ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   পুজা মন্ডবে আনসার ভিডিপি নিয়োগে ঘুষ বানিজ্য

পুজা মন্ডবে আনসার ভিডিপি নিয়োগে ঘুষ বানিজ্য

October 9, 2016 - 4:01 PM

আব্দুল্লাহ আল মামুন, পার্বতীপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের পার্বতীপুরে পুজা মন্ডবে নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার ভিডিপি সদস্য নিয়োগে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। পার্বতীপুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় মোট ১৭৪টি পূজা মন্ডবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে শারদীয় দূর্গা পুজা। এদের মধ্যে ঝুকিপূর্ন পুজা মন্ডবের সংখ্যা ৩২টি। আর ওই সব মন্ডবে পুলিশের পাশাপাশি নিয়োগ দেয়া হয়েছে ৭৭০ জন আনসার ভিডিপি সদস্যকে। এদের মধ্যে নারী আনসার ভিডিপি রয়েছেন ২৪৮ জন। আর নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালনা করেন রাষ্ট্রপতি পদক প্রাপ্ত উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক প্রামানিক।
তিনি প্রতি সদস্যের কাছ থেকে কমপক্ষে ৫শ’ টাকা করে আদায় করে ডিউটি প্রদান করেছেন। তার অনৈতিক কাজে সহযোগীতা করেছেন বিভিন্ন ইউনিয়নের দলীয় নেতা ও নেত্রীরা। ৭৪০ জন আনসার সদস্য নিয়োগ দিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন ৩ লক্ষাধিক টাকা। অথচ একজন আনসার ভিডিপি সদস্য ৫ দিন ডিউটি করে পাবেন সর্বোচ্চ এক হাজার ৭শ’ টাকা। বেশ কয়েকটি পুজা মন্ডব ঘুরে আনসার ভিডিপি সদস্যদের সাথে কথা বলে ঘুষ প্রদানের সত্যতা পাওয়া যায়।
উপজেলার বানিয়া পাড়া পুজা মন্ডবে দায়িত্ব পালনকারী আনসার ভিডিপি সদস্য আব্দুস সামাদ বলেন, তার কাছ থেকে ৫শ’ টাকা নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, শুধু তিনি নন প্রত্যেক সদস্যের কাছ থেকেই টাকা আদায় করা হয়েছে। সবাই টাকা দিলেও ভবিষ্যতে ডিউটিসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধার না পাওয়ার আশংকায় কোন সদস্য মুখ খুলতে চান না। কেরানী পাড়ার ইদ্রিস আলী বলেন, টাকা ছাড়া কোন সদস্য পুজা মন্ডবে ডিউটি পাননি। তিনিও টাকা দিয়ে ডিউটি নিয়েছেন। শুধু পুজাই নয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও প্রত্যেক সদস্যের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হয়েছে। পাটওয়ারী পাড়ার ফাতেমা বেগম বলেন, টাকা না দিলে ডিউটি মেলেনা আনসার ভিডিপি সদস্যদের। ইউপি নির্বাচনে ৫শ টাকা দিয়ে ডিউটি পেয়েছিলেন। এবারও তার কাছ থেকে দল নেতা জহির টাকা চেয়ে ছিলেন কিন্তু টাকা দিতে না পারায় ডিউটি হয়নি তার। সিঙ্গীমারী কাজিপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম বলেন, তিনি ৪শ’ টাকা দিয়েছেন। টাকা কম দেয়ায় তার ডিউটি দেয়া হয়নি।
আনসার ভিডিপি অফিসের দুই কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, টাকা ছাড়া কোন আনসার ভিডিপিকে ডিউটি দেয়া হয় নাই। অফিস খরচের কথা বলে টাকা আদায় করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক প্রামানিক টাকা আদায়ের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার সুপারিশের ভিত্তিতে আনসার ভিডিপি সদস্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে পুজা মন্ডবে। যারা দায়িত্ব পায়নি তারা ঘুষ প্রদানের বিষয়টি রটাচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরফদার মাহমুদুর রহমান বলেন, আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা স্থানীয় উপজেলার মানুষ। তার বিরুদ্ধে কোন সদস্য অভিযোগ নিয়ে আসেনি। তার পরেও বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

আপনার মতামত জানানঃ