ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   প্রথমে প্রেমের ফাঁদ পরে বিয়ের প্রলোভনে দেহ ভোগ

প্রথমে প্রেমের ফাঁদ পরে বিয়ের প্রলোভনে দেহ ভোগ

October 20, 2016 - 3:22 PM

মেহেরপুর প্রতিনিধিঃ রং চং মাখিয়ে ছন্দে ছন্দে রোমান্টিক কথা দিয়ে তৈরী এক লম্পট যুবকের প্রেমের ফাঁদে পড়ে সর্বস্ব হারিয়ে এখন বিপাকে পড়েছে মেহেরপুর এর গাংনী উপজেলার আযান গ্রামের নবম শ্রেনীর ছাত্রী ফিরোজা খাতুন। সে ঐ গ্রামের কাঠ মিস্ত্রি ফজলুর মেয়ে। ভুক্তোভুগি ফিরোজা জানান, স্কুলে যাওয়ার পথে একই গ্রামের প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান আশরাফুল ইসলাম দাড়িয়ে নানা সময় বিভিন্ন রকম খোঁজ নিতো। এভাবে এক সময় সে মটরসাইকেলে করে আমাকে গাংনী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পৌছে দিত। এক সময় আমাকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে প্রথমে অমত প্রকাশ করলে পরে তার কথায় রাজি হয়ে যায়। এর কিছু দিন পরে সে আমাকে মেহেরপুরের খাঁ পাড়ার মসজিদ সংলগ্ন একটি বাড়িতে নিয়ে যায় এবং সে আমাকে বিয়ে করবে বলে শারীরিক সম্পর্ক করতে চায় এতে আমি রাজি না হলে সে আমার উপর রাগ করে। এভাবে কিছু দিন চলতে থাকে পরে আজই বিয়ে করবে বলে আশারফুল ইসলাম আমাকে ঐ বাড়িতে আবার নিয়ে যায়। সে সময় গোল ছিল মারা একটি কাগজ নিয়ে এসে আমাকে স্বাক্ষর করতে বলে। আমি জানতে চাইলে সে বলে বিয়ের কাগজ এখানে স্বাক্ষর করলে তোমার আমার বিয়ে সম্পন্ন হবে। যে কারণে আমি তাতে স্বাক্ষর করে দিই। এর পরে প্রায় এক বছর ধরে সে আমার দেহ ভোগ করে। এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানান গত সোমবার হঠাৎ করে ফজলুর মেয়ে বিয়ের দাবিতে একই গ্রামের ছারউদ্দিনের ছেলের বাড়িতে অবস্থান নেয়। এ নিয়ে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে প্রভাবশালি পরিবারের ছেলে মিরাজ ও তার লোকজন এসে বিষয়টি রফা করার আশ্বাস দিয়ে মেয়েকে ফিরে দেয়। কিন্তু যুবতী ফিরোজা খাতুন সাংবাদিকদের জানান তারা তাকে শারীরিক ভাবে আঘাত করে অজ্ঞান করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। পরে তার মা স্থানীয়দের সাহায্যে জ্ঞান ফিরায়। বর্তমানে ভুক্তোভোগী ফিরোজা খাতুন অভিযুক্ত লম্পট আশরাফুল ইসলামের উপযুক্ত বিচার দাবি করেন। অবশ্য স্থানীয়রা জানান, অভিযুক্ত আশরাফুল ইসলাম এর স্ত্রী ও সন্তান আছে এবং আগে সে পোড়া পাড়া গ্রামে সারের ব্যাবসা করতেন এ ঘটনার পর সে পোড়পাড়ায় ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে না বসে ইসলামনগরে ব্যাবসা করছেন। এ বিষয়ে অভিযুক্ত আশারাফুল ইসলামের সাথে দেখা করতে চাইলে সে বাড়ি নেই বলে তার ছোট ভাই জানিয়ে দেয়। পূণরায় তার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার স্ত্রী ফোন রিসিভ করে বলে আশরাফুল বাড়ি নেই।

আপনার মতামত জানানঃ