ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   “বাবা”তোমার তুলনা শুধু তুমিই

“বাবা”তোমার তুলনা শুধু তুমিই

আগস্ট ২৭, ২০২০ - ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

যখন “বাবা” পৃথিবীতে বেঁচে ছিলেন, তখন তাহার মর্জাদা বুঝতে পারিনি। আমি অভাগা, আজ “বাবা”বেঁচে নেই, এখন বুঝি “বাবা” কতো অমূল্য সম্পদ প্রতিটি ছেলে মেয়ের জন্য।

আমার “বাবা” মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের বীর মুক্তিযাদ্ধা- মৃত: মো: আব্দুল গফুর খান, ১৯৪৮ইং সালের ১৬ই নভেম্বর টাঙ্গাইল জেলার, দেলদুয়ার উপজেলার, বার পাখিয়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। পিতা: মরহুম: মহব্বত আলী খান এবং মাতা: মরহুমা: সাহেরা খাতুন।

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্তির পরই তাহার পিতা ইন্তেকাল করেন। মাথার উপর থেকে ছাদ সরে যাওয়ার পর থেকে নিজ প্রচেষ্ঠায় এলাসিন থেকে ১৯৬৪ইং সালে এস এস সি, কুষ্টিয়া সরকারী কলেজ থেকে এইচ এস সি এবং বি এস সি ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৭০ইং সালে রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে রসায়ন শাস্ত্রে তিনি এম এস সি ডিগ্রী লাভ করেন।

পড়ালেখা শেষ করার পরপরই দেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি ১১নং সেক্টরের কমান্ডার খন্দকার আব্দুল বাতেনের নেতৃত্বে দেশকে পাক হানাদার মুক্ত করার লক্ষ্যে মহান স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। দক্ষিন টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ ও সাটুরিয়া সহ বিভিন্ন রনাঙ্গনে তিনি সক্রিয় ভাবে অংশ গ্রহন করেন। তিনি একজন সরকারী গেজেট ভূক্ত মুক্তিযোদ্ধা।

বাবার জন্য আজ আমরা গর্ববোধ করি। বিসিএস পরিক্ষায় উত্তীর্ন হয়ে ১৯৭৩ইং হতে ১৯৮৩ইং পর্যন্ত ম্যাজিস্টেট থেকে পর্যায় ক্রমে ১৯৯৮ইং হতে ১৯৯৯ইং পর্যন্ত ডেপুটি কমিশনার (ডিসি) সিরাজগঞ্জ এবং ২০০১ইং হতে ২০০৫ইং পর্যন্ত এডিবি প্রকল্পের পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। দায়িত্বরত অবস্থায় মস্তিষ্কে রক্তক্ষরন হয়ে দীর্ঘদিন অসুস্থ থেকে দুনিয়ার মায়া ত্যাগ করেন। রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় তাকে নিজ গ্রামে দাফন করানো হয়। আমি নিজ হাতে আমার বাবাকে দাফন কাজ সমপন্ন করি। মনে একটাই সান্তনা বাবার শেষ সময়ে পাশে ছিলাম, সেবা করতে পেরেছি।

চাকরিতে থাকা কালিন সবার সাথে হাসি মুখে কথা বলতেন ও চলতেন। “বাবা”আজ আমাদের মাঝে নেই, তবুও মানুষের মুখে যখন তার কর্মের কথা, ব্যাবহারের কথা, উপকারের কথাগুলো শুনি, তখন আমাদের বুকটা ভরে উঠে। এইতো,কে বলেছে “বাবা”আমাদের মাঝে নেই ? যতোদিন মানুষের মুখে মুখে আমার বাবার নাম থাকবে, ততোদিনই তিনি সবার মাঝে বেঁচে থাকবেন।

  • “বাবা”তোমাকে ছাড়া খুব অসহায় লাগে।
    “বাবা”তুমি কখনো আমাদের অভাব কি জিনিষ বুঝতে দাওনি।
    “বাবা”আমি তোমাকে খুব ভালোবাসি।
    “বাবা”তুমি ছিলে আমাদের বটগাছের ছায়ার মতো।
    “বাবা”যখনই কোন বিপদে পরি শুধু তোমার কথা মনে পরে, “বাবা”যদি আজ বেঁচে থাকতো !
    “বাবা”তুমি ছিলে আমাদের সাহস, আমাদের প্রতিভা, আমাদের আস্থা, আমাদের গর্ব , দেশের গর্ব।
    “বাবা”তুমি যেখানেই থাকোনা কেন, ভালো থেকো আর আমাদের জন্য দোয়া করো। আমরা যেন তোমার সেই সম্মান ধরে রাখতে পরি……।
  • লেখক তৌফিকুল ইসলাম খান

আপনার মতামত জানানঃ