ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   প্রতারক আদম দালালের খপ্পরে পড়ে প্রবাসে নির্যাতনের শিকার গাংনীর যুবক

প্রতারক আদম দালালের খপ্পরে পড়ে প্রবাসে নির্যাতনের শিকার গাংনীর যুবক

September 12, 2016 - 7:07 AM

আল-আমীন,মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার আযান গ্রামের এক যুবক প্রতারক দালালের খপ্পরে পড়ে প্রবাসে প্রতিনিয়ত নির্যাতের শিকার হচ্ছেন। নির্যাতনের শিকার যুবক আযান গ্রামের আনোয়ার হোসেন এর ছেলে মোঃ হাফিজুল ইসলাম (২৭)। নির্যাতনের শিকার যুবকের পরিবার সুত্রে জানা যায়, চলতি বছরের মার্চ এপ্রিলের দিকে একই গ্রামের রঞ্জিৎ মল্লিক এর ছেলে প্রতারক খয়বর আলি ও তার স্ত্রী হানুরা খাতুন ফ্রি ভিসার প্রলোভন দেখিয়ে ৩ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। অবশ্য টাকা হাতিয়ে নেওয়ার আগে ভুক্তো ভগীর পরিবারকে ফ্রি ভিসা সম্পর্কে নানা মিথ্যা আশ্বাস দেওয়া হয়। তাদের জানানো হয় ছেলে ভালো কাজ পাবে ভালো থাকবে এবং কোন প্রকার কষ্ট পাবেনা। এ ধরনের নানা সময় নানা প্রলোভনের মাধ্যমে হাফিজুলের পরিবার কে চাপ দেয় দ্রুত টাকার ব্যাবস্থা করতে। ওদিকে প্রতারক খয়বরের ছোট ভাই জিয়া ওমান প্রবাসি সে হাফিজুলের পরিবারকে নিশ্চিত করে এখানে (ওমানে) আসলে সে যত দিন ভালো কাজ পাবেনা তত দিন আমার কাছে থাকবে। এ ধরণের আশ্বাসে তারা মাঠের জমি বিক্রয়, বন্ধক, বিভিন্ন এনজিওর থেকে ঋন এমনকি স্থানীয় দাদন ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে লাভের উপর টাকা নিয়ে প্রতারক আদম দালাল খয়বর আলি ও তার স্ত্রী হানুরা বেগমের হাতে তুলে দেয়। প্রতারক খয়বর আলি টাকা হাতে নিয়ে একটি ভিসার কপি নিয়ে হাফিজুলের পিতাকে দেখিয়ে ওমানে যাওয়ার দিন খন ঠিক করে দেয়। ভিসা আসল নকল কিনা তা চেক করার কথা বললে প্রতারক চক্র চেক না করেই বলে ওমানের ভিসা চেক করা যায় না। এর ২০ দিনের মাথায় অনেক স্বপ্ন নিয়ে দিনমজুর আনোয়ারের ছেলে হাফিজুল ইসলাম ভাগ্য উন্নয়নের জন্য ওমানে পাড়ি জমায়। ওমানে প্রতারক খয়বর আলির ছোট ভাই জিয়া তাকে এয়ারপোর্টে রিসিভ করে এবং তার দেশের বাড়িতে হাফিজুলের বাবা মা এর সাথে মোবাইলে কথা বলে দেয়। এর পরপরই ওমানের কোন এক নাগরিকের হাতে তুলে দেয় তাকে। এর পর থেকে হাফিজুলের উপর নেমে আসে অমানিসা অন্ধকার ১৭ ঘন্টা ছাগল ভেড়া চড়াতে হয় উত্তপ্ত হামিদা নামক এলাকার মরুভূমিতে। ঠিক মতো খাওয়া দাওয়া দেওয়া হয়না। আজোবধি বেতন পায়নি বলে সে তার পরিবারকে জানায়। এসব বিষয় হাফিজুলের পরিবার অবগত হওয়ার পর প্রতারক আদম দালাল খয়বর আলিকে জানালে সে ওমান প্রবাসি আর এক প্রতারক জিয়ার রেফারেন্স দিয়ে বলে আজ কালের ভিতর ছেড়ে দেবে। পরে অনেক চাপাচাপির পর প্রতারক জিয়া শিকার করে তাকে ২ বছরের জন্য ওখানে কাজে লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরিবারের প্রশ্ন যদি ফ্রি ভিসা দেওয়া হয়ে থাকে তাহলে আমার ছেলেকে উত্তপ্ত মরুভ’মিতে কেন আটকিয়ে রাখা হয়েছে। কেন তার বেতন দেওয়া হয়না কেনই বা তাকে ১৭ ঘন্টা কাজ করতে হবে। এ ধরণের কোন প্রশ্ন্রে উত্তর প্রতারক চক্র খয়বরের কাছ থেকে পাওয়া যায়নি। প্রতারণার শিকার হাফিজুলের পরিবার এ প্রতিনিধির কাছে দাবি করেন আমার ছেলেকে দাস হিসেবে কোন এক ব্যাক্তির কাছে বিক্রয় করে দিয়েছে। এ বিষয়ে প্রথমে তারা স্থানীয় মাতব্বরদের কাছে বিচার দিলে প্রতারক চক্র তার ছেলেকে ফিরে আনার ব্যবস্থা করবে এবং টাকা ফেরত দিবে বলে জানালেও তারা সে কথা রাখেনি। পরে ভুক্তোভোগির পরিবার চলতি বছরের আগষ্ট মাসের ২৮ তারিখে গাংনী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে যার নং ১৪৩৪। ভুক্তোভোগির পরিবার এখন ঋনের বোঝা মাথায় নিয়ে ছেলে ফিরে পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

আপনার মতামত জানানঃ