ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   দক্ষিণাঞ্চলের সাত জেলার সীমান্তে চামড়া পাচারের ৮৯ রুট

দক্ষিণাঞ্চলের সাত জেলার সীমান্তে চামড়া পাচারের ৮৯ রুট

August 30, 2016 - 11:28 AM

খুলনা : প্রতি বছরই ঈদুল আজহা পরবর্তী সময়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতে পশুর চামড়া পাচার হয়ে থাকে।

বিশেষ করে এ অঞ্চলের সীমান্তঘেষা জেলাগুলোর চোরাই পথ ব্যবহার করেই পাচার করা হয় এ সব চামড়া।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিশেষ প্রতিবেদনে সীমান্তবর্তী সাতটি জেলার ৮৯টি রুট চিহ্নিত করা হয়েছে। চিহ্নিত এ সব রুটে কোরবানি পরবর্তী সময়ে চামড়া পাচার রোধে কঠোর নজরদারির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দেশের সকল রেঞ্জের ডিআইজি, পুলিশ কমিশনার, পুলিশ সুপার, র্যা ব ও রেলওয়ে পুলিশের কাছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে গত ঈদুল আজহা পরবর্তী সময়ে প্রেরিত ওই বিশেষ প্রতিবেদনে ভারতে চামড়া পাচারের জন্য ব্যবহৃত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাতটি জেলার ৮৯টি রুট চিহ্নিত করা হয়।

এ সব রুটের মধ্যে সাতক্ষীরা জেলায় ২২টি, যশোরে ১৯টি, কুষ্টিয়ায় ১০টি, ঝিনাইদহে সাতটি, বাগেরহাটে ১১টি এবং মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গা জেলায় ২০টি।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার সঙ্গে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার করিমপুর ও মুর্শিদাবাদ জেলার জলঙ্গী থানার ৪৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য সীমান্ত রয়েছে। এর মধ্যে ২৯ কিলোমিটার স্থল এবং ১৭ কিলোমিটার জল সীমানা।

স্থল ভাগের ২৯ কিলোমিটারে কাঁটাতারের বেড়া থাকলেও নদী পথের ১৭ কিলোমিটার জলসীমায় কোনো কাঁটাতারের বেড়া নেই।

এ ছাড়া সীমান্ত এলাকার মহিষকুন্ডির ভাগজোত মোড়, মুন্সিগঞ্জ, প্রাণপুর, চরপাড়া, রামকৃষ্ণপুর, চিলমারী ও চরচিলমারী নামক স্থান দিয়ে ঈদ পরবর্তী সময়ে চামড়া পাচার হয়ে থাকে।

রুটগুলোর মধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বৈকারী, ঘোনা, কুশখালী, ভোমরা, হাড়দ্দাহ, কলারোয়া উপজেলার মাদ্রা, সোনাবাড়িয়া, চান্দুড়িয়া, কেড়াগাছি, কাকডাঙ্গা, ভাদিয়ালী ও হিজলদী এবং দেবহাটা উপজেলার কুলিয়া, শাকরা, গাজিরহাট ও টাউন শ্রীপুর।
যশোরের শার্শা উপজেলার শিকারপুর, গোগা, শালকোনা, রুদ্রপুর, কায়বা ও অগ্রভুলোট, বেনাপোল বন্দর থানার গাতিপাড়া, দৌলতপুর, পুটখালী, ঘিবা, বেনাপোল আইসিপি ও রঘুনাথপুর এবং চৌগাছা উপজেলার মাশিলা, আন্দুলিয়া বিওপি, বর্ণী, শাহাজাদপুর, পুড়াপাড়া, যাদবপুর ও হিজলী।

বাগেরহাটের মোংলার নালা, নলিয়ান, তাতরাল পয়েন্ট, হংসরাজ চ্যানেল, বোর পয়েন্ট, হিরণ পয়েন্ট, দুবলার চর, ছোট আমবাড়িয়া খাল, জ্যাফোর্ড পয়েন্ট, ফেয়ার ওয়েবয়া ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকা।

ঝিনাইদহের সীমান্ত থানা মহেশপুরের বাঘাডাঙ্গা, শ্যামকুড়, জুলুশী ও কুসুমপুর এলাকা দিয়ে চামড়া পাচারের আশংকা রয়েছে। এছাড়াও চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের বিভিন্ন প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি একরামুল হাবিব বলেন, ঈদের আগেরদিন থেকেই সীমান্তবর্তী জেলা বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, যশোর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহের চামড়া পাচারের রুটগুলোতে পুলিশের তৎপরতা বাড়িয়ে চেকপোস্ট বসানো হবে।

তিনি বলেন, প্রয়োজনে বিজিবিসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিয়ে কঠোর নজরদারি করা হবে। এ ছাড়াও গোয়েন্দা তৎপরতার মাধ্যমে চামড়া পাচার প্রতিরোধ করা হবে। বিশেষ করে বেনাপোল ও ভোমড়া বর্ডার এরিয়ায় বিশেষ নজরদারি থাকবে। চামড়া পাচার সংক্রান্ত কোনো তথ্য পাওয়া মাত্রই অভিযান পরিচালনা করা হবে।

আপনার মতামত জানানঃ