ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   বরিশালে পল্লী বিদুৎতের তেলেসমাতি, ক্ষিপ্ত গ্রাহক

বরিশালে পল্লী বিদুৎতের তেলেসমাতি, ক্ষিপ্ত গ্রাহক

September 19, 2016 - 8:28 AM

এম এ হান্নান,বরিশাল :
অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে বরিশাল নগরীর পূর্ব তীরের বাসিন্দা পল্লী বিদুৎ সমিতির গ্রাহকরা দৈনিক গড়ে দু’ ঘন্টার বেশী বিদুৎ পায় না। টানা ২০-২২ ঘন্টা বিদুৎ বিহীন থাকার পরও মাস শেষে কৃষি জীবি পরিবার গুলোকে গুনতে হয় মোটা অংকের বিদুৎ বিল। গ্রামগঞ্জের মানুষ এটাকে দেখছে শোষন নীপিড়ন হিসাবে। কীর্তনখোলা নদীর পূর্ব তীরের চরমোনাই ইউনিয়নের ডিঙ্গামানিক গ্রামের বাসিন্দারা জানান, তারা ১৯৮৯ সাল থেকে পল্লী বিদুৎ ব্যবহার করে আসছেন। সারা বছর বিদুৎ বিভ্রাট থাকলেও ঈদ কোরবানীর সময় নিরবিচ্ছিন্ন বিদুৎ পেয়ে আসছেন সব সময়। কারন তখন কল কারখানা, অফিস আদালত বন্ধ থাকায় গ্রামের মানুষ পর্যাপ্ত বিদুৎ পেতো। এবার কোরবানীর আগের দিন বিকাল ৪ টায় বিদুৎ চলে যায়। সারা রাত এক মুহুর্তের জন্য বিদুৎ এর দেখা মেলেনি। কোরবানীর দিন সকাল ৭ টায় বিদুৎ আসে আবার ৮টার আগেই তা বিদায় হয়। সকাল ৯টায় বিদুৎ এসে তা স্থায়ী হয়েছিল ১০ মিনিট। এরপর আর সারা দিন বিদুৎ ছিল না। বিকাল ৪টার পর আবার শুরু হয় বিদুৎ এর আসা যাওয়ার খেলা। কখনো ১০ মিনিট কখনো ১৫ মিনিটের জন্য বিদুৎ এলেও টানা ৩০ মিনিট বিদুৎ পায়নি কখনো গ্রামের বাসিন্দারা। গ্রামের যে সব মানুষ কস্টার্জিত সোনালী ফসল ধান পানির দামের বিক্রি করে অতি কস্টে জীবনের সম্বল হিসাবে একটি ফ্রিজ কিনেছিলেন তা নষ্ট হয়ে গেছে। গ্রামের শতকরা ৯০ টি ঘরের ফ্রীজ বিকল। যাদের সদ্য কেনা ফ্রিজটি এখনো সচল তারা বিদুৎ সংকটে তার কোন সু-ফল পাচ্ছেন না। বরং ফ্রীজ ব্যবহার বন্ধ রেখেছেন মাছ, মাংস পচে যাওয়ার সাথে সাথে স্বাধের ফ্রীজটি চিরতরে বিকল হয়ে যাওয়ার আশংকায়। গ্রামের অশিক্ষিত মানুষরা রাস্ট্রের অনেক খবরই রাখেন না তবুও তারা জানেন সুন্দরবন ধ্বংসের আয়োজনকারী রামপাল বিদুৎ কেন্দ্র নির্মানের কথা। গ্রামের মুর্খ ব্যক্তিরা বলছেন ‘ এই রামপাল বিদুৎ কেন্দ্র নির্মানের জন্যই নাকি এ বিদুৎ সংকটের নাটক গ্রামগঞ্জে ম স্থ করা হইতেছে। বর্ষিয়ান একজন স্কুল শিক্ষক জানান, মাসে মাসে এক হাজার থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত বিদুৎ এর বিল পরিশোধ করেও বিদ্যুত পাচ্ছিনা। তিন বেলা ভাত জুটুক আর নাই জুটুক বাড়ি ঘরে বিদুৎ আছে এই ভাব বজায় রাখতে মাস শেষে ধান, চাল, পান- সুপারী যা যার কিছু আছে তা বিক্রি করে হলেও বিদুৎ বিলটি সঠিক সময় পরিশোধ করতে কেউ ভূল করেন না। এ যেন পল্লী বিদুৎ নামক এক বিশাল প্রতারনার ফাদ পেতে গ্রামের মানুষের কাছ থেকে প্রতি মাসে হাজার কোটি টাকা গলা কেটে আদায় করে নেওয়ার এ কৌশল মাত্র। কোরবানীর পরদিন চরমোনাই দরবার শরীফ থেকে পীর সাহেবের ফুফাতো ভাই বাংলাদেশ কাজী সমিতির মহাসচিব কাজী মামুন জানান, সেখানে নানান গুজব ভাসছে। কেউ বলছেন সাহেবের হাট নদীর উপর দিয়ে বিদুৎ সংযোগ যুক্ত হওয়ার স্থানটিতে কি একটা বিকল্প সংযোগ দেওয়ার কারনে চরমোনাই ডিঙ্গামানিক সহ পুরো এলাকায় ২২ ঘন্টা বিদুৎ থাকে না। আবার কেউ বলছেন নদীর তলদেশ দিয়ে যাওয়া সাব মেরিন ক্যাবলে ত্রুটির কথা। চরবাড়িয়া, শায়েস্তাবাদ ও চানপুরা এলাকা থেকে পাওয়া গেছে একই রকম বিদুৎ বিভ্রাটের খবর। পরবর্তীতে ৩৩ কেভি গ্রীড স ালন লাইনে খবর নিয়ে জানা গেছে পুরো বরিশালেই পূর্বের সরবারহের চেয়ে ৩০ মেগওয়াট বিদুৎ কম সরবারহ করার খবর। রহস্যজনক কারনে সরবারহ কমিয়ে দেওয়ার বিষয়টি যাদের জানার ক্ষমতা রয়েছে সেই সব মন্ত্রী-এমপিদের এলাকায় বিদুৎ বিভাগের লোকজন নিরবিচ্ছিন্ন বিদুৎ সরবারহ করতে ব্যস্ত। যে কারনে দখিনের জনপদে যে সব মন্ত্রী এমপিরা এবার কোরবানী করতে এসেছেন তারা টের পাচ্ছেন না কি রকম দুর্বিসহ দিন পার করছেন পল্লী বিদুৎ সমিতির গ্রাহকরা। হাজারো ধকল সামাল দিয়ে রাজধানী ঢাকা সহ দেশের ব্যস্ত নগরী গুলো থেকে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে মানুষ গ্রাম গঞ্জে ছুটে এসেছেন তাদের এখন বিদুৎ বিভ্রাটে নাভি:শ্বাস উঠেছে। পৃথিবীর আর কোথাও কোন দেশের বিদুৎ গ্রাহকদের এমন খেসারত দেওয়ার নজির আছে কি না তা সন্দেহ। খোদ বরিশাল নগরীতে পর্যন্ত এখন বিদুৎ সরবারহ নিয়ে চলছে টাল বাহনা। দিনে রাতে সমান তালে চলছে লোডশেডিংয়ের খেলা।

আপনার মতামত জানানঃ