ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত দিনাজপুরের বিনোদন কেন্দ্রগুলো

পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত দিনাজপুরের বিনোদন কেন্দ্রগুলো

September 27, 2016 - 3:38 PM

সামিউল আলম, দিনাজপুর জেলা বিশেষ প্রতিনিধি:
‘সকলের জন্য পর্যটন, সার্বজনীন পর্যটনের অভিগম্যতা’ -এই প্রতিপাদ্যকে ঘিরে ২৭ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সারা দেশেই পালিত হয়েছে বিশ্ব পর্যটন দিবস। তাই দিনাজপুরের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতেও ছিল পর্যটকদের উঁপচে পড়া ভিড়। জাতীয় উদ্যান রামসাগর, রাজবাড়ি, কান্তজিঁউ মন্দির, সুরা মসজিদ, পোঁড়াবাড়ি, সুখ সাগর, অরণ্যে ঘেরা আশুরার বিল, ঐতিহাসিক সীতার কোট, কাঁচদহ্ ব্রীজ ও স্বপ্নের রাজ্য স্বপ্নপুরীতে দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।
কর্মব্যস্ত জীবনে একটুখানি প্রাণ ভরে নিঃশ্বাস নিতে ছুটে চলেছেন সবাই। এক স্পোট থেকে আরেক স্পোট, তবুও যেন ক্লান্তি ছুঁতে পারছে না তাদের। মনের অনুভুতিগুলো প্রকাশ করতে গিয়ে কেউ কেউ আবার এতটাই উচ্ছসিত যে, কিছু বলার ভাষাই হারিয়ে ফেলেছে। তবে কয়েকটি বিনোদন কেন্দ্রের পরিচ্ছন্নতা, খাবারের গুণগত মান ও ব্যবস্থাপনা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ।
জাতীয় উদ্যান রামসাগরে গিয়ে দেখা গেছে, পর্যটকদের স্বাভাবিক উপস্থিতি থাকলেও অভিযোগ রয়েছে কাঠামোগত সু-ব্যবস্থার। ভেতরে শিশুপার্ক, চিড়িয়াখানা থাকলেও কেবলমাত্র হরিণ ও বানর ছাড়া আর কোন প্রাণীর দেখা মেলেনি। অতি শীঘ্রই সকল সমস্যার সমাধান ও সংস্করণের মাধ্যমে রামসাগর জাতীয় উদ্যানটিকে আকর্ষণীয় করে গড়ে তোলার দাবীও জানান পর্যটকরা। তবে ঐতিহ্যবাহী কান্তজিঁউ মন্দির ঘুরে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন দর্শনার্থীরা।dinaj-pic-2
এদিকে নবাবগঞ্জ উপজেলাধীন আশুরার বিল, সীতার কোট, কাঁচদহ্ ব্রীজ ঘুরে দর্শনার্থীরা বলেন, ঐতিহ্যবাহী স্থান হওয়ায় এসব স্পোট গুলোতে সংস্করণের মাধ্যমে এগুলোর অবকাঠামোগত মান বৃদ্ধি করার দরকার। গুণগত মান বাড়ানো গেলে পর্যটন রাজস্ব খাতে বড় ধরনের একটা সুফল ভোগ করা সম্ভব বলেও মনে করেন তারা।
তবে স্যুটিং স্পোট স্বপ্নপুরীতে গিয়ে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। আনাচে-কানাচে রয়েছে হরেক রকম কসমেটিক্স দোকান আর বাহারি স্বাদের খাবারে সজ্জিত হোটেল-রেস্তোরা ও বিশ্রামাগার। চিড়িয়াখানায় রয়েছে- বাঘ, ভাল্লুক, হরিণ, বানর, উটপাখি, সজারু, তিন পা গরু, বিভিন্ন প্রজাতির সাপ, কুমির, ঘড়িয়াল, তিতিরসহ দৃষ্টি নন্দিত বিচিত্র ধরনের প্রাণী। আরোও রয়েছে- বিশ্বকে জানা সৌরজগত, মেঘের ঘনঘটায় বরফের জগত, প্রাচীন নিদর্শনাবলী, ভূতের বাড়ি, রংধনু তুলি, সুইমিং পুল, স্পিড বোড, প্যাডেল বোড, বিভিন্ন রকমের নাগরদোলাসহ অসংখ্য নিদর্শন। আরো রয়েছে টমটম, যাতে ভ্রমন করে দর্শনার্থীরা ঘুরে দেখছেন পুরো স্বপ্নপুরী।
কর্তৃপক্ষ বলছেন, দর্শনার্থীদের অবাধ ভালোবাসা আর সহযোগীতায় এগিয়ে চলেছে স্বপ্নপুরীর নতুন নতুন সংস্কার কাজ। সামনের দিকে আরো নতুন আঙ্গিকে সাজানো হবে স্বপ্নপুরীকে। এজন্য দর্শনার্থীসহ এলাকাবাসীর সর্বাতœক সহযোগীতারও কামনা করেন কর্তৃপক্ষ।

আপনার মতামত জানানঃ