ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালতক্রাইম   »   পাওনা ৫ টাকা ফেরত চাওয়ায় দাদিকে কুপিয়ে হত্যা

পাওনা ৫ টাকা ফেরত চাওয়ায় দাদিকে কুপিয়ে হত্যা

জুলাই ২৩, ২০২০ - ৮:২২ অপরাহ্ণ
কুপিয়ে হত্যা

পাওনা মাত্র পাঁচ টাকা ফেরত চাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে দাদি হেনা বেগমকে কুপিয়ে হত্যা করেন রিপন। বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে রিপন এ কথা জানান।

এরআগে, বুধবার (২২ জুলাই) দুপুরে টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার সেনেরমাকুল্যা গ্রামে রান্না ঘরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন হন হেনা বেগম (৭০)। তিনি ওই গ্রামের তালেব আলী মণ্ডলের স্ত্রী।

পুলিশ জানায়, দুপুরে হেনা বেগম বাড়িতে একা ছিলেন। তার স্বামী ও ছেলে বাড়ির বাইরে ছিলেন। বিকেলের দিকে তারা বাড়ি ফিরে রান্না ঘরে হেনা বেগমের রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পান। পরে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। পরে এ ঘটনায় নিহতের ছেলে অনিক বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুস্তাফিজুর রহমান জানান, বুধবার সন্ধ্যায় এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে একই এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে রিপনকে (২৫) আটক করা হয়। রিপনের বাবা নিহত হেনা বেগমের ভাতিজা। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে রিপন কুপিয়ে হেনা বেগমকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তাদের বাড়ি থেকে হত্যায় ব্যবহৃত দা উদ্ধার করা হয়। রিপন আদালতে জবানবন্দি দিতে রাজি হওয়ায় তাকে বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হয়। পরে তিনি জবানবন্দি দেন। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শামসুল আলম তার জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

জবানবন্দিতে রিপন জানান, তিনি হেনা বেগমের কাছ থেকে কিছুদিন আগে পাঁচ টাকা ধার নিয়েছিলেন। দুপুরে রান্না করার সময় রিপন সিগারেট ধরানোর জন্য তার কাছে আগুন চাইতে যান। হেনা বেগম পাওয়া টাকা চেয়ে কটুক্তি করায় রিপন ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এক পর্যায়ে দা দিয়ে কুপিয়ে হেনা বেগমকে ফেলে রেখে যান।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রিপন টাঙ্গাইল পলিটেকটিক ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থী ছিল। মাদকাসক্ত হয়ে পড়ায় লেখাপড়া শেষ করতে পারেননি। পরে গ্রামেই থাকতেন তিনি।

আপনার মতামত জানানঃ