ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রধান সংবাদ   »   নতুন যুগের সূচনা বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কে

নতুন যুগের সূচনা বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কে

October 15, 2016 - 7:50 AM

ডেক্সঃ:দুদিনের সফর শেষে ভারতের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। এর আগে এই সফরকালে বাণিজ্য, বিনিয়োগ, অবকাঠামো উন্নয়ন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ, সমুদ্রসীমা রক্ষায় ঢাকা-বেজিং একযোগে কাজ করার প্রত্যয় করেছেন শি জিনপিং।

এই সফরের প্রাপ্তি হিসেবে, এখন থেকে বাংলাদেশ ও চীন দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সহযোগিতা জোরদার করবে। দুই দেশের মধ্যে অংশীদারিত্বমূলক সম্পর্ক এখন কৌশলগত সম্পর্কে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়া ও ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ‘গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার’ বলে মনে করে চীন। দেশটিকে ‘এক চীন নীতি’তে বাংলাদেশ জোরালো সমর্থন দিয়েছে। এছাড়া উপকূলীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, কর্ণফুলী টানেল নির্মাণসহ অবকাঠামো উন্নয়ন ও সহযোগিতার বিভিন্ন ক্ষেত্রে ২৭ চুক্তি ও সমঝোতা স্মারকে সই করেছে বাংলাদেশ ও চীন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে একান্ত বৈঠকে এসব আলোচনা হয়। সে সময় দুই দেশের প্রতিনিধি দলও দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নেয়। বৈঠক শেষে দুই শীর্ষ নেতার উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ২৭টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রথম চীনকেই পাশে পেল বাংলাদেশ। চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ঢাকা সফরে একটি বৃহৎ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ঋণ চুক্তির সঙ্গে দুটি কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন। জ্বালানি বহুমুখীকরণে চীনের এই সহায়তা বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

উৎপাদন ছাড়াও সঞ্চালন এবং বিতরণ মিলিয়ে বিদ্যুৎখাতে চীনের সঙ্গে ৪ দশমিক ৭৭৪ বিলিয়ন ডলারের ঋণ চুক্তি সই হয়েছে শুক্রবার। এছাড়া উভয় দেশ নবায়নযোগ্য জ্বালানি সম্প্রসারণের ক্ষেত্র উন্মোচিত করতে সমঝোতায় পৌঁছেছে।

শুক্রবার বিকেলে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর্দা সরিয়ে দুটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এর মধ্যে একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রর নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে পটুয়াখালীর পায়রায় শুরু হয়েছে। চীন ও বাংলাদেশের সমান অংশীদারিত্বের কোম্পানি বাংলাদেশ চায়না পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার কেন্দ্রটি নির্মাণ করছে। কেন্দ্রটি নির্মাণে চীনের এক্সিম ব্যাংক ঋণ দিচ্ছে। অন্য বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি নির্মাণের জন্য দেশের বেসরকারি শিল্প উদ্যোক্তা এস আলম গ্রুপ চীনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করেছে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির উৎপাদন ক্ষমতা হবে এক হাজার ২২৪ মেগাওয়াট। কেন্দ্রটি নির্মাণের জন্যও চীন থেকেই ঋণ সহায়তা পাওয়া যাবে বলে মনে করছে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান।

কর্ণফুলীর তলদেশে টানেল, আনোয়ারায় চীনা ইকোনমিক জোন ও সীতাকুণ্ড থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত মেরিন ড্রাইভ এখন আর স্বপ্ন নয়। বাস্তবে রূপ পেতে যাচ্ছে শি জিনপিং ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভিত্তি স্থাপনের মধ্য দিয়ে।

শুক্রবার ঢাকার গণভবন থেকে যৌথভাবে এই প্রকল্পগুলোর ভিত্তি স্থাপন সম্পন্ন হয়েছে। একইদিনে বাঁশখালীতে বেসরকারি খাতে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনে অর্থায়নের বিষয়ে ঋণচুক্তিও স্বাক্ষরিত হয়। ২০২০ সালের মধ্যে এই প্রকল্পগুলো কাজ শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে সরকার। আর এই চারটি বড় প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বদলে যাবে চট্টগ্রাম। রাজধানীর গণভবনে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বহুল প্রত্যাশার অবসান ঘটেছে বৃহত্তর চট্টগ্রামবাসীর। চীনের প্রেসিডেন্ট এসে স্বপ্নবিলাসী এই প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করবেন এমনই প্রতীক্ষা ছিল এতদিন। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই কর্ণফুলীর টানেল নির্মাণের কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে জানা গেছে প্রকল্প বাস্তবায়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সূত্রে। চট্টগ্রামকে ঘিরে সরকারের যে মহাপরিকল্পনা ছিল সেটি যে কেবলই মুখের কথা নয় তা প্রমাণ হলো চীনা প্রেসিডেন্টের উপস্থিতিতে ভিত্তিস্থাপন ও চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে।

কর্ণফুলী টানেল বাস্তবায়িত হলে চট্টগ্রাম পরিণত হবে চীনের সাংহাইয়ের আদলে ওয়ান সিটি টু টাউনে। শুধু তাই নয়, এর মধ্য দিয়ে সমুদ্র পাড় দিয়ে যোগাযোগ স্থাপিত হতে যাচ্ছে সৈকত নগরী কক্সবাজারের। উদ্বোধন হয়ে গেছে সীতাকুণ্ড থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ৩শ’ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভ সড়ক এবং উপকূল রক্ষা বাঁধ নির্মাণের প্রকল্পও। মীরসরাইয়ে দেশের বৃহত্তম ইকোনমিক জোনকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় মেরিন ড্রাইভ নির্মাণের প্রক্রিয়া ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। ফলে দীর্ঘ এই মেরিন ড্রাইভের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে মীরসরাই এবং সংলগ্ন ফেনী জেলার সোনাগাজীও।

এদিকে, এখন থেকে গার্মেন্টস, ওষুধ, চামড়া ও সেবা খাতে বিনিয়োগ করবেন চীনা ব্যবসায়ীরা। জিনপিংয়ের সঙ্গে আশা চীনা ব্যবসায়ী ও বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে এমন আলোচনা হয়েছে। চীনের ১৩ কোম্পানির সঙ্গে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের ১৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারের ১৩ চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। চুক্তির আওতায় অবকাঠামো উন্নয়নসহ বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, ওষুধ, সিরামিক, চামড়া এবং সেবা খাতে চীনের ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করবেন।

সব মিলিয়ে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের এই সফরে বাংলাদেশের নতুন এক সম্ভাবনার শুরু হতে যাচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার সকালে ঢাকায় পৌঁছান তিনি। ঢাকায় আসার পর এক বিবৃতিতে শি জিনপিং বলেন, তার দেশ বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়া ও ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার বলে মনে করে। পারস্পরিক রাজনৈতিক আস্থার সম্পর্ককে আরও মজবুত করতে বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করার জন্য তারা প্রস্তুত। তিনি বলেন, ‘দুই দেশের সহযোগিতার সম্পর্ককে আমরা আরও উঁচুতে নিয়ে যেতে চাই।’

চীনের প্রেসিডেন্ট বিকেল তিনটায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছলে শেখ হাসিনা তাকে স্বাগত জানান। এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একান্ত বৈঠকে অংশ নেন দুই নেতা। পরে দুই দেশের প্রতিনিধিরা দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে বৈঠকে বসেন। বৈঠকের পর হয় চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান। ‘ওয়ান বেল্ট, ওয়ান রোড’ নীতি ধরে এগিয়ে যাওয়া চীনের সহযোগিতা সম্প্রসারণের অংশ হিসেবে শি জিনপিংয়ের এ ঢাকা সফর। ১৯৮৬ সালে লি শিয়াননিয়ানের পর বাংলাদেশে আসা প্রথম চীনা রাষ্ট্রপ্রধান তিনি।

তিন দশকের মধ্যে চীনের প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বাংলাদেশে এসেছেন শি জিনপিং। তিনি কম্বোডিয়া থেকে ঢাকায় আসেন। শি জিনপিংকে বহনকারী এয়ার চায়নার স্পেশাল ভিভিআইপি ফ্লাইট ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় শুক্রবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে। ১২টা ৪ মিনিটে বিমান থেকে নেমে এলে তাকে স্বাগত জানান বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট মোঃ আবদুল হামিদ।

আপনার মতামত জানানঃ