ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   বিএনপির মদদেই বিডিআর বিদ্রোহের ঘটেছিলোঃ প্রধানমন্ত্রী

জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশন

বিএনপির মদদেই বিডিআর বিদ্রোহের ঘটেছিলোঃ প্রধানমন্ত্রী

সেপ্টেম্বর ৬, ২০২০ - ৬:০৬ অপরাহ্ণ
বিএনপির মদদেই বিডিআর বিদ্রোহ

বিএনপির মদদেই বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনা ঘটেছিলো বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) সকালে একাদশ জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনের উদ্বোধনী সেশনে, শোক প্রস্তাবের আলোচনায় এই কথা বলেন তিনি।

করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারও সীমিত সংখ্যক সংসদ সদস্যদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হয় অধিবেশন। বেলা ১১টায় স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হয় অধিবেশনের কার্যক্রম।

শুরুতেই ঢাকা-১৮ আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ও নওগাঁ-৬ আসনের ইসরাফিল আলমের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব উত্থাপিত হয়।

শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনা করেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। প্রয়াত নেত্রী সাহারা খাতুনের সাহসিকতার প্রশংসা করে বক্তব্য রাখেন শেখ হাসিনা তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকা কালে আমার নামে অন্তত ১২টি মামলা দেয়া হয়। আর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আরো ৫-৬টি মামলা করা হয়েছিলো। তাদের সবারই একটা প্রচেষ্টা ছিলো যে, দ্রুত এসব মামলার রায় দিয়ে আমাকে শাস্তি দিয়ে দেবে।

এসব মামলা মোকাবিলার বিষয়ে সাহারা খাতুনের দক্ষতা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই মামলাগুলোর ওপর তীক্ষ্ণ নজর রাখতেন সাহারা আপা! একদিন পরপরই আমাকে কোর্টে হাজিরা দিতে হতো; উনি সেখানে উপস্থিত থাকতেন। এমনকি আমাকে কোর্টে নিয়ে গেলে, নেতা-কর্মীরা সেখানে হাজির হলেও, পুলিশ ধাওয়া করতো! কখনো কখনো গ্রেপ্তারও করতো! উনি (সাহারা খাতুন) সবসময় এমন পরিস্থিতিতে ছুটে যেতেন। তাদেরকে মুক্ত করার পদক্ষেপ নিতেন তিনি। এইভাবে নানান পরিস্থিতিতে তার সাহসিকতা দেখেছি আমরা। তার মৃত্যুতে আওয়ামী লীগের যে ক্ষতি, তা সত্যিই কখনো পূরণ হওয়ার নয়।’

বিডিআর বিদ্রোহের কথা উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, সাহারা খাতুনের সাহস দেখেছি ২০০৯ সালে বিডিআর বিদ্রোহের সময়। এই ঘটনা নিয়ে বিএনপি থেকে শুরু করে অনেকেই অনেক ধরনের কথা রটিয়ে থাকে। সাহারা আপা সেসময় সাহসে ভর করে সেখানে গিয়েছিলেন। আত্মসমর্পণ এবং তারপর অনেক অফিসারকে সেখান থেকে বের করে এনেছিলেন তিনি; জীবনের ঝুঁকি নিয়ে।

আওয়ামী লীগ সে সময় ক্ষমতা গঠনের পর, ৫২ দিনের মাথায় এই ঘটনাটা ঘটলো। বিদ্রোহে যেসব সেনা কর্মকর্তারা মারা গিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে ৩৩ জন ছিলেন আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য। এই ঘটনাটা ঘটার সাথে সাথেই আমাদের চেষ্টা ছিলো এটাকে থামানোর। সেখানে যে জিম্মি কর্মকর্তারা ছিলেন, তাদের বাঁচানো বা পরিবারগুলোকে রক্ষ করার চেষ্টা করেছিলাম আমরা। সেখানে সেনাবাহিনী মোতায়েন করলাম, আর সঙ্গে সঙ্গে কয়েকজন সেনাসদস্য সেখানে মারা গেলো।

ন্যক্কারজনক এই বিদ্রোহের ঘটনার নেপথ্যে বিএনপির জড়িত থাকার প্রসঙ্গও তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি জানান, বিডিআর এর ঐ ঘটনাটা ছিলো একটা অস্বাভাবিক ঘটনা। এর পেছনে কারা আছে? তখন তো আমরা কেবলই সরকার গঠন করেছি, এটা কখনোই যুক্তিযুক্ত না যে, আমরা সরকার গঠন করে এমন একটা ঘটনা ঘটাবো যে দেশে একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হয়! আসলে যারা তখন ক্ষমতায় আসতে পারে নাই; তারাই এই ঘটনার পেছনে ছিলো। আর তাদের সাথে ছিলো ওয়ান-ইলেভেন যারা তৈরি করতে চেয়েছিলো তারাই আওয়ামী লীগ সরকারের সবকিছুকে নস্যাৎ করার অপচেষ্টা করেছিলো, তারাই এই ঘটনা ঘটিয়েছিলো এতে কোনো সন্দেহ নাই। এই সত্য একদিন না একদিন উন্মোচিত হবে।’

বিএনপি মিথ্যাচারের সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করে দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা বলেছিলো ২১ আগস্ট আমি নাকি নিজেই গ্রেনেড ছুঁড়েছি; এটা তারা প্রচার করেছিলো সে সময়! বিডিআর বিদ্রোহের সময়ও তাইই করেছিলো বিএনপি।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ