ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   বরিশালে সুগন্ধার ভাঙন ঝুঁকিতে দোয়ারিকা সেতু

বরিশালে সুগন্ধার ভাঙন ঝুঁকিতে দোয়ারিকা সেতু

September 6, 2016 - 4:59 PM

এম এ হান্নান বরিশাল :
বাবুগঞ্জে প্রমত্তা সুগন্ধা নদীগর্ভে রোববার রাতে বিলীন হয়েছে উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সৈয়দ মোশারেফ-রশিদা একাডেমি (এসএমআর) কমপ্লেক্সের মসজিদ ভবন। এছাড়াও ওই হাইস্কুলের সম্মুখের প্রায় ৭০০ বর্গফুট এলাকা নদীবক্ষে হারিয়ে গেছে মাত্র একরাতের ব্যবধানেই। এতে একাডেমির কোলঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকা ঢাকাÑবরিশাল মহাসড়কের শতকোটি টাকার বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু (দোয়ারিকা সেতু) পড়েছে মারাত্মক ঝুঁকির মুখে। সেতুর পাদদেশে মহাসড়কের পূর্ব দিকের সংযোগে মুখের গাইড ওয়ালও একইসাথে ভেঙ্গে পড়েছে নদীতে। ইতোমধ্যে সেতুর গার্ডার অ ল গ্রাস করেছে ভাঙন। হুমকির মুখে রয়েছে বরিশালে প্রবেশদ্বারের এ গুরুত্বপূর্ণ সেতু। অথচ এ ব্যাপারে যেন মাথাব্যাথা নেই সংশ্লিষ্ট কোন দপ্তরের। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) বলছে, সেতুটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের। তাই এটি রক্ষার দায়িত্ব তাদের। এদিকে সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) বলছে, নদীভাঙন প্রতিরোধ করা সম্পূর্ণ পাউবোর কাজ। তাই ভাঙনরোধের কোন কারিগরি জ্ঞান বা অর্থবরাদ্দ নেই সওজের। সরকারি এই দু’টি দপ্তরের এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য ও পরস্পরের ওপর দায় চাপানোর ঠেলাঠেলিতে এখন মারাত্মক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে প্রায় ১২২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত স্বপ্নের বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর ওরফে দোয়ারিকা সেতু। তীব্র ঝুঁকিতে থাকা দক্ষিণা লের সাথে দেশের সড়ক যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এ দোয়ারিকা সেতুটির আশু ভয়াবহ বিপর্যয়ের আশঙ্কায় অভিন্ন মত প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্ট উভয় দপ্তরই। কিন্তু নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে তারা একে অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপাতেই ব্যাতিব্যস্ত। তবে সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তরগুলোর কান্ডজ্ঞানহীন আচরণে থেমে থাকেননি স্থানীয় বাসিন্দারা। তারা সীমিত সাধ্যের মধ্যেই চাঁদা তুলে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সেতু রক্ষার আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। পার্কোপাইন প্রযুক্তিতে (কাঠ ও বাঁশ দিয়ে তৈরি খাঁচায় ইটভর্তি করে নদীতে ফেলে) ভাঙন প্রতিরোধের চেষ্টা চালাচ্ছেন এলাকাবাসী। কিন্তু প্রমত্তা সুগন্ধার ¯্রােতের তীব্রতার কাছে ওই প্রচেষ্টা যে নিতান্তই ক্ষুদ্র। এসএমআর একাডেমির প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিম রেজা জানান, এলজিইডির সাবেক অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সৈয়দ মাহাবুবুর রহমানসহ এলাকার কিছু মহতী মানুষের কাছ থেকে ইতিমধ্যে ৫ লক্ষাধিক টাকা অনুদান সংগ্রহ করে পার্কোপাইন ও বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে স্থানীয় উদ্যোগে ভাঙন প্রতিরোধের চেষ্টা করা হয়েছে। তবে এসব উদ্যোগ উত্তাল সুগন্ধা নদীর কাছে নিতান্তই যৎসামান্য। সীমিত অর্থ আর শক্তি দিয়ে অসীম শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করা অসম্ভব। এজন্য দরকার সরকারের সমন্বিত উদ্যোগ। এদিকে খবর পেয়ে সোমবার ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেন স্থানীয় বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদী) আসনের এমপি এ্যাড. শেখ মোঃ টিপু সুলতান। এ ব্যাপারে মুঠোফোনে তিনি এ প্রতিবেদককে ক্ষোভের সঙ্গে জানান, সরকারি প্রতিষ্ঠান পাউবো আর সওজ একে অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে দায়ভার এড়ানোর চেষ্টা করার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। ভাঙন প্রতিরোধে তিনি স্থানীয় ওই উদ্যোগকে অভাবনীয় উল্লেখ করে বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রী রাশেদ খান মেননসহ সরকারের শীর্ষ মহলে যোগাযোগের মাধ্যমে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন।

আপনার মতামত জানানঃ