ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   প্রত্যাশিত দাম পাচ্ছেন না পিরোজপুরের মাল্টা চাষীরা

প্রত্যাশিত দাম পাচ্ছেন না পিরোজপুরের মাল্টা চাষীরা

সেপ্টেম্বর ১০, ২০২০ - ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ

পিরোজপুরে এ বছর মাল্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে সাম্প্রতিক বন্যার কারণে পরিপক্ক হওয়ার আগেই বাগান থেকে মাল্টা বিক্রি করে দিচ্ছেন চাষীরা । আর এতে উৎপাদন কমে যাওয়ার প্রত্যাশিত দাম থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তারা।

করোনার কারণে ভিটামিন ‘সি’ জাতীয় ফলের চাহিদা বেশি থাকায় এবং বিদেশ থেকে আমদামি করা মাল্টার চেয়ে দামে কম ও বেশী সুস্বাদু হওয়াতে ক্রেতাদের কাছে এর চাহিদা দিনে দিনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে মাল্টা বিক্রির মৌসুম শুরু না হলেও চাষীদের ক্ষেতের অধিকাংশ মাল্টা বিক্রি হয়ে গেছে। প্রতি কেজি মাল্টা বাগান থেকে পাইকারী বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ এবং খুচরা বাজারে যা বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকায়। আর এসব মাল্টা স্থানীয় বাজার ছাড়াও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নিয়ে যাচ্ছেন পাইকারী ক্রেতারা।

সাম্প্রতিক বন্যায় মাল্টা বাগান প্লাবিত হওয়ায় গাছের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। এজন্য গাছ থেকে মাল্টা ঝড়ে পড়ায় কিছুটা ক্ষতি কারণ হয়ে দাড়িয়েছে।

পিরোজপুর সদর উপজেলার এক মাল্টাচাষী জানান, সাম্প্রতিক বন্যায় মাল্টা বাগান প্লাবিত হওয়ায় গাছের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। গতবছর যে বাগানে একহাজার কেজি মাল্টা হয়েছে এবছর সেই বাগান থেকে ৭৫০ কেজি মাল্টা নেমেছে। সাম্প্রতিক বন্যায় বাগানে পানি উঠায় বেশ কিছু গাছ থেকে মাল্টা ঝড়ে গেছে এবং পাকার আগে মাল্টা বিক্রি করায় কিছুটা কম দাম পেয়েছেন চাষীরা। আর গতবছর প্রতিকেজি মাল্টা বাগান থেকে ৮০-৯০ টাকায় বিক্রি করলেও এ বছর সেই মাল্টাই বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকায়।

পিরোজপুরের ৭টি উপজেলায় ছোট বড় মিলিয়ে মোট ৯৯২টি মাল্টা বাগান রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি মাল্টা বাগান রয়েছে পিরোজপুর সদর ও নেছারাবাদ উপজেলায়।

আপনার মতামত জানানঃ