ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   নীলফামারীর জেলাজুড়ে পানির দরে পশুর চামড়া!!

নীলফামারীর জেলাজুড়ে পানির দরে পশুর চামড়া!!

September 15, 2016 - 2:47 PM

মহিনুল ইসলাম সুজন,জেলা প্রতিনিধি নীলফামারীঃঃ– চামড়া সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে পানির দামে কোরবানী ঈদের পশুর চামড়া বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে নীলফামারী জেলাসহ ছয় উপজেলার পশু কুরবানি দেয়া মানুষদের। ৫ হাজার হতে ১৬ হাজার টাকা মূল্যের খাঁসীর চামড়া ২০ টাকা থেকে ৫০ টাকা। আর ৭০ হাজার হতে ৩৫ হাজার টাকা মূল্যে গরুর চামড়া ৬০০ থেকে ৪০০ টাকা।
ঈদের দিন মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুর থেকে বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ঘুরে দেখা যায় খুচরা ব্যবসায়ীরা এই দামেই চামড়া কিনছে। কেউ কেউ চামড়ার দামে মন্দা দেখে গোটা চাপড়া বিভিন্ন এতিমখানা ও হাফিজিয়া মাদ্রাসায় দান করে দিয়েছে।
খুচরা ব্যবসায়ীরা জানায় আমরাওতো বলির পাঠা। আমাদের হাতে কিছু নেই। চামড়া কিনে লাভ হয় ৫০ টাকা। সিন্ডিকেটতো হয় চামড়ার আড়ৎদার হতে ট্যানারি মালিক কর্তৃক। আর সিন্ডিকেটের বাইরে চামড়া বিক্রিও কঠিন হয়ে পড়ে।
সরকার গরুর চামড়া ঢাকার বাইরে বর্গফুট প্রতি ৪০ টাকা নির্ধারণ করেছে। তবে এ দামে চামড়া কিনলে প্রতি পিস চামড়ার দাম হয় ৬শত থেকে ৭শত টাকা। তাই বাধ্য হয়েই গরুর মালিকদের কম দামে বিক্রয় করতে হয়েছে, বলেও জানান ডিমলা উপজেলার কুদ্দুস ও নীলফামারী সদরের খুচরা চামড়া ব্যবসায়ী মোমিন। অপর খুচরা ব্যবসায়ী লিয়াকত বলেন, সরকারের দেওয়া নির্ধারণ করা দামে চামড়া ক্রয় করা সম্ভব হয়নি।
কোরবানীর চামড়া বিক্রি করেন এমন একজন কোরবানীদাতা রামনগর গ্রামের তৈয়ব আলী সরকার জানান, তিনি কোরবানীর গরু কিনেছেন ৫৫ হাজার টাকায়। আর চামড়া বিক্রি করলেন ৪০০ টাকায়। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন কোরবানীর গরু কিনলাম চড়া দামে আর চামড়া বেচলার পানির দামে। সব খড়ক যেন আমাদের উপর। শহরের স্টাফ কোয়াটার মহল্লার খোকন জানান তিনি ১০ হাজার টাকায় দুটি খাঁসী কোরবানী দেন। আর চামড়া দুটি বিক্রি করেন মাত্র ২০ টাকায়।
নীলফামারী সদরের সবুজ পাড়ার জুয়েল জানান, চামড়ার দাম শুনে আর কিছুই প্রকাশ করতে পারিনি। তাই গরুর চামড়াটি হাফিজিয়া মাদ্রাসায় দান করে দিয়েছি।
ডিমলা সদরের আঃ রাজ্জাক জানান,চার হাজার টাকায় একটিখাসি ছাগল কিনে কুরবানি দিলেও চামড়াটি বিক্রির উদ্দেশ্যে একাধিক চামড়া ব্যবসায়ীর দারে দারে ঘুরে মুল্যের কথা জেনেছি ১০ ও ২০ টাকার।তাই রাগ করে এক ব্যবসায়ীকে এমনিতেই ওই খাসির চামড়াটি দিয়ে দিয়েছি।
আবার অনেকে জানান তারা এখনও পশুর চামড়া বিক্রি করতে পারেননি।কেউ কেউ অভিযোগ করে জানান চামড়া ব্যবসায়ীদের পিছনে পিছনে ধান্ধা দিয়েও তারা না নেবার কারনে অবিক্রিতই রয়ে গেছেন তাদের কুরবানিকৃত পশুর চামড়া।
জেলার ছয়টি উপজেলার প্রত্যেত উপজেলাতে একই দশা বলে নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা গেছে।

আপনার মতামত জানানঃ