ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   প্রস্তুত সাড়ে ৩১ হাজার গরু

প্রস্তুত সাড়ে ৩১ হাজার গরু

August 31, 2016 - 12:18 PM

মেহেরপুর : কোরবানির ঈদ সামনে রেখে মেহেরপুরের খামারিরা গরু পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এসব খামারির একটাই দাবি, যাতে ঈদের আগে বৈধ-অবৈধ পথে ভারতীয় গরু দেশে ঢুকতে না পারে। তাহলে ব্যর্থ হবে তাদের পরিশ্রম। কেমিক্যালযুক্ত খাবার ও ওষুধ ব্যবহার করে গরু মোটাতাজাকরণের অপপ্রচার বন্ধেরও দাবি জানিয়েছেন তারা।

মেহেরপুর জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, এবার মেহেরপুরে কোরবানির ঈদের জন্য ৩৮৫টি বাণিজ্যিক খামারে ও পারিবারিকভাবে পালন করা সাড়ে ৩১ হাজার গরু প্রস্তুত রাখা হয়েছে। স্থানীয় পশুর হাট ছাড়াও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এগুলো বিক্রি হবে।

খামারিরা অত্যন্ত যত্নে ভাত, ভাতের মাড়, খৈল, ঘাস, গমের ভুসি, চালের কুঁড়াসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে গরু মোটাতাজা করছেন। আর পারিবারিকভাবে পালন করা গরু মাঠে চরিয়ে মোটাতাজা করা হচ্ছে। অধিক মুনাফার আশায় গরুর যত্নে এসব খামারিরা রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

মেহেরপুর সদর উপজেলার বুড়িপোতা ইউনিয়নের বারাকপুর গ্রামের মোতালেব হোসেনকে যাদবপুর ঢেলাপিরের মাঠে গরুর পাল চরাতে দেখা যায়। তিনি জানালেন, এনজিও থেকে দুবার ২০ হাজার করে ৪০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে ১৫ বছর আগে দুটি গাভি কিনেছিলেন। বর্তমানে তার পালে ১৩টি গরু রয়েছে। গেল কয়েক বছর কোরবানির ঈদেও ৪টি গরু তিনি বিক্রি করেন।

জেলার গাংনী উপজেলার বাওট গ্রামের মহিবুল জানান, এবার তার খামারে নেপালি, হরিয়ানা ও দেশি জাতের মোট ৪১টি গরু রয়েছে। তিনি এগুলো মোটাতাজা করতে শুধু প্রাকৃতিক খাবার দেন। তার মতে, ক্ষতিকর ইনজেকশন ও ট্যাবলেট ব্যবহার করে গরু মোটাতাজা করায় ঝুঁকি থাকে। অনেক সময় গরু মারাও যায়।

মেহেরপুর জেলা উন্নয়ন ফোরামের প্রেসিডেন্ট রফিক-উল আলম বলেন, ‘শহরকেন্দ্রিক দু-একজন খামারি গরু মোটাতাজাকরণে স্টেরয়েড ও হরমোন ব্যবহার করছেন এমন অপপ্রচারে অনেকেই মোটা গরুতে আগ্রহ হারাচ্ছেন। এ ছাড়া ঈদের আগে ভারত থেকে গরু আমদানি হলে খামারিরা বিপদে পড়বেন।’ এ বিষয়ে প্রশাসনকে সচেতন হতে পরামর্শ দেন তিনি।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. সুশান্ত কুমার হালদার বলেন, ‘ঈদ সামনে রেখে কোনো ক্রমেই যাতে সীমান্তপথে ভারতীয় গরু না আসতে পারে, তার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’ এ ছাড়া স্টেরয়েড ও হরমোন ব্যবহারে মোটাতাজা করা গরু যেন হাটে উঠতে না পারে সে জন্য মোবাইল কোর্টসহ প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাদের একাধিক টিম থাকবে বলেও জানান তিনি।

আপনার মতামত জানানঃ