ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   প্রথম বিতর্কে হিলারি-ট্রাম্প যা বললেন

প্রথম বিতর্কে হিলারি-ট্রাম্প যা বললেন

September 27, 2016 - 8:47 AM

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রথম টেলিভিশন বিতর্কে একে অপরকে ঘায়েল করার চেষ্টা করেছেন।

স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কে লং আইল্যান্ডের হফস্ট্রা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিতর্ক হয়, চলে দেড় ঘণ্টা। এ বিতর্কে যে বিষয় গুরুত্ব পায়, সংক্ষেপে তা তুলে ধরা হলো।
কর্মসংস্থান
বিতর্কের শুরুতে সঞ্চালক লেস্টার হল্ট হিলারি ক্লিনটনকে মার্কিনদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা বিষয়ে প্রশ্ন করেন।

নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী হিলারি উত্তর দেন। তিনি বলেন, নারী কর্মীদের জন্য ন্যায্য পারিশ্রমিকের ব্যবস্থা করবেন এবং ধনীদের জন্য কর বাড়াবেন।

কর্মসংস্থান ও চাকরির সুযোগ সৃষ্টি নিয়ে হিলারির বক্তব্যের প্রতি কটাক্ষ করে ট্রাম্প বলেন, মেক্সিকো ও অন্যান্য দেশ কাজের সুযোগ চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, আমাদের কাছ থেকে চুরি হয়ে যাওয়া কর্মসংস্থান আমাদের ঠেকাতে হবে। ট্রাম্প দাবি করেন, মেক্সিকোর শিল্পকারখানা তৈরির বিষয়টি ‘অষ্টম আশ্চর্য’ হয়ে উঠছে।
ট্রাম্প উল্লেখ করেন, যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য চুক্তিগুলো পুনর্মূল্যায়ন করতে হবে। তার দাবি, ট্রাম্পের শাসনামলে কর্মসংস্থান বাড়বে। কারণ করের বোঝা লাঘব ও নীতিমালা সংস্কারের পরিকল্পনা আছে তার।

ত্রুটিপূর্ণ বাণিজ্য চুক্তির ফলে কর্মসংস্থান কমে যাওয়ার জন্য হিলারিকে দায়ী করেন ট্রাম্প। আমেরিকান পণ্য আমদানিতে মেক্সিকো কর নেয় কিন্তু মেক্সিকান পণ্য আমদানিতে যুক্তরাষ্ট্র তা নেয় না। হিলারিকে প্রকারান্তে এর জন্য দায়ী করেন ট্রাম্প।

হিলারির ই-মেইল ইস্যু
ট্রাম্প বলেন, আমি আমার ট্যাক্স রিটার্ন প্রকাশ করব যদি আমার প্রতিপক্ষ তার ‘মুছে ফেলা ৩৩ হাজার’ ই-মেইল প্রকাশ করেন। বিতর্কে পরিষ্কার ভাষায় রাষ্ট্রীয় ই-মেইল ব্যক্তিগত সার্ভার ব্যবহার করে আদান-প্রদানের দায় নেন হিলারি। তিনি বলেন, আমি ভুল করেছি।

ট্রাম্প ইনকাম ট্যাক্স প্রকাশ না করায় হিলারি বলেন, তিনি কিছু গোপন করার চেষ্টা করছেন। ১৯৭০-এর দশকে রিপাবলিকান প্রার্থীদের আয়কর না দেওয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে হিলারি বলেন, তাদের মতো সাম্প্রতিক সময়ে ট্রাম্প তার আয়কর দেননি।

সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি
হিলারির মতে, বন্দুক সহিংসতায় আফ্রিকান-আমেরিকানদের প্রাণ যাচ্ছে বেশি। পুলিশ ও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে বিশ্বাস স্থাপন এবং অস্ত্র আইন সংস্কারের মধ্য দিয়ে এ সহিংসতা রোধ করা যায়। তবে ট্রাম্প আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ওপর গুরুত্ব দিয়ে বলেন, আমাদের পুলিশ এখন কোনো কিছু করতে ভয় পায়।

বারাক ওবামার জন্মস্থান
হিলারি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্টের জন্মপরিচয় নিয়ে ভুল তথ্য ছড়ানোর মাধ্যমে রাজনীতি শুরু করেছেন ট্রাম্প। জাতিগত মিথ্যা ছড়ানোর দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে ট্রাম্পের।

তবে ট্রাম্প পাল্টা আক্রমণে বলেন, ২০০৮ সালে ডেমোক্রেটিক পার্টির দলীয় মনোনয়নে ওবামার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সময় হিলারি বলেছিলেন, তিনি তার জন্মসনদ খুঁজে পাননি। তবে আমি যখন শুরু করলাম তখন আমি পেয়েছি।

আপনার মতামত জানানঃ