ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   নালিতাবাড়ী টিডব্লিউএ কমিটির বিরোদ্ধে যড়যন্ত্র আদিবাসী নেতাদের প্রতিবাদ

নালিতাবাড়ী টিডব্লিউএ কমিটির বিরোদ্ধে যড়যন্ত্র আদিবাসী নেতাদের প্রতিবাদ

October 10, 2016 - 1:35 PM

শেরপুর প্রতিনিধি ঃ শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার ট্রাইবাল ওয়েরফেয়ার এসোসিয়েশন (টিডব্লিউএ) কমিটির সদস্যদের বিরোদ্ধে কিছু কুচক্রী মহল বিভিন্ন ভাবে যড়যন্ত্র করে যাচ্ছে বলে আদিবাসী নের্তৃবৃন্দ এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
টিডব্লিউএ সূত্রে, সংগঠন ও গঠনতন্ত্রের নিয়ম অনুযায়ী প্রতি ৩ বছর অন্তর টিডব্লিউএ এর কার্যকরী পরিষদের নিবার্চন অথবা কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক উপজেলা কমিটি নবায়ন হওয়ার কথা। সে অনুযায়ী সংগঠনটি ৩বছর অতিক্রম করে এবং পরর্বতীতে কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক সংগঠনটির বর্তমান কমিটি নবায়িত হয়। বর্তমান নবায়িত কমিটি দ্বারা এই ট্রাইবাল সংগঠনটি পরিচালিত হচ্ছে। ইতি মধ্যে মেয়াদ উত্তির্নের সূত্র ধরে বর্তমান টিডব্লিউএ কমিটির চেয়ারম্যান লুইছ নেংমিনজা কে বির্তকিত করতে কুচক্রী মহল তাদের স্বার্থ ও নিজেদের অবস্থান শক্ত করতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ইতি মধ্যে ঐ মহলটি একদিকে নিবার্চনের দাবী, ওয়ারিশান সনদ ও নানা ঠুনকো কথা বলে অপ্রচলিত বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় নানা ভাবে বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ ও অর্থ খরচ করে চলেছে বলে জানিয়েছে নালিতাবাড়ী টিডব্লিউএ। ১৯৮০-২০১৩ সালের ২০ জন পর্যন্ত প্রায় ৩৩ বছর একাধারে ওই সময়ে নালিতাবাড়ী উপজেলায় টিডব্লিউএ চেয়ারম্যান ছিলেন কোপেন্দ্র নখরেখ। এরপর ২০১৩ সালের ২৮ জুন ট্রাইবাল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে লুইছ নেংমিনজা সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে নিবার্চিত হন। এরপর থেকেই একটি মহল তার বিরোদ্ধে নানা যড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকে। এদিকে লুইছ তার পরিষদ নিয়ে সংগঠনকে কেন্দ্রীয় সংগঠনের আওতায় এনে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির নিকট আবেদন করে। ঐ আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১৪ সালের ২১ ফেব্র“য়ারী এই কমিটি কেন্দ্রীয় কমিটির আওতায় আনা হয়। এরপর হতেই স্বার্থনেষী মহল কেন্দ্রীয় নির্দেশনা উপেক্ষা করে নবায়নকৃত কমিটির সিদ্ধান্ত না মেনে নির্বাচনের দাবীতে বিভিন্ন মহলে পত্র চালাচালি করে বিভ্রন্তির চেষ্টায় লিপ্ত। এদিকে ৮ অক্টোবর বর্তমান নালিতাবাড়ী উপজেলা টিডব্লিউএ এর চেয়ারম্যান লুইছ নেংমিনজার সভাপতিত্বে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন, ভাইস চেয়ারম্যান প্রাঞ্জল দ্রং, সাধারন সম্পাদক লরে দ্রং, কোষাধাক্ষ্য সুখেন্দ্র বর্মন, সাংগঠনিক সম্পাদক লিটন দেব সেন, কার্যকরী সদস্য সুদিপ ডালু, বন্দনা হাজং, মলিন কোচ, মাইকেল দ্রং প্রমুখ।
এ ব্যাপারে টিডব্লিউএ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক স্বর্নকান্ত হাজং সাংবাদিকদের বলেন, সারাদেশে আমাদের তো একটি মাত্র শাখা নয়। সারাদেশে ৪১টি শাখা রয়েছে। মন্ত্রী থাকতে সিদ্ধান্ত হয় প্রত্যেক শাখায় সাধারন সভা আহবান করে নিবার্চনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করে কেন্দ্রীয় কমিটিতে জমা দিতে হবে। ঐ সময় নালিতাবাড়ী থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান লুইছের নেতৃত্বাধীন একটি কমিটি জমা দেওয়া হয়। পরর্বতীতে ২৬ আগষ্ট অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় সভায় সকল কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচন আহবান না করা পর্যন্ত এ কমিটিই বহাল থাকবে। এজন্য খুব শীঘ্রই একটি ক্ষমতাপত্র জেলার জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিল্ট সকল দপ্তরে প্রেরন করা হবে।
বর্তমান নালিতাবাড়ী টিডব্লিউএ কমিটির চেয়ারম্যান লুইছ নেংমিনজা বলেন, শৃংখলা মেনে সংগঠন পরিচালনা করার পরও একটি মহল যেভাবে উঠে পড়ে লেগেছে তা মোটেও কারো কাম্য নয় এটা অতিরঞ্জিত। নিয়মের বাইরে কিছুই করিনি। সংগঠন ও ব্যাক্তি বিরোধী মন্তব্য করার পূর্বে নিজের অতীত মনে করা দরকার।

আপনার মতামত জানানঃ