ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রধান সংবাদ   »   বঙ্গবন্ধু বাংলার প্রথম আন্তর্জাতিক বার্তাবাহকও

বঙ্গবন্ধু বাংলার প্রথম আন্তর্জাতিক বার্তাবাহকও

September 25, 2016 - 8:48 AM

ডেক্স: পৃথিবীর কোন জাতিগোষ্ঠীর ভাষাই একদিনে জন্ম হয়ে বর্তমান অবস্থায় আসেনি। আমাদের মাতৃভাষা বাংলাও একদিনে সৃষ্টি হয়নি। বাঙালি ও তার ভাষা বাংলা ক্রমবিবর্তনের ধারায় এক হাজার বছরেরও বেশি সময় ধরে নানা বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে আজকের অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। হাজার বছরেরও আগে আজকের বাংলা ভাষা শুনতে আজকের মতো ছিল না, বর্ণমালাও কিন্তু এ রকম ছিল না। শত শত বছর ধরে পরিবর্তিত হতে হতে আজকে বাংলা ভাষা বৈচিত্র্যময় ও সমৃদ্ধশালী হয়েছে।

আমাদের মুখের ভাষা আদায়ের আন্দোলন এখন সারাবিশ্বে স্বীকৃত। আর্ন্তজাতিকভাবে পালিত হয় ‘মাতৃভাষা দিবস’। শুধু তাই নয়, বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগেও বাংলা ভাষা জয় করে নিয়েছে অনেক প্রতিকূলতা।

দিন দিন দেশে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার উৎকর্ষ ও সংখ্যা বাড়ছে। সমান তালে বাড়ছে বাংলা ভাষার প্রচার ও প্রসার। বর্তমানে মানুষের ভাব প্রকাশের অন্যতম অনুষঙ্গ মোবাইল ফোন ও কম্পিউটারে ইউনিকোডভিত্তিক বাংলা লেখার অভিনব সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে, বিশ্বের জনপ্রিয় ইন্টারনেট সার্চ ইঞ্জিন গুগলও তাদের ই-মেইল, ওয়েব সাইটে, এমনকি সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকও বাংলা লেখার সুযোগ করে দিয়েছে। আগে যখন মানুষ তার ভাব প্রকাশে বাংলা শব্দকে ইংরেজি অক্ষরে প্রকাশ করতো, তখন মনের মাঝে একটা অতৃপ্তি কাজ করতো। অথচ এখন ফেসবুক খুললেই প্রমাণ মেলে বাংলা বর্ণমালায় সকল বয়সী মানুষের বহুমাত্রিক চিন্তা-ভাবনার বর্ণাঢ্য ঝড় আর অভাবনীয় অংশগ্রহণ।

১৯৭৪ সালের এই দিনে (২৫ সেপ্টেম্বর) আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত করান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু বাংলাকে পরিচয় করান ‘শান্তির পক্ষে’।

সেই মাহেন্দ্রক্ষণে লাল সবুজ পতাকা পত পত করে উড়েছে জাতিসংঘের সদর দপ্তরের সামনে। শতাধিক দেশের পতাকার পাশে বাংলাদেশের পতাকাও ঠাঁই করে নিয়েছে নিজের আসন। অধিবেশন কক্ষে সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রনায়ক ও সরকার প্রধানরা। অধিবেশনে সভাপতির আসনে আলজেরিয়ার মুক্তি সংগ্রামের নেতা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা আবদেল আজিজ বুতেফ্লিকা। সভাপতি ‘বাঙালি জাতির মহান নেতা’ হিসেবে পরিচিতি জানিয়ে বক্তৃতা মঞ্চে আহ্বান করেন বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। বাঙালির মহানায়ক বঙ্গবন্ধু সদর্পে বীরোচিত ভঙ্গিমায় উঠে গেলেন বক্তৃতা মঞ্চে।

প্রথম এশীয় নেতা, যিনি এই অধিবেশনে সবার আগে ভাষণদান করেন। দৃপ্ত পায়ে বক্তৃতা মঞ্চে উঠে ডায়াসের সামনে দাঁড়ালেন বঙ্গবন্ধু। মুহুর্মুহু করতালি। বঙ্গবন্ধু বক্তৃতা শুরু করেন মাতৃভাষা বাংলায়। যে ভাষার জন্য ঢাকার রাজপথে বাঙালি বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছে। সেই ভাষায় প্রথম ভাষণ জাতিসংঘে। বঙ্গবন্ধু বাংলা ভাষাকে বিশ্ব দরবারে আবার ঠাঁই করে দিলেন। এর আগে ১৯১৩ সালে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নোবেল প্রাপ্তির মধ্যদিয়ে বিশ্ববাসী জেনেছিল বাংলাভাষার আবেদন। এর ৬০ বছর পর ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির পক্ষ থেকে উচ্চারণ করলেন বিশ্বসভায় বাংলা ভাষার অমর শব্দসমূহ।

জাতিসংঘে বিশ্বের সকল নেতা নিজ নিজ মাতৃভাষাতেই ভাষণ দিয়ে থাকেন। জাতিসংঘের সরকারি ভাষা ছয়টি। ইংরেজি, ফরাসী, রুশ, চীনা, স্প্যানিশ ও আরবি। এই ৬ ভাষাতেই বক্তৃতা রূপান্তরিত হয়ে থাকে। কিন্তু অনেক বিশ্ব নেতার কথা অমান্য করে বঙ্গবন্ধু বলেছেন, বাংলায় না হলে আমি বক্তব্য দেবো না। অত্যন্ত সচেতনভাবে নিজ থেকেই বাংলায় ভাষণ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। বাংলা ভাষা ও বাংলা নামের দেশটির জন্য যে সংগ্রাম, যে আত্মত্যাগ তার স্মরণেই ছিল এমন সিদ্ধান্ত।

এর আটদিন আগে ১৭ সেপ্টেম্বর নবীন রাষ্ট্র বাংলাদেশ জাতিসংঘের ১৩৬তম সদস্য দেশ হিসেবে মর্যাদা লাভ করে। ওই দিনই জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশন কক্ষে বাঙালির প্রথম প্রবেশ ঘটে। বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশ স্থায়ী আসন পেল যেন। বাংলাদেশের জাতিসংঘ সদস্যভুক্তির পর বিশ্বের অনেক দেশই অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য রাখে। জাতিসংঘে মার্কিন স্থায়ী রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘বিশ্বের পার্লামেন্টে নতুন দেশ বাংলাদেশকে স্বাগতম।’ জাতিসংঘের মহাসচিব তখন ড. কুর্ট ওয়ার্ল্ডহেইম। তিনিও বাংলাদেশকে স্বাগত জানান, তবে প্রচণ্ড উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছিলেন তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যাকব মালিক ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শরণ সিং। তারা তাদের বক্তব্যে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর অত্যাচার নিপীড়নের কথা তুলে ধরেন। সকল অভিনন্দনের জবাবে বাংলাদেশের পক্ষে বিবৃতি পাঠ করেন তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বাংলাদেশের জাতিসংঘ সদস্য পদ লাভের ঘোষণায় সেদিন রাজধানী ঢাকায় আনন্দ মিছিল আর সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে বাংলাদেশের পতাকা হাতে ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে দীর্ঘ র্যা লি বের হয়।

বঙ্গবন্ধু সাধু বাংলায় জাতিসংঘে দেওয়া ভাষণের প্রারম্ভেই বললেন, ‘মাননীয় সভাপতি, আজ এই মহামহিমান্বিত সমাবেশে দাঁড়াইয়া আপনাদের সাথে আমি এই জন্য পরিপূর্ণ সন্তুষ্টির ভাগীদার যে, বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষ আজ এই পরিষদে প্রতিনিধিত্ব করিতেছেন। আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের পূর্ণতা চিহ্নিত করিয়া বাঙালি জাতির জন্য ইহা একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত।’

বাঙালির ইতিহাসের নতুন স্রষ্টা ও পরিপূর্ণতাদানকারী বঙ্গবন্ধু এরপর ভাষণে তুলে ধরেন বাঙালি জাতির সংগ্রামী চেতনার সফল সংগ্রামের ইতিবৃত্ত। বাংলাদেশের স্বপ্ন, এর জনগণের আকাঙ্খার কথা দৃঢ়তার সঙ্গে তুলে ধরেন। বাংলাদেশ কেন সংগ্রামের পথ বেছে নিয়েছিল, কী তার সেক্রিফাইস, কোন্ ধারাবাহিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে জন্ম হয় স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রটির- এসব ইতিহাস চমৎকারভাবে উঠে আসে বক্তৃতায়। রাষ্ট্রপরিচালনার নীতি ব্যাখ্যা করে সারাবিশ্বের নিপীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন বাঙালীর মহান নেতা।

বিপুল হর্ষধ্বনি ও করতালির মধ্য দিয়ে স্বাধীন সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ভাষণ শেষ করেন। বিশ্বের নানা দেশের নেতারা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণকে অভিনন্দন জানাতে সারিবদ্ধভাবে জড়ো হন। বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেমস কালাহান এই ভাষণ সম্পর্কে জাতিসংঘে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন, ‘এটি ছিল একটি শক্তিশালী ভাষণ।’ কিউবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই ভাষণকে ‘ইতিহাসের এক অবিচ্ছিন্ন দলিল’ হিসেবে উল্লেখ করেন।

অভূতপূর্ব এ ভাষণের পর বহুকাল অতিক্রান্ত হয়েছে। অনেক নেতা বাংলাদেশের হয়ে বক্তৃতা করেছেন। গত সপ্তাহেই জাতিসংঘের ৭১তম সাধারণ অধিবেশনে বক্তব্য রেখেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষণকে অতিক্রম করতে পারেননি কেউ। বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষণ যেন এখনও সমকালীন, এখনও বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে। যে ভাষণে তিনি তাঁর দেশ ও তাঁর জাতির সংগ্রামের ইতিহাস, দৃঢ়তা এবং প্রত্যয়ের কথা সকলকে শুনিয়ে এই জাতিকে সম্মানিত ও গৌরবান্বিত করেছিলেন।

বর্তমানে বাংলা ভাষার মর্যাদা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে পরিণত করেছে জাতিসংঘ। ১৯৯৯ সালে বাংলা ভাষা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করে। ইউনেস্কো বাংলাকে সুমধুর ভাষা হিসেবে ঘোষণা দেয়। এখন শুধু বাকী বাংলাকে জাতিসংঘের সপ্তম দাপ্তরিক ভাষা করা। আর সেই প্রস্তাব দেওয়ার এখনই উপযুক্ত সময়।

আমরা যতদূর জানি, কয়েক বছর আগেই বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ১৯২টি রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কোনো রাষ্ট্রই এর বিরোধিতা করেনি। শুধু প্রয়োজন জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হতে হলে যেসব শর্ত রয়েছে, সেসব পূরণ করা। তাহলে ‘মাতৃভাষা’র জন্য আমাদের ভাষাশহীদদের প্রাণ বিসর্জনের প্রতিও যোগ্য সম্মান জানানো হবে।

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলা ভাষণের লিংক:

আপনার মতামত জানানঃ