ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   বিপিএলের ফাইনালে রাজশাহী কিংসকে ১৬০ রানের লক্ষ্

বিপিএলের ফাইনালে রাজশাহী কিংসকে ১৬০ রানের লক্ষ্

December 9, 2016 - 2:51 PM

ক্রীড়া প্রতিবেদক, মিরপুর থেকে : বিপিএলের ফাইনালে রাজশাহী কিংসকে ১৬০ রানের লক্ষ্য বেঁধে দিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস। আগে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ১৫৯ রান করেছে সাকিব আল হাসানের ঢাকা।

মিরপুরে শুক্রবার টস জিতে ঢাকাকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন রাজশাহী অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম তিন ওভারে বিনে উইকেটে ২২ রান তুললেও দ্রুতই ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে ঢাকা। চতুর্থ ওভারে অফ স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজের বলে কভার শট খেলতে গিয়ে পয়েন্টে কেসরিক উইলিয়ামসকে ক্যাচ দেন মেহেদী মারুফ।

পরের ওভারে রাজশাহীকে দ্বিতীয় সফলতা এনে দেন আরেক অফ স্পিনার আফিফ হোসেন। তিনে নামা নাসির হোসেন আগের বলেই মিড অফ ক্যাচ তুলে বেঁচে গিয়েছিলেন, ক্যাচ ছেড়েছিলেন সামিত প্যাটেল। মুখোমুখি পরের বলেই ডাউন দ্য উইকেটে এসে ছক্কা হাঁকাতে যান, কিন্তু বলের লাইন মিস করেন। স্ট্যাম্পিং করতে কোনো ভুল করেননি উইকেটকিপার নুরুল হাসান সোহান।

সপ্তম ওভারে প্রথমবার আক্রমণে এসে প্রথম বলেই মোসাদ্দেক হোসেনকে ফিরিয়ে দেন রাজশাহী অধিনায়ক স্যামি। চারে নামা মোসাদ্দেক হয়েছেন এলবিডব্লিউ। ঢাকার স্কোর তখন ৩ উইকেটে ৪২। আউট হওয়া তিন ব্যাটসম্যানের কেউই দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি!

দ্রুত ৩ উইকেট হারানোর পর চতুর্থ উইকেটে কুমার সাঙ্গাকারাকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েন একপ্রান্ত আগলে রাখা এভিন লুইস। দারুণ সব চার মারে দলের রান বাড়াতে থাকেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান। এর মধ্যে দশম ওভারে আফিফের টানা তিন বলে মারেন তিন চার। দুটি কভার দিয়ে প্রায় একই শটে চার। আগের ওভারে স্যামিকেও মেরেছিলেন টানা দুই চার। ১০ ওভার শেষে ঢাকার স্কোর দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ৮২।

পরের ওভারেই অবশ্য ফিরে যান লুইস। ফরহাদ রেজার অফ স্টাম্পের বাইরের বলে শট খেলতে গিয়ে শর্ট থার্ড ম্যানে উইলিয়ামসের হাতে ক্যাচ দেন তিনি। ৩১ বলে ৮টি চারের সাহায্যে লুইস করেন ৪৫।

ছয়ে নামা ড্যারেন ব্রাভোও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। আগের বলেই মিরাজকে ডিপ মিড উইকেটের ওপর দিয়ে গ্যালারিয়ে আছড়ে ফেলেছিলেন। পরের বলটি শর্ট ফাইন লেগে ঠেলে দিয়েছিলেন। নন স্ট্রাইক প্রান্ত থেকে সিঙ্গেলের জন্য ছুটে আসেন সাঙ্গাকারা। কিন্তু ব্রাভো প্রথমে থেকে যাওয়ায় ঠিক সময়ে ক্রিজে পৌঁছাতে পারেননি। মুমিনুল হকের থ্রো থেকে স্টাম্প ভেঙে দেন মিরাজ, ব্রাভো (১৩) রান আউট।

আরেক ক্যারিবিয়ান আন্দ্রে রাসেল একবার জীবন পেয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি। আগের ওভারে নাজমুলের বলে ডিপ মিড উইকেটে তার ক্যাচ ফেলেছিলেন সাব্বির রহমান। পরের ওভারে দুর্দান্ত এক ক্যাচে রাসেলকে বিদায় করেন ফরহাদ। সামিত প্যাটেলের বলে লং অফে ছক্কা হাঁকাতে গিয়েছিলেন রাসেল। প্রথমে বল ধরে বাউন্ডারির বাইরে চলে যাচ্ছিলেন দেখে সেটি শূন্যে ছোড়েন ফরহাদ। পরের ভেতরে এসে দারুণ এক ক্যাচ নেন তিনি।

ব্যর্থতার সাগরে ভেলা ভাসান অধিনায়ক সাকিবও। ১২ রান করে ফরহাদের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ঢাকার অধিনায়ক। ঢাকার স্কোর তখন ৭ উইকেটে ১৩০। এরপর দ্রুত আলাউদ্দিন বাবুর উইকেট হারালেও শেষ দিকে সাঙ্গাকারার ব্যাটে সুবাদে লড়াইয়ের পুঁজি পায় ঢাকা। শেষ ওভারে আউট হওয়ার আগে ৩৩ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় ৩৬ রান করেন সাগাকারা। ২৮ রানে ৩ উইকেট নেন ফরহাদ।

আপনার মতামত জানানঃ