ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   দেশ স্বাধীন না হলে মুক্তিযোদ্ধাদের ফাঁসি হতো- বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম

দেশ স্বাধীন না হলে মুক্তিযোদ্ধাদের ফাঁসি হতো- বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম

December 10, 2016 - 4:47 AM

আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ ১৯৭১ সালের মার্চ মাস। তখন নবম শ্রেণীতে পড়ি। আমার বয়স তখন প্রায় ১৫-১৬ বছর।রংপুরের তিস্তায় এক নজিং বাড়িতে থাকি।স্কুল যাওয়ার পথে জানতে পেলাম রাজাকারদের সহায়তায় পাক হানাদাররা বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছিল। তখন আর স্কুলে যাওয়া হলো না। আমার বন্ধু, আবুল, আঃ হাকিম,আবুল কাশেম ও আমি নিজে ভারত কংগ্রেস গ্রুপ অফিসে গিয়ে আমরা বলি মুক্তি যুদ্ধে যোগ দেব। তখন তারা আমাদের নাম লেখে নেয়। পরের দিন আমাদের কে গাড়িতে করে বাংলাদেশের মইদেম ক্যাম্পে ট্রেনিং এর জন্য পাঠায়।সেখানে আমরা ৭ দিন লাঠি ট্রেনিং দেই।তার পর আমাদের কে কুড়িগ্রামের পাঠেরশরি আরও অন্যান্য মুক্তি সেনাদের সঙ্গে একত্র হই। কুড়িগ্রামে প্রথম খান সেনাদের মুখামুখি হই,তাদের সঙ্গে যুদ্ধা করি। হঠাৎ করে খান সেনাদের আক্রমানের তীব্রতা বৃদ্ধি হলে আমরা কুড়িগ্রামের বিন্নাচড় ক্যাম্পে  অবস্থান করি। পরেদিন আমাদের ক্যাম্পের কমেন্ডারের নির্দেশে আমরা ট্রেনিং এর জন্য ভারতের (এফ এফ) মজিব ক্যাম্পে ৩৫ দিন পরে আমাদের কে যুদ্ধের জন্য পাঠায় বর্তমানে পাটগ্রাম উপজেলার বাউরা। তখন আমরা মহান নেতা বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করি। জীবন বাজি রেখে ৯টি মাস যুদ্ধ করে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে বিজয় ছিনিয়ে আনি।মহান বিজয়ের মাসে মুক্তিযুদ্ধকালীন কথা গুলো এই প্রতিবেদকের কাছে স্মৃতিচারন করতে গিয়ে একথা গুলো বলেন,লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো:নজরুল ইসলাম (মোক্তার)। তিনি বলেন, আমি যখন জানতে পারি পাকবাহিনী ও রাজাকার সেদিন বাঙ্গালী কে হত্যা ,জুলুম , নির্যাতন ঘড় বাড়ী জালিয়ে মা বোনের ইজ্জত নষ্ট , করে । দেশকে পাকবাহিনী ও রাজাকারের জুলুম
আত্যাচার প্রতিহত করার জন্য বঙ্গবন্ধুর ডাকে মুক্তিযোদ্ধে অংশ গ্রহন করি।বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম আরো বলেন, আজ দেশ যদি স্বাধীন না হতো তাহলে রাষ্ট্রদোহ মামলায় মুক্তিযোদ্ধাদের ফাঁসি হতো। আর বর্তমানে আমাদের ভাতা পেত রাজাকাররা। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী দিনের মুক্তিযোদ্ধাদের ইতিহাস তুলে ধরে বীর মুক্তিরযোদ্ধা নজরুল ইসলাম বলেন, স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে ১৯৭৫ইং সালের ১৫ আগষ্ট হত্যার পর এদেশের মুক্তিযোদ্ধারা আতংক হতাশায় নিমজ্জিত হয় কিছু পাওয়া দুরের কথা নিজেদের জানমাল ইজ্জত বাঁচানো দায় হয়ে যায়। যে মুক্তিযোদ্ধারা জীবনের মায়া তুচ্ছ করে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করে দেশটা স্বাধীন করেছিল, তখন সেই মুক্তিযোদ্ধাদের নিজেদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পরিচয় দিতেও লজ্জাবোধ করত।এমনি ভাবে চলার পর এরশাদ সরকারের আমলে কিছু না পালিয়েও এরশাদ মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বকালের শেষ্ঠ সন্তান হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে ঘোষনা দেওয়ার পর মুক্তিযোদ্ধারা আস্তে আস্তে নিজেদের পরিচয় দিতে থাকেন। অনেক চড়াই উত্তরাই পেরিয়ে ১৯৯৬ইং সালে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি বাংলাদেশ আওয়ামীগ সরকার ক্ষমতায় আসায় তৎসময়ের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার অবদানে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাগ্য সুপ্রসন্য হতে থাকে। মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সামাজিক মূল্যায়নের প্রচলন করে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা কার্যক্রম চালু করেন।তিনি বলেন, যদিও ২০০১ইং হইতে ২০০৬ইং পর্যন্ত মাঝখানে মুক্তিযোদ্ধাদের সুযোগ/সুবিধা রহিত করা হয় । কিন্তু ২০০৮ইং পূনরায় স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার ক্ষমতায় আসার পর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাগ্য বদলাতে থাকে। বর্তমান সরকার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মৃত্যুর পর তাদের
রাষ্ট্রীয় মর্যদায় দাফন এবং অস্বছল ও বাস্তভিটাহীন মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন প্রকল্পের ব্যবস্থা নিয়েছেন।বীর
মুক্তিরযোদ্ধ আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম বলেন, তৎকালীন সময় স্বাধীনতার পর আমি এসএসসি পাস করি। এরপর  ১৯৭৪ সালে আগস্ট মাসে জীবিকার জন্য দলিল লেখনির পেশায় যোগদান করি।

আপনার মতামত জানানঃ