ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   পদ্মাসেতুর নিচে ৭ ফুট পানি, কাজ করছে ৩ ড্রেজার

পদ্মাসেতুর নিচে ৭ ফুট পানি, কাজ করছে ৩ ড্রেজার

সেপ্টেম্বর ৪, ২০২০ - ১০:৫৬ পূর্বাহ্ণ

পদ্মাসেতুর নিচ দিয়ে চলা চায়নিজ চ্যানেলে পানি আছে ৭ ফুট। এই অবস্থায় নাব্যতা সংকট কাটাতে নিয়োজিত করা হয়েছে তিনটি ড্রেজার।

এখন নাব্যতা সংকট ও তীব্র স্রোতের কারণে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌ-রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে।
বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এর আগে বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। এতে করে ঘাট এলাকায় তিন শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারির জট লাগে। ফেরি বন্ধের খবর জেনে অনেক গাড়ি ঘাট থেকে ফিরেও গেছে।

শিমুলিয়াঘাটের বিআইডাব্লিউটিএর ড্রেজিং কর্তৃপক্ষ বলছে, পদ্মাসেতুর চ্যানেলে তিনটি ড্রেজার নাব্যতা সংকট নিরসনে কাজ করছে। তবে চ্যানেল কখন সচল হবে তা অনিশ্চিত।

বিআইডাব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের উপ মহা ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম জানান, সাড়ে ৬টায় শিমুলিয়াঘাট থেকে ছোট ফেরি কলমিলতা যাত্রী ও যানবাহন নিয়ে রওয়ানা করে। পথিমধ্যে পদ্মাসেতুর পিলারের কাছে পদ্মার চরে নাব্যতা সংকটের কবলে পড়ে। দুর্ঘটনা এড়াতে ফেরিটি ফিরে আসে। কিশোরী নামে একটি ফেরি কাঁঠালবাড়ী ঘাট থেকে ছেড়ে আসে এবং একই স্থানে আটকে পড়ে। পরবর্তীতে উদ্ধারকারী জাহাজ গিয়ে সেটিকে শিমুলিয়া ঘাটে নিয়ে আসে।

তিনি আরও জানান, বিকেল ৩টা পর্যন্ত শিমুলিয়া ঘাটে পারের অপেক্ষায় আছে প্রায় ৩ শতাধিক ট্রাক। বিআইডাব্লিউটিএ চলাচলের জন্য চ্যানেল বুঝিয়ে না দেওয়া পর্যন্ত ফেরি চলাচল করতে পারছে না। শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌ-রুটে ১১টি ফেরি আছে। তবে গত পাঁচদিন ধরে পাঁচ থেকে ছয়টি ছোট ফেরি চলছিল।

বিআইডব্লিউটিএর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (ড্রেজিং) মো. সাইদুর রহমান জানান, পদ্মাসেতুর নিচ দিয়ে চলা চায়নিজ চ্যানেলে ৭ ফুট পানি আছে। নদীর স্রোত তীব্র হওয়ার কারণে ফেরি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চ্যানেলের বাইরে চলে যায় ও চরে আটকা পড়ে। এমনকি স্রোতের টানে ফেরি পদ্মাসেতুর পিলারে গিয়েও আঘাত হানতে পারে। তাই ৬শ ফিট এলাকাজুড়ে ড্রেজিং করছে তিনটি ড্রেজার।

ফেরির চালকরা জানান, এই ঘাট ছেড়ে অন্য রুটে যাওয়ার জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন হবে। ঘাট এলাকায় থাকতে অনেক সমস্যা পোহাতে হচ্ছে।

আপনার মতামত জানানঃ