ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইমপ্রধান সংবাদ   »   নরসিংদীতে আইনের অপব্যবহারে ৩ সদস্যের ভুয়া চক্রের মামলা বাণিজ্য

নরসিংদীতে আইনের অপব্যবহারে ৩ সদস্যের ভুয়া চক্রের মামলা বাণিজ্য

মার্চ ৯, ২০২০ - ১:৫৪ অপরাহ্ণ

মোঃ সিজান খাঁন সোহাগ অনুসন্ধানী রিপোর্টারঃ নরসিংদীতে আইনের অপব্যবহার করে ভুয়া গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে ভয়ঙ্কর ফাঁদ পাতা প্রতারক চক্র ভুক্তভোগীদের বিরদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করছে। আর মামলা করে প্রতারক চক্রটি আপোষের নামে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করছে। এসব মামলা তদন্ত নিয়ে পুলিশও বিপাকে পড়েছে।

প্রতারক চক্রের হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে ভুক্তভোগীরা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে আবেদন করেছেন। নরসিংদী জেলার রায়পুরা, নরসিংদী সদর থানায় মিথ্যা মামলা দায়েরের অভিযোগ রয়েছে। আবার অনেক ক্ষেত্রে চক্রটি সরাসরি আদালতে মামলা দায়ের করার পর তা থানায় তদন্তে আসলে বিষয়টি সাজানো বলে পুলিশের তদন্তে প্রমাণ মিলে।

এদিকে এই প্রতারক চক্রের মূল হোতা শফিকুল ইসলাম মতি, লায়ন সরকার সহ আরো একাধিক মহিলা। শুধু তাই নয় এই শফিকুল ইসলাম ৮ম শ্রেণি পড়াশুনা করে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে দীর্ঘ দিন যাবৎ মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছে। তার বিরদ্ধে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে একাধিক অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। এই প্রতারক চক্রের বিরদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫ ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয় নরসিংদী আদালতে। মামলাটি চলাকালীন সময়ে বাদীর নিকট আকুল মিনতি করে মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পরই বিভিন্ন মানুষকে ভাড়া করে বাদীর বিরদ্ধে একাধিক মামলা করেছে।

প্রতারক চক্রের অন্যতম ও মলম পার্টির প্রধান সদস্য হিসেবে ব্যাপক পরিচিক লায়ন সরকার নরসিংদীতে বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে আসছে। তাছাড়া প্রতারণার ফাদে পড়া এক ভুক্তভোগী জানান যে, লায়ন সরকারের বিরুদ্ধে নরসিংদী পুলিশ সুপার সহ কোর্ট আদালতে একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে লায়ন সরকার নিজে বাদী হয়ে নরসিংদী আদালতে ১টি মিথ্যা ডাকাতি মামলা দায়ের করেছে। উক্ত মামলায় বলা হয় যে, নরসিংদী মোসলেহ উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে ডাকাতি হয়। কিন্তু উক্ত জায়গার দোকানদাররা এই মামলার বিষয়ে কিছুই জানে না। দোকানদাররা তাকে অজ্ঞান পার্টির সভাপতি হিসেবে চিনে।

অপরদিকে এই চক্রের অন্যতম সদস্য আয়েশা খাতুন বিভিন্ন মাদক দ্রব্য সহ ফেন্সিডিলের ব্যবসা করায় এলাকার লোকজন তাকে এলাকা থেকে বিতাড়িত করে। বর্তমানে সে হাসনাবাদ বাজারে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করছে।

উক্ত চক্রের আরেক সদস্য সফিকুল ইসলাম মতি নরসিংদীতে নারী কেলেঙ্কারি সহ একাধিক অভিযোগের সাথে জড়িত রয়েছে।

নরসিংদী জেলার আইনজীবী সমিতির সদস্য ও দৈনিক সংবাদ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধ আবদুল হান্নান ভূইয়া বলেন, ভুয়া মিথ্যা মামলা দায়ের করে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করার অপরাধে সর্বোচ্চ ৭ বছরের জেল হতে পরে। এছাড়া পৃথক আইনে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সাধারণ মানুষদের হয়রানি করার জন্য অভিযুক্তদের ৫ বছর সাজা দেয়ার বিধান রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ