ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   নীলফামারীর পল্লী বিদ্যুৎ দুর্ঘটনায় আরও একজনসহ ৫জনের মৃত্যু

নীলফামারীর পল্লী বিদ্যুৎ দুর্ঘটনায় আরও একজনসহ ৫জনের মৃত্যু

September 4, 2016 - 1:21 PM

মহিনুল ইসলাম সুজন,জেলা প্রতিনিধি নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ উপজেলার গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের খামার গাড়াগ্রাম গ্রামে পল্লী বিদ্যুতের তার ছিড়ে দুর্ঘটনায় আহতদের মধ্যে তাহেরা বেগম (৪৫) নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। তাহেরা বেগম খামার গাড়াগ্রামের মহুবার রহমানের স্ত্রী। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাড়ালো পাঁচ জনে
আজ রবিবার দুপুর সোয়া একটার দিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। তাহেরা বেগমের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করেন কিশোরীগঞ্জ থানার ওসি বজলুর রশীদ।
চলতি বছরের গত ২১ আগষ্ট রাত আটটার দিকে ওই গ্রামের বিপ্লব হোসেনের ঘরের ওপর পল্লী বিদ্যুতের ৩৩ হাজার সরবরাহ লাইনের তার ছিড়ে পড়লে ওই দুর্ঘটনা ঘটে।
ওই ঘটনায় ঘটনাস্থলে নিহত হন গ্রামের জাবেদ আলীর ছেলে সাজেদুর রহমান (৩০) ও হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান কফিল উদ্দিনের ছেলে তারিকুল ইসলাম (২৮)।
আহত আরও ১০ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ২৩ আগষ্ট সকালে নাইম (১৫), ২৭ আগষ্ট মোসাব আলী (৬০) এবং সর্বশেষ  ৪ সেপ্টেম্বর  দুপুরে তাহেরা বেগম চিকিৎসাধীন অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেলেন।
সেদিনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত রংপুরে চিকিৎসাধীন আছেন তিন জন। এরা হলেন, বিপ্লব হোসেন (৩০), রেজাউল করিম বাবু (২৬) ও মাজু (২২)। অন্য আহতরা সুস্থ্য হয়ে ঘরে ফিরেছেন।
গত ২১ অগষ্ট রাত সারে সাতটার দিকে গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের খামার গাড়াগ্রাম গ্রামের বিপ্লব হোসেনের ঘরের ওপর পল্লী বিদ্যুতের সরবরাহ লাইনের তার ছিড়ে পড়ে। এসময় বিপ্লব হোসেনের স্ত্রী রাশিদা বেগম বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘরের মেঝেতে পড়ে যান। আশপাশে আগুন জ্বলতে থাকে। তার চিৎকারে প্রতিবেশিরা পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের অভিযোগ কেন্দ্রে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করান।
বিপ্লব হোসেনের স্ত্রীকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়ে প্রতিবেশিদের নিয়ে আগুন নেভাতে ঘরের ভেতর ঢোকেন স্থানীয়রা। ঘটনার প্রায় আধা ঘণ্টা পর আবারও কয়েক সেকেন্ডের জন্য বিদ্যুত সরবরাহ চালু হলে  ওই ঘরে প্রবেশকারীদের মধ্যে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যান সাজেদুর রহমান বাবু, আহত হন ১১জন, আহতদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তারিকুল ইসলাম।
পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সুত্র মতে, ঘটনার পর দায়িত্বে অবহেলার কারনে সেখানকার টেপার হাট অভিযোগ কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফারুক আহম্মেদ ও লাইনম্যান রুবেল হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।
একই ঘটনায় নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মহা ব্যবস্থাপক ইনসের আলীকে পরদিন ২২ আগষ্ট সাময়িক বরখাস্ত করে উচ্চ পর্যায়ের তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড। তদন্ত শেষে ঢাকা ফিরে ওই কমিটি উপ মহাব্যবস্থাপক মকছেমুল হাকিম ও প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলমকেও সাময়িক বরখাস্ত করেন।

আপনার মতামত জানানঃ