ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  বিনোদন   »   পলাশ ও শিমুল অভিনেতা নয় নির্মাতা হতে এসেছে

পলাশ ও শিমুল অভিনেতা নয় নির্মাতা হতে এসেছে

নভেম্বর ২৬, ২০২০ - ৪:৪০ অপরাহ্ণ

সিনেমা নিয়ে প্রচুর ঝোঁক ছেলেটির। দেশ-বিদেশের প্রচুর সিনেমা দেখতেন। তবে অভিনয় করার আগ্রহী হয়নি কখনও। সবসময় চেয়েছিলেন নির্মাতা হতে। সুযোগ খুঁজতেন কীভাবে নির্মাণে আসা যায়। হঠাৎ একদিন কাজল আরেফিন অমির ফেসবুকে পোস্ট দেখলেন, তিনি ‘সহকারী পরিচালক’ খুঁজছেন। ওই পোস্টের সূত্র ধরে আবেদন করেন শিমুল শর্মা। কল আসে সাক্ষাতের। অবশেষে অমির সহকারী হিসেবে কাজের সুযোগ পেয়ে যান! শুরু করেছিলেন নির্মাতার ছয় নম্বর সহকারী হিসেবে।

চ্যানেল আই অনলাইনের সঙ্গে আলাপে মিডিয়ার কাজের সুযোগ আসা প্রসঙ্গে এ গল্প শোনাচ্ছিলেন শিমুল শর্মা। যিনি কাজল আরেফিন অমির সহকারী হালের তুমুল আলোচিত জিয়াউল হক পলাশের পর অভিনয়ে এসেছেন! অমি পরিচালিত ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’র দ্বিতীয় সিজনের শেষ থেকে তৃতীয় সিজনে নিয়মিত অভিনয় করে যাচ্ছেন শিমুল। ইতোমধ্যেই জনপ্রিয় এ সিরিয়ালের মাধ্যমে ‘কাবিলা’ চরিত্র দিয়ে আলোচিত হয়েছেন পলাশ। শিমুলও একটু একটু পরিচিত পাচ্ছেন বলে জানান।

তিনি বলেন, শুরুতে অমি ভাইয়ের ইন্টার্ন সহকারী হিসেবে কাজ করেছি। তখন ছিলাম ছয় নম্বর সহকারী (এডি)। শর্ত ছিল, কাজ যদি ঠিকভাবে করতে পারি তাহলে আমাকে পার্মানেন্ট সহকারী করা হবে। পার্মানেন্ট হতে লেগেছে প্রায় চারমাস। অমি ভাইয়ের সঙ্গে সহকারী হিসেবে প্রথম কাজ ছিল ‘নেটওয়ার্ক বিজি’ নাটকে। ২০১৭ সালের একটি ঈদের জন্য নাটকটি নির্মিত হয়েছিল। অভিনয়ে করেছিলেন মিশু সাব্বির ভাই ও নাদিয়া মিম। তবে এখন আমি ভাইয়ের চিফ এডি।

শিমুল প্রধান সহকারী পরিচালক হলেও পলাশ এখন সহযোগী পরিচালক। সেই সঙ্গে সমানতালে অভিনয়ও করেছেন। শিমুল বলেন, পরীক্ষা এবং অসুস্থতা মিলিয়ে গত সাড়ে তিন বছরে অমি ভাইয়ের দশটির মতো প্রোডাকশনে আমি ছিলাম না। বাকি সব কাজেই সহকারী ছিলাম। এরমধ্যেই ভাইয়ের নাটক দিয়েই অভিনয় করা শুরু। বিভিন্ন নাটকে পাসিং শট প্রয়োজন হতো, দিতাম। তবে সিরিয়াসলি অভিনয় ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ দিয়ে।

তিনি বলেন, কাবিলার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর একটা অংশ রয়েছে ব্যাচেলর পয়েন্ট নাটকের গল্প। এলাকার ছোট ভাইয়ের একটা দৃশ্য দুজনকে দরকার ছিল। একজনকে পাওয়া গেলেও অন্যজন ওই সময়ে পাচ্ছিলাম না। আমার জেলা ফেনী। নোয়াখালীর ভাষার সঙ্গে মিল রয়েছে। ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ সিজন ওয়ানের গ্রামের অংশের শুটিং করছিলাম রাজধানীর কাওলা এলাকায়। হঠাৎ অমি ভাই জিজ্ঞেস করলেন, লুঙ্গি আছে কিনা! তখন কাছে লুঙ্গি ছিল না। উনি ম্যানেজ করতে বলেন। তখন কিছু বুঝে উঠতে পারিনি। লুঙ্গি আনার পরেই উনি আমাকে সেটা পরে অভিনয় করতে বলেন। একটা সংলাপও দিতে হয়েছিল। ওইদিনই ছিল আমার প্রথম অভিনয়!

সিজন ওয়ানের প্রথম এপিসোড ছিল সেটা। পরে আর অভিনয় করা হয়নি। আমি চেষ্টাও করিনি। পিছন থেকে কাজ করতে স্বাছন্দ্যবোধ করেছি। তবে সিজন দুইয়ের ৬৬ এপিসোড থেকে আবার অমি ভাই আমাকে ক্যামেরার সামনে এনেছেন। অভিনয়ে আমার অভিজ্ঞতা হচ্ছে, এটা অনেক কঠিন কাজ। আমার খুব ভয় লাগে।

শিমুলের ভাষ্য, আমি খুবই সামান্য একজন মানুষ। ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নাটকের হাইপ অন্যরকম। যারা অভিনয় করছেন প্রত্যেকেই অনেক ভালো শিল্পী। অমি ভাইয়ের তো তুলনা হয় না। তাদের কারণে নাটকে আছি বলেই মানুষ আমাকেও দেখছেন। রাস্তায় বের হলে দুএকজন মানুষ আমাকে চিনতে শুরু করেছে এটা বুঝতে পারছি। তবে সত্যি কথা বলতে অভিনয় নিয়ে আমার মধ্যে বেশি উত্তেজনা নেই। যা কিছু সব নির্মাণ ঘিরে। অভিনেতা নয়, আমি পলাশ ভাই নির্মাতা হতেই এসেছি।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে সিএসসি’র টুয়েলভ সেমিস্টারে পড়ছেন শিমুল শর্মা। ভবিষ্যতের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, নির্মাতাই হতে চাই। অমি ভাই চেয়েছেন বলেই অভিনয় এসেছি। নইলে আসা হতো না। আমার আনন্দের জায়গা নির্মাণ। যেটা কোনো চাপ মনে হয় না। বরং নতুন গল্প নিয়ে কাজ হলে বেশি ভালো লাগে। অমি ভাই আমার গুরু/বস; এখনও আমি তার উপর নির্ভরশীল। উনি যেদিন আমাকে উপযুক্ত মনে করবেন, অনুমতি দেবেন সেদিন থেকে আমি নির্মাণে পা বাড়াবো।

আপনার মতামত জানানঃ