ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   দেয়ালজুড়ে লাল-সবুজের ছড়াছড়ি

দেয়ালজুড়ে লাল-সবুজের ছড়াছড়ি

December 10, 2016 - 8:13 AM

নিউজ ডেস্ক : দেয়ালজুড়ে লাল-সবুজের ছড়াছড়ি। মাথায় গামছা, কারো হাতে ঝুলানো রাইফেল, কারো কাঁধে। পেছনে উড়ছে লাল-সবুজের পতাকা। মানসপটে মুক্তিযুদ্ধ কিংবা একাত্তরের চিত্র ধরা দেওয়ার জন্য এটুকুই যথেষ্ট। শিল্পীর রংতুলিতে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় চিত্রপট ফুটে উঠেছে এভাবেই।

সিলেট নগরীর প্রাণকেন্দ্র জিন্দাবাজার থেকে মিনিট পাঁচ-সাত হাঁটলেই চৌহাট্টা পয়েন্ট। ওই পয়েন্টেই রয়েছে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। আর শহীদ মিনারের ঠিক উল্টোদিকের দেয়ালজুড়ে চোখজুড়ানো রংতুলির চিত্রপট। মনের মাধুরী মিশিয়ে দেয়ালকে ক্যানভাস বানিয়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রতিচ্ছবি এঁকেছেন শিল্পী।

নানা রঙের তুলিতে দেয়ালজুড়ে গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমান, সাত বীরশ্রেষ্ঠ, পাঁচ ভাষা সৈনিক ও পাঁচ বুদ্ধিজীবীর পোট্রেট এবং মহান ভাষা আন্দোলনের উত্তাল সময়ের চিত্র আঁকা হচ্ছে। এসব অপরূপ চিত্রকর্মে লাল-সবুজ রঙের আধিক্যই বেশি। সবুজ শ্যামলিমার বাংলাদেশ যে লাল রক্তের সাগর পেরিয়ে বিশ্ব মানচিত্রে নিজের অবস্থান করে নিয়েছে, তা যেন অবচেতনভাবেই ভেসে ওঠে মনের কুঠুরিতে।

এসব নান্দনিক চিত্রকর্মের পেছনের কারিগর সিলেট আর্ট এন্ড অটিস্টিক স্কুলের চিত্রশিল্পী ইসমাইল গণি হিমন। তার তুলির আচড়েই মুক্তিযুদ্ধের প্রতিচ্ছবি ভাসছে দেয়ালের ক্যানভাসে। শুধু মুক্তিযুদ্ধই নয়, বাংলাদেশ নামক স্বাধীন ভূখন্ডের জন্মের পূর্বাপর বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামের বিষয়গুলোও ফুটে উঠেছে সেখানে।

দেয়ালকে ক্যানভাস বানানো চিত্রশিল্পী ইসমাইল গণি হিমনের সাথে আলাপ হয় গোটা বিষয়টি নিয়ে। হিমন বলেন, ‘ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা, ১১ দফা, মুক্তিযুদ্ধ এরপর বিজয়…এসব বিভিন্ন বিষয় যেন আমরা ক্রমেই ভুলে যাচ্ছি। এসব বিষয়কে স্মরণ করিয়ে দিতেই আমাদের প্রয়াস। দেয়ালে ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা, ১১ দফা, বঙ্গবন্ধু, বীরশ্রেষ্ঠ, ভাষা শহীদ, বুদ্ধিজীবীদের পোট্রেট, গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত বিজয় এসব বিষয় তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।’

সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) ও যে দেয়ালকে ক্যানভাস বানানো হয়েছে, সেই দেয়াল কর্তৃপক্ষ সিলেট সরকারি মহিলা কলেজ সংশ্লিষ্টদের অনুমতি নিয়েই রংতুলির সাহায্যে নন্দিত চিত্রকর্ম এঁকেছেন ইসমাইল গণি হিমন। গত ৭ ডিসেম্বর থেকে কাজ শুরু করেছেন তিনি। ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে পূর্ণ কাজ।

অবশ্য এবারই প্রথম নয়, এর আগে ২০১৪ সালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার যখন নবরূপে উদ্বোধন হয়, তখনও ওই দেয়ালকে ক্যানভাস বানিয়ে নানান চিত্রকর্ম এঁকেছিলেন হিমন। কিন্তু রাজনৈতিক স্লোগান আর পোস্টারের নিচে ক্রমেই ঢাকা পড়ে যায় সেসব।

ইসমাইল গণি হিমন শোনালেন নতুন এক আশার বাণী, ‘আগামী বছর আর রংতুলি নয়, একেবারে ম্যুরাল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের, যাতে স্থায়ীভাবে চিত্রকর্মগুলো ফুটে থাকে।’

আপনার মতামত জানানঃ