ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   ধনেপাতা এর যত উপকারীতা!

ধনেপাতা এর যত উপকারীতা!

জুলাই ২১, ২০২০ - ৪:৪১ অপরাহ্ণ

ধনেপাতা খেলে শরীরে খারাপ কোলেস্টরলের মাত্রা কমে যায়, ভাল কোলেস্টরলের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। হজমে উপকারী, যকৃতকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে এবং পেট পরিষ্কার হয়ে যায় ধনে পাতা খেলে।

বাঙালির এমন কোন রান্না নেই যেখানে তার উপস্থিতি নেই। কি ডালে, তরকারিতে, মুড়ি মাখা থেকে শুরু করে ফুচকায় – সবখানেই তার উপস্থিতি। শুধু স্বাদে নয়, ধনেপাতার স্বাস্থ্যগুণও অনেক বেশি ৷ চিকিৎসকরা বলছেন, রোজ ধনেপাতা খেলে অনেক রোগ দূর হবে তাড়াতাড়ি৷

আসুন জেনে নিই প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে ধনে পাতা খেলে কী হয়:

প্রতিদিন ধনেপাতার শরবত খেলে কিডনির স্বাস্থ্য ভালো থাকে। কিডনির মধ্যে জমে থাকা ক্ষতিকর লবণ এবং বিষাক্ত পদার্থ প্রস্রাবের মাধ্যমে বেরিয়ে যায়। ধনেপাতা খেলে শরীরে খারাপ কোলেস্টরলের মাত্রা কমে যায়, ভালো কোলেস্টরলের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। হজমে উপকারী, যকৃতকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে এবং পেট পরিষ্কার হয়ে যায় ধনেপাতা খেলে। ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্য ধনেপাতা বিশেষ উপকারী একটি খাবার।

এটি ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং রক্তের সুগারের মাত্রা কমায়। ধনে পাতায় থাকা অ্যান্টি-সেপটিক মুখে আলসার নিরাময়েও উপকারী, চোখের জন্যও ভালো।

ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্য ধনেপাতা বিশেষ উপকারী একটি খাবার। এটি ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং রক্তের সুগারের মাত্রা কমায়। ধনেপাতায় থাকা অ্যান্টি-সেপটিক মুখে আলসার নিরাময়েও উপকারী, চোখের জন্যও ভালো।

মেয়েদের ঋতুস্রাবের সময় রক্তসঞ্চানল ভাল হওয়ার জন্যে ধনেপাতা খেলে উপকার পাওয়া যায়। এতে থাকা আয়রন রক্তশূন্যতা সারাতেও বেশ উপকারী।

ধনে পাতার ফ্যাট স্যলুবল ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন ‘এ’ ফুসফুস এবং পাকস্থলীর ক্যান্সার প্রতিরোধে কাজ করে। ঋতুস্রাবের সময় রক্তসঞ্চানল ভাল হওয়ার জন্যে ধনেপাতা খেলে উপকার পাওয়া যায়। এতে থাকা আয়রন রক্তশূন্যতা সারাতেও বেশ উপকারী। ধনে পাতার ফ্যাট স্যলুবল ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন ‘এ’ ফুসফুস এবং পাকস্থলীর ক্যান্সার প্রতিরোধে কাজ করে।

এছাড়া ধনে পাতাতে রয়েছে অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান, যা বাতের ব্যথাসহ হাড় এবং জয়েন্টের ব্যথা উপশমে কাজ করে। স্মৃতিশক্তি প্রখর এবং মস্তিস্কের নার্ভ সচল রাখতে সাহায্য করে ধনেপাতা। ধনেপাতায় উপস্থিত সিনিওল এসেনশিয়াল অয়েল এবং লিনোলিক অ্যাসিড থাকে যার মধ্যে অ্যান্টিরিউম্যাটিক এবং অ্যান্টি-আর্থ্রাইটিক বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান। এরা ত্বকের জ্বালা পোড়া এবং ফুলে যাওয়া কমাতে সাহায্য করে।

আপনার মতামত জানানঃ