ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   বন্যায় মুন্সীগঞ্জে ১৩২ গ্রাম প্লাবিত

বন্যায় মুন্সীগঞ্জে ১৩২ গ্রাম প্লাবিত

জুলাই ২৪, ২০২০ - ১২:২৪ অপরাহ্ণ
মুন্সীগঞ্জে বন্যায় প্লাবিত

সরকারি হিসেবে মুন্সীগঞ্জের ১৩২ গ্রাম বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। জেলার ছয় উপজেলার মধ্যে চার উপজেলার ২০ ইউনিয়নের গ্রামে এখন বানভাসী মানুষের কষ্ট অবর্ণনীয়। এর মধ্যে লৌহজং উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৪৯ গ্রাম প্লাবিত হয়ে ক্ষতির মুখে পড়েছে ১২ হাজার ৮৫০টি পরিবার।

এই উপজেলায় ১৮টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। সেখানে ২০৬টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। টঙ্গীবাড়ি উপজেলায় চারটি ইউনিয়নের ৪২টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামে ৪ হাজার ৯শ’ পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। এই উপজেলায় ৬টি আশ্রয় কেন্দ্রের খোলা হয়েছে, তবে এখনও কেউ আশ্রয় নিতে পারেননি।

শ্রীনগর উপজেলায় পাঁচটি ইউনিয়নের ৩১টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ৬ হাজার ২৭৬টি পরিবার। এখানে খোলা হয়েছে ১০টি আশ্রয় কেন্দ্র। এখানে আশ্রয় নিয়েছে মাত্র তিন পরিবার।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার দুইটি ইউনিয়নের ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৪০৮ পরিবার। আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে ১৫টি। এখনও কেউ আশ্রয় কেন্দ্রে আসেনি।

শুক্রবার (২৪ জুলাই) জেলা প্রশাসনের তথ্য, জেলায় মোট আশ্রয় কেন্দ্র ৪৮টি। এতে আশ্রয় নিয়েছে মাত্র ২০৯টি পরিবার। সরকারি হিসাবে জেলায় মোট বানভাসী মানুষের সংখ্যা ২৪ হাজার ৪৩৪।

সরকারিভাবে এ পর্যন্ত জিআর ক্যাশ হিসাবে ৩ লাখ টাকা, গো-খাদ্যের জন্য ১ লাখ টাকা এবং শিশু খাদ্যের জন্য আরও ১ লাখ টাকা এবং ২০২ টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া, ৩ হাজার ১শ’ বন্যা কবলিত পরিবারে শুখনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

জেলার অনেক এলাকায় ঘরের মধ্যেও হাঁটু, কোমর বা বুক সমান পানি উঠে গেছে। বিভিন্ন এলাকার কাঁচা-পাকা রাস্তা বন্যার পানিতে ডুবে গিয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। করোনা ও বন্যার কারণে এখানকার শত শত মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। একদিকে বন্যার পানি বৃদ্ধি এবং অন্যদিকে পদ্মার ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে এই জনপদের মানুষ।

আপনার মতামত জানানঃ