ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   বকেয়া বেতনের দাবিতে আশুলিয়ায় শ্রমিক বিক্ষোভ

বকেয়া বেতনের দাবিতে আশুলিয়ায় শ্রমিক বিক্ষোভ

মে ৫, ২০২০ - ১:৩২ অপরাহ্ণ

জেলা প্রতিবেদকঃ লে-অফ ঘোষণা বাতিল ও বকেয়া বেতনের দাবিতে সাভারের আশুলিয়ায় একটি পোশাক কারখানার সামনে অবস্থান করে বিক্ষোভ করেছেন শ্রমিকরা।

মঙ্গলবার (৫ মে) আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকার সোনিয়া মার্কেট রোড এলাকার ‘আদিয়াত অ্যাপারেলস লিমিটেড’ কারখানার সামনে এ বিক্ষোভ করেন ৩ শতাধিক শ্রমিক। আন্দোলনের দুই ঘণ্টা পরে শিল্প পুলিশের আশ্বাসে শ্রমিকরা চলে যান।

শ্রমিকরা জানান, করোনা মহামারির কারণে বেতন পরিশোধ না করে গত ৩১ মার্চ নোটিশ টানিয়ে ৩১ মে পর্যন্ত কারখানা লে-অফ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। পরে আবার গত ১২ এপ্রিল শ্রমিকদের মোবাইলে লে-অফ ঘোষণার খুদে বার্তা দেয় কারখানা কর্তৃপক্ষ। সর্বশেষ ২৪ ও ২৫ মার্চ মাসের বেতনের অর্ধেক টাকা শ্রমিকদের দেয় কারখানা কর্তৃপক্ষ। মার্চ মাসের বাকি অর্ধেক বেতন ও এপ্রিলের বেতনের দাবিতে আজ কারখানার সামনে অবস্থান করে তারা।

শাহনাজ নামে এক শ্রমিক বলেন, বেতন বকেয়া রেখে লে-অফ ঘোষণা করে কারখানা কর্তৃপক্ষ। কারখানার সামনে কয়েক দফা অবস্থান নিলে গত ২৫ এপ্রিল বেতনের অর্ধেক টাকা পরিশোধ করে। এই করোনা মহামারিতে আমাদের বিপদে ফেলেছে, দুই মাস লে-অফ ঘোষণা করে আমাদের বেতন থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা করছে কারখানা কর্তৃপক্ষ। আমরা এ অন্যায় মানি না। লে-অফ এর নোটিশ প্রত্যাহার করতে হবে অন্যথা আন্দোলন চলবে।

এ ব্যাপারে কারখানাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তামিম আহমেদ বলেন, আমরা যখন কারখানা লে-অফ ঘোষণা করেছি তখন অনেক কারখানাই করেছে। আর হঠাৎ করেই লে-অফ বাতিল ঘোষণা করা হবে তা তো আমরা জানতাম না। এখন তো কারখানায় কাজ নেই। এখন আমরা নিজে বিপদে থেকেও বেতন ভাতা পরিশোধ করছি। যাদের বাকি আছে তাদেরও পরিশোধ করা হবে। আন্দোলন প্রতিহত করতে স্থানীয় লোকজন টাকা চেয়েছিল আমরা তা দেইনি। আমরা শ্রমিকদেরই টাকা পরিশোধ করছি। আমরা বেতন পরিশোধে খুবই আন্তরিক কখনও আমাদের বেতন বকেয়া ছিল না।

বাংলাদেশ বস্ত্র ও পোশাক শিল্প শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরোয়ার হোসেন বলেন, টানা দুই মাস লে-অফ ঘোষণা করেছে কারখানা কর্তৃপক্ষ। যা শ্রমিকদের ওপর অন্যায় করা হচ্ছে। দ্রুত শ্রমিকদের পাওনাদি বুঝিয়ে দিয়ে লে-অফ বাতিল করার দাবি জানাচ্ছি। কারখানা কর্তৃপক্ষ ও শিল্প পুলিশের সঙ্গে কথা হয়েছে। আগামী ১০ মে সবাই মিলে বসে বিষয়টি সমাধান করা হবে। শ্রমিকরা সবাই চলে গেছে যার যার বাসায়।

আপনার মতামত জানানঃ