ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   পঞ্চগড়ে বাঘের হামলা, ছিনিয়ে নিল কৃষকের গরু

আতঙ্কিত এলাকাবাসী

পঞ্চগড়ে বাঘের হামলা, ছিনিয়ে নিল কৃষকের গরু

আগস্ট ২০, ২০২০ - ৭:৪৮ অপরাহ্ণ
পঞ্চগড়ে বাঘের হামলা

পঞ্চগড়ে গরুকে মাঠে ঘাস খাওয়ানো শেষে বাড়ি ফেরার সময় বাঘের হামলার শিকার হয়েছেন কাউছার আলম নামের একজন কৃষক। এসময় ওই কৃষক পালিয়ে প্রাণ বাঁচাতে পারলেও রক্ষা করতে পারেনি তার একমাত্র গরুটিকে।

বাঘের আক্রমণে গরু নিয়ে যাবার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে আশপাশের মানুষ। এদিকে গ্রামে বাঘ আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন সদর উপজেলার মুহুরীজোতসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের দুই শতাধিক পরিবার। বাঘের উপস্থিতিতে আতঙ্কিত না হয়ে নিরাপদে অবস্থান করার জন্য সতর্ক করছেন স্থানীয় প্রশাসনসহ বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেড়া ইউনিয়নের মুহুরীজোত গ্রামের পরিত্যক্ত জঙ্গল ঘেরা একটি চা বাগানে গত কয়েকদিন ধরে চিতাবাঘ দম্পতি ও তিন শাবক আস্তানা গেড়েছে। ইতোমধ্যে চিতাবাঘের শিকার হয়েছে স্থানীয় এক কৃষকের গরু। এছাড়া চা বাগানের আশপাশে বাঘ দম্পতির অবাধ বিচরণ দেখেছে স্থানীয় লোকজন। হঠাৎই লোকালয়ে বাঘের উপস্থিতির সংবাদ পেয়ে স্থানীয় প্রশাসনের পাশাপাশি পঞ্চগড় ও দিনাজপুর বন বিভাগের কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন। দিনাজপুর বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান বলেছেন আমরা বাঘ দম্পতি ও তাদের সাথে থাকা শাবকগুলোকে জীবিত উদ্ধার করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এদিকে গ্রামের চা বাগানে বাঘের উপস্থিতির খবরে স্থানীয়রা ভয়ে দল বেধে চলাফেরা করছে।

কৃষক কাওছার আলম ও প্রত্যক্ষদর্শী রেজাউল জানান, গরুকে বাঘ টেনে নিয়ে যাচ্ছে এমন দৃশ্য দেখে আমি পালিয়ে এসেছি। বাঘকে রাস্তায় ঘুরতে দেখেছে প্রত্যক্ষদর্শী অনেকে।

পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ হোসেন বলেন, চা বাগানের আশপাশে বাঘের উপস্থিতির বিভিন্ন আলামত লক্ষ্য করা গেছে। বনবিভাগ বাঘ শনাক্ত করার জন্য ড্রোন ব্যবহার করে বাঘ ধরা বা নিজ জায়গায় ফেরত পাঠানোর চেষ্টা করছে। গ্রামবাসীদের নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ, গ্রাম-পুলিশসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান বলেন, আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে বাঘ ও শাবকগুলোকে জীবিত উদ্ধার করার।

এদিকে গ্রামবাসীকে বাঘ আতঙ্কে আতঙ্কিত না হয়ে নিরাপদ ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে মাইকিংসহ প্রচারণা চালাচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন।

আপনার মতামত জানানঃ