ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   নির্মাণের ১০ দিন পরেই ধসে পড়ছে সড়ক

নির্মাণের ১০ দিন পরেই ধসে পড়ছে সড়ক

আগস্ট ২৮, ২০২০ - ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ
সড়ক

নিম্নমানের ইট, বালি, কার্পেটিং দিয়ে কোনো রকম তৈরি করা হচ্ছে কোটি কোটি টাকার বরাদ্দকৃত গ্রামীণ উন্নয়ন সড়ক। যার কারণে নির্মাণের কয়েকদিনের মধ্যেই ভেঙে পড়ছে অধিকাংশ সড়ক। ঠিকাদারদের এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে নেওয়া হচ্ছে না কোনো রকম পদক্ষেপ। স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রয়োজনীয় তদারকির অভাবে সড়ক নির্মাণে দুর্নীতির সুযোগ নিচ্ছে ঠিকাদাররা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কয়েকমাস আগে এলজিইডির জিডিবি ৪ প্রকল্পে প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের সানের বাড়ি স্কুল থেকে শরিফখান মাজার সড়কের ২ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ কাজ করা হয়। সড়কটি নির্মাণের ১০ দিনের মধ্যে ধসে পড়ে এর অধিকাংশ স্থান। নিম্নমানের কাজের কারণে সড়কটির এই বেহাল অবস্থা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন সড়কের পাশে বসবাসরত বাসিন্দারা।

সানের বাড়ি গ্রামের মকবুল হোসেন জানান, করোনার শুরুতে সড়কটি নির্মাণের কাজ শুরু হয়। ঠিকাদার কামাল হোসেন নিম্নমানের ইট ও কার্পেটিং ব্যবহার করে কোনো রকম করে সড়কটি নির্মাণ করেন। যার কারণে নির্মাণের ১০ দিনের মধ্যে সড়কের অনেক স্থান ধসে পড়ছে। দীর্ঘদিন ধরে সড়কটি বেহাল অবস্থায় পড়ে থাকলেও কোনো খোঁজখবর নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদার কামাল হোসেন জানান, বৃষ্টির কারণে সড়কের কিছু স্থান ধসে যায়। যা পরবর্তীতে ঠিক করে দেয়া হবে।

খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, ঠিকাদার কামাল হোসেনের নির্মিত অধিকাংশ সড়কই নিম্নমানের হওয়ায় নির্মাণের কিছুদিনের মধ্যে তা ভেঙে যায়। গত বছর জিনারদীর গাবতলী গ্রামে নির্মিত সড়কটি উদ্বোধনের আগেই ধসে পড়ে। পরে স্থানীয়দের তোপের মুখে পুনরায় সংস্কার করেন ঠিকাদার কামাল হোসেন। এ দিকে ঠিকাদারদের দ্বারা একাধিক সড়কের বেহাল অবস্থা হলেও এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে কোনো প্রকার ব্যবস্থা নেয়নি।

এসব বিষয়ে জানতে পলাশ উপজেলা প্রকৌশলী রিয়াদুল কুদ্দুসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

তবে এলজিইডি নরসিংদীর নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ মো. আবু জাকির সেকান্দার বলেন, নিম্নমানের কাজের ওপর কোনো ঠিকাদারকে ছাড় দেওয়া হবে না। বিষয়গুলো খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত জানানঃ