ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   ‘দেশে বিদেশি শিল্প-কারখানা স্থানান্তরের সুযোগ হয়েছে’

‘দেশে বিদেশি শিল্প-কারখানা স্থানান্তরের সুযোগ হয়েছে’

আগস্ট ২৭, ২০২০ - ৬:৫৪ অপরাহ্ণ

করোনা পরবর্তী পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে বিদেশি শিল্প-কারখানা স্থানান্তরের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে উল্লেখ করে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, এ সুযোগ কাজে লাগাতে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য ওয়ান-স্টপ সার্ভিস চালুর পাশাপাশি অন্যান্য নিয়ম-কানুন সহজ করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) ২০২০-২০২১ অর্থবছরে শিল্প মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) অন্তর্ভুক্ত প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন শিল্পমন্ত্রী।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের বিপুল শ্রমশক্তি, অভ্যন্তরীণ বিশাল বাজার এবং করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঠিক সিদ্ধান্ত ও দূরদর্শিতা তৃণমূল পর্যায়ে জনগণের মনোবল চাঙ্গা করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ও শিল্প উৎপাদন কার্যক্রম গতিশীল হয়েছে। বাংলাদেশ সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) অর্জনে সাফল্যের ধারাবাহিকতায় টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনেও সাফল্যের সাক্ষর রাখবে।

মন্ত্রী বলেন, ক্ষুদ্র শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য বিসিক শিল্প-নগরী এবং বিদেশি উদ্যোক্তাদের জন্য চিনিকলের অব্যবহৃত জমিতে শিল্প স্থাপনের সুযোগ করে দিয়ে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে চাঙ্গা করতে হবে। বর্তমান সরকার দেশেই নিজস্ব ব্র্যান্ডের গাড়ি উৎপাদন করবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ লক্ষ্যে অটোমোবাইল শিল্পনীতি হচ্ছে। পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও আমদানি-বিকল্প পণ্য উৎপাদনে হালকা প্রকৌশল শিল্পখাতের বিপুল সম্ভাবনা কাজে লাগানো হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেন, চিনিকলসমূহের চিনি উৎপাদনের পরিমাণ বাড়াতে আখের উন্নত জাত সৃষ্টি করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউটকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিয়ে আসার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। প্রতিমন্ত্রী অডিট টিম গঠন করে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য কর্পোরেশনের অর্থনৈতিক অবস্থা যাচাইয়ের পরামর্শ প্রদান করেন। আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন নতুন চিনিকল স্থাপনের লক্ষ্যে গৃহীত কার্যক্রম দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাবার নির্দেশনা দেন।

তিনি বলেন, বিসিক শিল্প-নগরীসমূহে রাস্তাঘাটসহ উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনায় প্রয়োজনীয় পরিষেবাসমূহের মান যাতে অক্ষুণ্ণ থাকে সেটি অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে। তিনি এসময় ডিপিএম’র মাধ্যমে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে সেগুলোর বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রতিনিধিদের প্রকল্প অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় উপস্থিত রাখার নির্দেশনা প্রদান করেন।

সভাপতির বক্তৃতায় শিল্প সচিব কে এম আলী আজম সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ দ্রুত বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেন। দেশের অর্থনীতি বর্তমানে টেক অফ স্টেজে রয়েছে উল্লেখ করে শিল্প-সচিব এই সুযোগকে কাজে লাগানোর জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়ের সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করার পরামর্শ দেন।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ