ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   পশ্চিমা দেশগুলো ফের ক্রুসেড শুরু করতে চায়ঃ এরদোয়ান

পশ্চিমা দেশগুলো ফের ক্রুসেড শুরু করতে চায়ঃ এরদোয়ান

অক্টোবর ২৯, ২০২০ - ১১:০২ পূর্বাহ্ণ

ফ্রান্সসহ ইসলামকে আক্রমণ করা পশ্চিমা দেশগুলো ফের ক্রুসেড বা ধর্মযুদ্ধ শুরু করতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান। তিনি বলেন, কথিত ব্যঙ্গচিত্রের মাধ্যমে যারা আমাদের নবীকে ব্যঙ্গ করার দুঃসাহস করে এমন কলঙ্কিত লোকদের সম্পর্কে আমার কিছু বলার প্রয়োজন নেই। তবে নবীকে যারা আক্রমণ করে কথা বলে তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো আমাদের জন্য সম্মানের বিষয়।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ‘আমরা (মুসলমানরা) এমন এক জাতি যারা কেবল আমাদের নিজের ধর্মকেই নয়, বরং অন্যান্য ধর্মের মূল্যবোধকেও সম্মান করি। আমাদের এই মূল্যবোধকেই এখন লক্ষ্য করা হচ্ছে। তারা যাই করুক না কেন আমরা আমাদের ন্যায়সঙ্গত অবস্থান ত্যাগ করবো না’। দুর্ভাগ্যবশত আমরা এমন এক প্রতিকূল সময় অতিক্রম করছি যখন ইসলাম, মুসলিম ও বিশ্বনবীকে অবমাননা করা হচ্ছে। এটি ক্যানসারের মতো ছড়িয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ইউরোপীয় নেতাদের মধ্যে এমন প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এমনকি ইউরোপীয় দেশগুলো ইসলামের প্রতি এই বিদ্বেষ গোপন করারও কোনও প্রয়োজন বোধ করে না। বুদ্ধিমান ইউরোপিয়ানদের প্রতি অনুরোধ করছি, নিজেদের ও আপনাদের সন্তানদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য এই বিপজ্জনক প্রবণতার বিরুদ্ধে এখনই ব্যবস্থা নিন।’

এর আগে মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের জেরে এক মুসলিম উগ্রবাদী কর্তৃক একজন ইতিহাস শিক্ষককে হত্যার পর থেকেই উত্তপ্ত ফ্রান্স। ওই ঘটনার পর ইসলামিক বিচ্ছিন্নতাবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। এই বিচ্ছিন্নতাবাদ ফ্রান্সে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে। মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন ম্যাক্রোঁ। তার এ ঘোষণায় মুসলিম বিশ্বে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়। ইসলামের প্রতি এমন মানসিকতার জন্য ম্যাক্রোঁর মানসিক চিকিৎসা পরামর্শ দেন এরদোয়ান। সেই সঙ্গে মুসলিম দেশগুলোতে ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক দেওয়া হয়।

এরমধ্যেই বুধবার তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের আপত্তিকর কার্টুন প্রকাশ করে ফ্রান্সের বিতর্কিত ব্যঙ্গাত্মক ম্যাগাজিন ‘শার্লি এবদো’। এ ঘটনায় কঠোর নিন্দা জানিয়েছে আঙ্কারা। ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে এরদোয়ানের অশ্লীল কার্টুন ছাপানো হয়। তুরস্ক বলছে, এটি সাংস্কৃতিক বর্ণবাদ এবং বিদ্বেষ ছড়ানোর ঘৃণ্য প্রচেষ্টা। মামলা করেন ম্যাগাজিনের কর্তৃপক্ষ এবং কার্টুনিস্টের বিরুদ্ধে।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ