ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ার আশা

পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ার আশা

September 28, 2016 - 12:45 PM

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে বাংলাদেশের কার্যক্রম আন্তর্জাতিক মানের বলে স্বীকৃতি পাওয়ায় পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে।

এমন আশাই প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান।

বুধবার রাজধানীর বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান ভবনের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স রুমে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ কার্যক্রমের ওপর এশিয়া প্যাসেফিক গ্রুপ অন মানিলন্ডারিং (এপিজি) এর মূল্যায়ন প্রতিবেদন বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলন তিনি এ আশা প্রকাশ করেন।

আবু হেনা হাসান বলেন, ‘কোনো বিদেশি দেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করতে চাইলে আগে দেখেন এপিজির প্রতিবেদন, দেশটিতে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধের কী অবস্থা। আর এবার বাংলাদেশ এপিজি তৃতীয় পর্বের মিউচ্যুয়াল ইভ্যালুয়েশন প্রক্রিয়ার চূড়ান্ত প্রতিবেদনে অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে সফলতা অর্জন করেছে তা প্রকাশ করা হয়েছে। ফলে বাংলাদেশে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) ও পুঁজিবাজারে পোর্টফোলিও বিনিয়োগ আসার ক্ষেত্রে এই প্রতিবেদন খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

তিনি জানান, প্রতিবেদন তৈরিতে এপিজির টিম বাংলাদেশের অতীতের সব বড় ঘটনা, ব্যাংক, বিমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও পুঁজিবাজারের সার্বিক বিষয়ে পর্যবেক্ষণে রেখেছিল। সব কিছু বিশ্লেষণ করেই এই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে এপিজি।

ডেপুটি গভর্নর বলেন, ‘১১টি লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে তিনটিতে বাংলাদেশ উন্নতি করেছে। বাংলাদেশের মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ কার্যক্রম এপিজি এবং এর ৪১টি সদস্য রাষ্ট্র কর্তৃক আন্তর্জাতিক মানের হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, চূড়ান্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুদ্রা পাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে বাংলাদেশ নরওয়ে ও শ্রীলঙ্কা থেকে ভালো অবস্থানে আছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়াসহ অনেক উন্নত দেশের চেয়েও ভালো অবস্থানে আছে বাংলাদেশ।’

গত ৫ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সান ডিয়াগো শহরে এপিজির ১৯তম বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে বাংলাদেশের প্রতিবেদনটি চূড়ান্তভাবে অনুমোদিত হয়। এ প্রতিবেদনের মধ্য দিয়ে রিজার্ভ চুরি ও গুলশান হামলার ঘটনার পর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন রিভিউ গ্রুপ (আইসিআরজি) প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশকে অন্তর্ভুক্ত করার যে আশঙ্কা করা হয়েছিল, তা থেকে পুরোপুরি মুক্ত হলো।

আপনার মতামত জানানঃ