে পাঁচটি সূচক ব্যবহার করা হয়েছে।

এই পাঁচ সূচক হলো- বাল্যবিয়ে, কিশোরী বয়সে মাতৃত্ব, প্রসূতি মৃত্যুর হার, পার্লামেন্টে নারীর প্রতিনিধিত্ব এবং নিম্ন মা‌ধ্যমিক থেকে ছাত্রীদের ঝরে পড়ার হার।

গার্লস অপরচুনিটি ইনডেক্স অনুযায়ী শীর্ষ দেশগুলো হচ্ছে- ১. সুইডেন, ২. ফিনল্যান্ড, ৩. নরওয়ে, ৪. নেদারল্যান্ডস, ৫. বেলজিয়াম, ৬. ডেনমার্ক, ৭. স্লোভেনিয়া, ৮. পর্তুগাল, ৯. সুইজারল্যান্ড, ১০. ইটালি। সূচকে ব্রিটেনের অবস্থান ১৫ ও যুক্তরাষ্ট্র ৩২ নম্বরে।

আর ইনডেক্স অনুযায়ী নিচের দিকের দেশগুলো হচ্ছে- ১৩৫. আইভরি কোস্ট, ১৩৬. নাইজেরিয়া, ১৩৭. গিনি, ১৩৮. মালাওয়ি, ১৩৯. সিয়েরা লিয়ন, ১৪০. সোমালিয়া, ১৪১. মালি, ১৪২. সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক, ১৪৩. শাদ, ১৪৪. নাইজার।

সূচকে সবচেয়ে ভালো অবস্থায় থাকা দেশগুলোর প্রায় সবগুলাই ইউরোপীয় রাষ্ট্র। আর নিচের দিকে থাকা দেশগুলো সাব সাহারান আফ্রিকার। সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে মেয়েশিশুদের পরিস্থিতি সবচেয়ে ভালো মালদ্বীপে। সূচকে এ দেশটির অবস্থান ৫০ তম।

এ ছাড়া শ্রীলঙ্কা ৬০, ভুটান ৮০, নেপাল ৮৫, পাকিস্তান ৮৮, ভারত ৯০ এবং আফগানিস্তান তালিকার ১২১তম অবস্থানে আছে।

তথ্যসূত্র : বিবিসি, নিউজউইক

আপনার মতামত জানানঃ