ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   বিভিন্ন রকমের সালাদ

বিভিন্ন রকমের সালাদ

অক্টোবর ২৩, ২০২০ - ৯:১৯ অপরাহ্ণ

পুষ্টিগুণে ভরপুর এবং সহজপাচ্য খাবারের মধ্যে সালাদ অতুলনীয়। সালাদের পুষ্টিমূল্য বৃদ্ধি করতে ছোট ছোট মাংসের টুকরা, চিংড়ি, বাদাম, টকদই, মেয়নেজ, পনির, অলিভ অয়েল, মধু ইত্যাদি দেওয়া হয়। এতে শুধুই যে পুষ্টিগুণ বাড়ে তা নয়, সঙ্গে সঙ্গে স্বাদ, গন্ধ ও পুষ্টিমূল্যেরও তারতম্য হয়। সুস্থ থাকার জন্য প্রতিদিন খাদ্যতালিকায় রাখতে বলা হয় সালাদ।

ফলের সালাদ

মূল উপাদানে ফলের উপস্থিতি বেশি থাকে। সামান্য উপাদান ব্যবহার করেই বানানো যায় ফ্রুটস সালাদ। তবে সালাদ ছাড়াও এ–জাতীয় খাবার ডেজার্ট হিসেবেও কাজ করে। বিভিন্ন ফলের সঙ্গে, ফলের জুস, অলিভ অয়েল, বিভিন্ন মসলা, লবণ, মধু, চিনি, মরিচের গুঁড়া, লেবুর রস ছাড়াও নানা উপাদান যুক্ত করে এ সালাদ বানানো যায়। শরীরকে চনমনে রাখতে, রক্তের ইলেকট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখতে ও মাংসপেশিকে শক্তিশালী করতে এ ধরনের সালাদের জুড়ি নেই।

ন্যাচারাল সালাদ

এ সালাদ সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর। টমেটো, ক্যাপসিকাম, লেটুস, শসা, কাঁচা মরিচ, ব্রকলি, গাজর, যেকোনো সবুজ শাক, মটরশুঁটি, অর্থাৎ যেকোনো সবজি (কাঁচা বা ভাপানো) দিয়ে সাধারণ সালাদ তৈরি করা হয়। ন্যাচারাল বলার কারণ হলো, এতে কৃত্রিম কোনো খাদ্য উপাদান ব্যবহার করা হয় না।

প্রোটিন সালাদ

এ–জাতীয় সালাদের রেসিপিতে সবজির সঙ্গে মূল উপাদান হিসেবে প্রোটিন বা প্রোটিনজাতীয় উপাদানের ব্যবহার করা হয়। এ–জাতীয় সালাদ থেকে সবজির অন্যান্য পুষ্টির পাশাপাশি প্রোটিন যুক্ত হয়। যার ফলে এ ধরনের সালাদ কেউ চাইলে মিল হিসেবেও দুপুরের খাবার বা রাতের খাবার হিসেবে খেতে পারে। সবজির সঙ্গে ডিম, মাছ, মুরগির মাংস, ছোলার ডাল, বাদাম ইত্যাদি প্রোটিন যুক্ত করে বানানো হয় এ সালাদ।

ফ্যাটসমৃদ্ধ সালাদ

সালাদে ফ্যাট থাকা নির্ভর করে ড্রেসিংয়ের ওপর। যেকোনো স্বাস্থ্যকর খাদ্য উপাদানের সঙ্গে ফ্যাটসমৃদ্ধ ড্রেসিংয়ের ব্যবহার পুরো সালাদকে ফ্যাট ও ক্যালরিসমৃদ্ধ করে। যেমন মাখন মেয়োনেজ, বাণিজ্যিক সালাদ ড্রেসিং, ক্রিম, তেল, মার্জারিন, পনির, ক্রিম চিজ ইত্যাদি। সালাদ শব্দটা স্বাস্থ্যকর খাবারের তালিকায় থাকলেও ফ্যাটসমৃদ্ধ সালাদ সবার জন্য স্বাস্থ্যকর নয়।

আপনার মতামত জানানঃ