ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  স্বাস্থ্য   »   প্রায় ৫ কোটি শিশু ছিন্নমূল

প্রায় ৫ কোটি শিশু ছিন্নমূল

September 7, 2016 - 11:18 AM

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) জানিয়েছে, বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৫ কোটি শিশু ছিন্নমূল। যুদ্ধ, দারিদ্র্য এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এসব শিশু ছিন্নমূল হয়ে পড়েছে।

 

জাতিসংঘের এ সংস্থা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ২ কোটি ৮০ লাখের বেশি শিশু যুদ্ধের কারণে ছিন্নমূল হয়ে পড়েছে। প্রায় সমসংখ্যক শিশু একটু ভালো ভবিষ্যতের আশায় বাড়ি ছেড়েছে।

 

মঙ্গলবার ‘ছিন্নমূল : শরণার্থী ও অভিবাসী শিশুদের ক্রমবর্ধমান সংকট’ শিরোনামে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ইউনিসেফ। এতে বলা হয়েছে, গত ১০ বছরে ছিন্নমূল শিশুর সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি বেড়ে ৪০ লাখ থেকে ৮২ লাখে দাঁড়িয়েছে।

 

আলজাজিরা অনলাইনের এক খবরে বুধবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

ইউনিসেফের ভাষায়, বিশ্বে সবচেয়ে নাজকু অবস্থায় রয়েছে শিশুরা এবং তারা সতর্ক করেছে, সরকারগুলো যদি সঠিক পদক্ষেপ না নেয়, তবে এ সংখ্যা বাড়তেই থাকবে।

 

প্রতিবেদনের চুম্বক অংশ নিয়ে আলজাজিরা জানিয়েছে, বিশ্বের প্রতি ২০০ জন শরণার্থীর মধ্যে একজন শিশু। ২০০৫ সালের তুলনায় ২০১৫ সালে শিশু শরণার্থীর সংখ্যা দ্বিগুণ বেড়েছে।

 

মোট ছিন্নমূল শিশুর মধ্যে ২ কোটি ৮০ লাখ শিশু বাধ্য হয়ে ঘরবাড়ি ছেড়েছে। আর ২ কোটি শিশু ইচ্ছাকৃতভাবে ভালো ভবিষ্যতের আশায় বাড়ি ছেড়েছে। ২০১৬ সালে ইউরোপে যেসব শিশু আশ্রয় চেয়েছে, তার মধ্যে ৭০ ভাগই ইরাক, সিরিয়া ও আফগানিস্তানের শিশু।

 

ইউনিসেফ বলেছে, যুদ্ধ, সংঘাত, দারিদ্র বা জলবায়ু পরিবর্তন যে কারণেই হোক, উদ্বাস্তু শিশুরা এসবের জন্য দায়ী নয় অথবা খুবই সামান্য প্রভাব রয়েছে তাদের।

 

ইউনিসেফের প্রকল্প পরিচালক টেড চাইবান এ সম্পর্কে বলেন, ‘বাড়িঘর ছেড়ে ছিন্নমূল হয়ে পড়া এসব শিশু তো শিশুই। তাদেরকে শিশু হিসেবেই দেখতে হবে।’

 

তিনি আরো বলেন, ‘তারা সুরক্ষা পাওয়ার দাবিদার। শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের প্রবেশযোগ্যতা দরকার।’

 

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বর্তমানে ১ কোটি শরণার্থী শিশু রয়েছে। আশ্রয় চেয়ে আবেদন করেছে প্রায় ১০ লাখ শিশু, যদিও তাদের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই।

 

শরণার্থী ও অভিবাসী শিশুরা নানা ধরনের ঝুঁকিতে থাকে। সমুদ্র পাড়ি দেওয়ার সময় বেশির ভাগ ক্ষেত্রে মারা যায় শিশুরা। তারা অপুষ্টি ও উদারাময়ে ভোগে। অপহরণ ও ধর্ষণের মতো ভয়ংকর অপরাধের শিকার হয় তারা।

 

ইউনিফেস তাদের প্রতিবেদনে বিশ্বজুড়ে সরকারগুলোর প্রতি শিশুদের সুরক্ষা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার কথা বলেছে তারা।

 

আপনার মতামত জানানঃ