ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   ফ্রেঞ্চ কাপের শিরোপা পিএসজির ঘরে

ফ্রেঞ্চ কাপের শিরোপা পিএসজির ঘরে

জুলাই ২৫, ২০২০ - ১২:২১ অপরাহ্ণ
শিরোপা

নেইমার ম্যাজিকে ১৩তম শিরোপা ঘরে তুলল প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। ফাইনাল ম্যাচে সেইন্ট এতিয়েনকে ১-০ গোলে হারাল পিএসজি। ইনজুরিতে পড়েছেন পারসিয়ান ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপ্পে।

থিয়েগো সিলভার হাতে, রূপালি ট্রফি। ক্লাব ইতিহাসের ১৩তম ফ্রেঞ্চ কাপ। এ ছবিটা হতে পারতো আজকের ট্রেডমার্ক। করোনার গ্রাসে হারিয়ে যাওয়া লিগ ওয়ানের শিরোপা জিতলেও, উৎসব যে করতে পারেনি পারসিয়ানরা। তার ওপর বাতিল হয়ে যাওয়া লিগ ট্রফিটা ঘরে আসলেও, সেখানে যে ছিলোনা কোন গর্ব করার মতো উপলক্ষ। বিপরীতে এ তো রীতিমতো রাজসিক ফেরা। সমর্থকদের সামনে বিপক্ষকে ছিড়েখুড়ে শিরোপা ছিনিয়ে নেয়া।

কিন্তু, সব আনন্দ কেড়ে নিয়েছে এই ছবিটি। ম্যাচ চলাকালীন প্রতিপক্ষের ট্যাকেল সহ্য করতে হয়নি এমন ফুটবলার পাওয়া অসম্ভব। কিন্তু, এতোটা বাজে ফাউলের শিকার হয়েছেন অনেক কম অ্যাথলিটই। এমবাপ্পের এই কান্না তাই বিষাদের ছায়া ফেলেছে চ্যাম্পিয়ন শিবিরে।

করোনা ভাইরাস বিরতির পর প্রথম প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে পিএসজি। তিনটা প্রস্তুতি ম্যাচ খেললেও, প্রতিপক্ষের নামগুলো সমীহ জাগানিয়া না হওয়ায়, চিন্তার ভাঁজ ছিলো থমাস টুখেলার কপালে। তাই তো, খুব বেশি পরীক্ষা নিরীক্ষায় যাননি এই জার্মান। এতিয়েনের ৪-২-৩-১ ফর্মেশনের জবাবে, প্রথাগত ৪-৪-২ তেই ভরসা রাখেন তিনি। যেখানে এমবাপ্পের সঙ্গী হিসেবে ফরোয়ার্ড ছিলেন ইকার্দি। আর উইং থেকে বল যোগানের দায়িত্ব দেন দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার দুজনকে। নেইমার আর ডি মারিয়া।

কিন্তু, ম্যাচের প্রথম গোলটা হজম করতে বসেছিলো পারসিয়ানরাই। ৫ মিনিটে ডেনিস বানগারের শট পোস্টে লেগে ফিরে আসলে হাফ ছেড়ে বাঁচে পিএসজি। ফ্রেঞ্চ কাপের ফাইনালটা নিজের নামে রাঙাতে হবে, ঝেড়ে ফেলতে হবে একের পর এক বিতর্ক। এ ভাবনা থেকেই হয়তো শুরু থেকেই দুর্বার ছিলেন নেইমার। ১৪ মিনিটে এমবাপ্পের শটটা ফিরিয়ে দিলেও, গোলমুখে করা নেইমারের কিকের জবাব জানা ছিলোনা মৌলিনের। এগিয়ে যায় প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। এরপরই আসে ২৭ মিনিটের সেই কালো সময়। ফরাসি ডিফেন্ডার লোয়িচ পেরিনের সাইড ট্যাকেলের শিকার হন কিলিয়ান এমবাপ্পে। প্রথম দেখায় নিরীহ গোছের ফাউল মনে হলেও, এমবাপ্পের গড়াগড়িতে ভয় পেয়ে যান সবাই। ভিএআরে দেখে, পেরিনকে লাল কার্ড দেখাতে বাধ্য হন রেফারি। কিন্তু, তাতেও ফেরানো যায়নি দুর্ভাগ্যকে। কান্না ভেজা চোখে মাঠ ছাড়েন ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ড।

বিরতি থেকে ফিরে আক্রমণে যায় দু দলই। তবে, এমবাপ্পেকে ছাড়া রঙহীন ছিলো থমাস টুখেল বাহিনী। আর ১০ জন নিয়ে কোন প্রভাবই ফেলতে পারেনি এতিয়েন। ফলাফল, ম্যাড়ম্যাড়ে দ্বিতীয়ার্ধ। এরপর আর কোন গোল না হলে, জয়ের আনন্দে ভাসে পিএসজি।

আগামী ৩১ জুলাই ফ্রেঞ্চ লিগ কাপের ফাইনালে অলিম্পিক লিও’র বিপক্ষে আবারো মাঠে নামবে পারসিয়ানরা। আর আগস্টে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তাদের প্রতিপক্ষ আটালান্টা।

আপনার মতামত জানানঃ