ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   নাব্যতা সংকটে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া, জেগে উঠছে ডুবোচর

মালবাহী ট্রাকজটে এলাকাবাসী নাকাল

নাব্যতা সংকটে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া, জেগে উঠছে ডুবোচর

সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২০ - ১:৪৮ পূর্বাহ্ণ

আমিনুল ইসলাম, জেলা প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জঃ পদ্মা-যমুনায় অস্বাভাবিক হারে পানি কমে যাওয়ায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে অসংখ্য ডুবো চরের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিনিয়ত জেগে উঠছে নতুন নতুন চর। ফলে ক্রমশ সরু হয়ে পড়ছে নৌ-চ্যালেন।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা অফিসের ডিজিএম (কম) মোঃ জিল্লুর রহমান ক্রাইম পেট্রোল বিডিকে জানান, চলতি ভরা মৌসুমে ১৯টি রো-রো ও কে-টাইপ ফেরি দিয়ে বাস, মিনিবাস, পন্যবাহী ট্রাক-লড়ি প্রাইভেট কার সহ সহ ধরনের যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে পাটুরিয়া দৌলত-দিয়া নৌ-রুটে। ডুবোচরে আটকে পড়ার শংকায় বড় আকারের রো-রো ফেরি ধৗর গতিতে চলাচল করতে হচ্ছে। যে কারণে পাটুরিয়া ও দৌলতদিয়া ঘাটের উভয় পাড়ে অসহনীয় যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

পাটুরিয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির বরাত দিয়ে আরিচা প্রতিনিধি শাহরিয়ার আহম্মেদ রমজান জানান, যানবাহনের চাপ বেড়ে গেলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দুরপাল্লার কোচ, শিশু খাদ্যবাহী ও পচঁনশীল পন্যবাহী ট্রাক-পিকআপ ও প্রাইভেট কার পারাপার করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উথুলি মোড় থেকে আরিচা অংশের এক পাশে পন্যবাহী ট্রাক ঘন্টার পর ঘন্টা পার্কিং করে রাখা হয়। এতে যানজট নিত্যনৈমত্তিক ব্যাপারে দাড়িয়েছে। বিপাকে পড়েছে ঐ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী পাবনা সিরাজগঞ্জ জেলার অগনিত যাত্রী সাধারন। পাশাপাশি নিহালপুর, তেওতা জাফরগঞ্জ সহ আরিচা ঘাটের আশ-পাশের কমপক্ষে ১২ গ্রামের বাসিন্দা। নিহালপুর গ্রামের আঃ হাই জানান, মহাসড়কের এক পাশে সারিবদ্ধ ট্রাকের লাইনের কারণে অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে যাত্রীবাহী সব ধরনের যানবাহন। চরম ভোগান্তিতে নাকাল নারৗ-শিশু সহ যাত্রী সাধারন।

এদিকে বিআইডবিøউটিসি’ আরিচা অফিসের এজিএম (কম) খন্দকার মুহমমদ তানভীর হোসেন জানান , ফেরিপারাপার স্বাভাবিক রাখতে তিনটি শিফটে বিভক্ত হয়ে ৪৫ জন কর্মচারী রাতদিন কাজ করছে। নিয়োজিত রয়েছে। ১৫ জনের প্রতিটি টীমে রয়েছে একজন করে তদারকি কর্মকর্তা (টিএস)। এরা হলেন, মাযহারুল ইসলাম, মোঃ ইজ্জত আলী ও ররিউল হাসান তাহেরৗ। তারা পর্যায় ক্রমে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সুচারু রুপে কর্ম পরিচালনা করছে। সুত্র জানায়, পারাপারের ক্ষেত্রে বড় ট্রাক- ১৪৬০ টাকা, ছোট ট্রাক- ১০৬০টাকা, বড় বাস ১৮২০ টাকা, মিনিবাস ৯০০ টাকা, মাইক্রোবাস ৮০০টাকা, প্রাইভেটকার ৪৫০টাকা ও মোটর সাইকেল পারাপারের জন্য সরকার নির্ধারিত ৭০ টাকা আদায় করা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানানঃ