ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়

বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়

September 4, 2016 - 9:03 AM

দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ (সঞ্চয়ন) ৩১ বিলিয়ন বা তিন হাজার ১০০ কোটি ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছে।

ব্যাংকের বর্তমান রিজার্ভের পরিমাণ দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রপ্তানি আয় বৃদ্ধি ও রেমিট্যান্স প্রবাহে স্থিতিশীল ধারা রিজার্ভ বৃদ্ধিতে বড় অবদান রেখেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ফরেন রিজার্ভ অ্যান্ড ট্রেজারি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার দিন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩১ দশমিক শূন্য ৫ বিলিয়ন ডলার।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, চলতি বছরে রিজার্ভের পরিমাণ অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে চলেছে। এপ্রিলে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ ২৯ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করে প্রথমবারের মতো। এরপর গত ২৭ জুন বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো রিজার্ভ ৩০ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করে। তখন ব্যাংকের রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩০ দশমিক শূন্য ২ বিলিয়ন ডলার। এ ছাড়া ৯ আগস্ট দ্বিতীয়বারের মতো বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩০ বিলিয়ন অতিক্রম করে। তখন রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৩০ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্র জানায়, আমদানি ব্যয় হিসেবে হাতে থাকা ৩১ বিলিয়ন ডলারের এই রিজার্ভ দিয়ে প্রতি মাসে সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলার আমদানি খরচ হিসেবে প্রায় ৯ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব হবে। আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, একটি দেশের কাছে অন্তত তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ বিদেশি মুদ্রার মজুদ থাকতে হয়। বাংলাদেশকে দুই মাস পরপর এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) বিল পরিশোধ করতে হয়।

বিশ্লেষকেরা জানান, আমদানি কমে যাওয়ায় ডলারের চাহিদাও কমেছে। ফলে রিজার্ভ থেকে কম ব্যয় হয়েছে। তবে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সময়োপযোগী বৈদেশিক মুদ্রা মজুদ ব্যবস্থাপনার কারণে রিজার্ভ ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেল ও খাদ্যের দাম কম থাকায় আমদানি ব্যয় কমেছে। ফলে রিজার্ভ থেকে কম ব্যয় হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী জানান, সময়োপযোগী বৈদেশিক মুদ্রা মজুদ ব্যবস্থাপনার কারণে রিজার্ভ ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেল ও খাদ্যের দাম কম থাকায় পরিমাণের দিক দিয়ে আমদানি বাড়লেও বৈদেশিক মুদ্রার তুলনামূলক ব্যয় কম হচ্ছে।

তিনি বলেন, জুনের তুলনায় জুলাই মাসে রপ্তানি আয় কিছুটা কমেছে। কিন্তু রপ্তানিতে ভালো প্রবৃদ্ধি আছে। প্রবাসী বাংলাদেশিরা নিয়মিত রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন। সব মিলিয়ে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ নতুন এ মাইলফলক অতিক্রম করেছে।

ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত অর্থবছরে ১৪ দশমিক ৯৩ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই পরিমাণ গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২ দশমিক ৫২ শতাংশ কম। তবে গত অর্থবছরের আগের বছরের চেয়ে রপ্তানি আয় প্রায় ১০ শতাংশ বেড়েছিল। অন্যদিকে চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে রপ্তানি আয় কমেছে ৩ দশমিক ৪৯ শতাংশ। রেমিট্যান্স কমেছে ২৭ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরি নিয়ে বিশ্বব্যাপী হইচইয়ের মধ্যে এর আগে গত ২৫ এপ্রিল ২৯ বিলিয়ন ডলারের ঘর অতিক্রম করে। তার আগে ২৫ ফেব্রুয়ারি রিজার্ভ ২৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছিল। এক বছর আগে গত বছরের জুন শেষে রিজার্ভ ছিল ২৫ দশমিক শূন্য ২ বিলিয়ন ডলার। অর্থাৎ গত এক বছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে ৫ বিলিয়ন ডলার যোগ হয়েছে। রিজার্ভের দিক দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বর্তমানে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। প্রথম অবস্থানে রয়েছে ভারত।

আপনার মতামত জানানঃ